বাংলা নিউজ > ছবিঘর > ১৯ বছরে প্রেম, বাড়ির অমতে বিয়ে! অভিনেত্রী অপরাজিতা আঢ্যর ব্যক্তগিত জীবনের ঝলক

১৯ বছরে প্রেম, বাড়ির অমতে বিয়ে! অভিনেত্রী অপরাজিতা আঢ্যর ব্যক্তগিত জীবনের ঝলক

বাংলা ইন্ডাস্ট্রিতেও তিনি সকলের প্রিয়। মিষ্টি স্বভ... more

ছোট পরদা থেকে শুরু করে বড় পরদা, বাংলা বিনোদন দুনিয়ার পরিচিত মুখ অপরাজিতা অঢ্য। প্রচুর ভালোবাসা কুড়িয়েছেন দর্শকদের। শুধু তাই নয়, সহ-কর্মীদের কাছেও আপাদি যেন তাঁদের প্রাণের মানুষ। সবসময় হাসিখুশি মেজাজেই দেখা মেলে তাঁর। (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)
1/6ছোট পরদা থেকে শুরু করে বড় পরদা, বাংলা বিনোদন দুনিয়ার পরিচিত মুখ অপরাজিতা অঢ্য। প্রচুর ভালোবাসা কুড়িয়েছেন দর্শকদের। শুধু তাই নয়, সহ-কর্মীদের কাছেও আপাদি যেন তাঁদের প্রাণের মানুষ। সবসময় হাসিখুশি মেজাজেই দেখা মেলে তাঁর। (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)
শেষ তাকে দেখা গিয়েছে বড় পরদায় ‘চিনি’ ছবিতে। সঙ্গে স্টার জলসার ‘রান্নাঘরে’র হোস্ট তিনি। ‘তুমি আর আমি’ সিনেমা দিয়ে কাজ শুরু করেন। এরপর ‘শুভ মহরত’, ‘হামি’, ‘রসগোল্লা’, ‘বেলাশেষে’, ‘ওপেন টি বায়োস্কোপ’, ‘শুভ মহরত’-এর মতো ছবিতে কাজ করেছেন। একই সঙ্গে দাঁপিয়ে বেরিয়েছেন ছো়ট পরদাও। কাজ করেছেন ‘পুন্যি পুকুর’, ‘গানের ওপারে’, ‘কনকাঞ্জলি’, ‘মা’, ‘অদ্বিতীয়া’, ‘চোখের তারা তুই’, ‘জলনুপুর’-এ। 
2/6শেষ তাকে দেখা গিয়েছে বড় পরদায় ‘চিনি’ ছবিতে। সঙ্গে স্টার জলসার ‘রান্নাঘরে’র হোস্ট তিনি। ‘তুমি আর আমি’ সিনেমা দিয়ে কাজ শুরু করেন। এরপর ‘শুভ মহরত’, ‘হামি’, ‘রসগোল্লা’, ‘বেলাশেষে’, ‘ওপেন টি বায়োস্কোপ’, ‘শুভ মহরত’-এর মতো ছবিতে কাজ করেছেন। একই সঙ্গে দাঁপিয়ে বেরিয়েছেন ছো়ট পরদাও। কাজ করেছেন ‘পুন্যি পুকুর’, ‘গানের ওপারে’, ‘কনকাঞ্জলি’, ‘মা’, ‘অদ্বিতীয়া’, ‘চোখের তারা তুই’, ‘জলনুপুর’-এ। 
যদিও অভিনেত্রীর ব্যক্তগিত জীবন সিনেমার মতোই রোমাঞ্চময়। অল্প বয়সেই সাউন্ড ইঞ্জিনিয়ার অতনু হাজরার সঙ্গে বিয়ে হয় তাঁর। ছবির সেটে ১৯ বছর বয়সী অপরাজিতাকে প্রথমবার দেখেই ভালোবেসে ফেলেছিলেন স্বামী অতনু। অপরাজিতার বাড়ি থেকে তাঁদের সম্পর্ক মেনে না নিলেও পেয়েছিলেন শ্বশুরবাড়ির পুরো সাপোর্ট। তাঁদের সম্মুখেই বাড়ির লোকের অমতে সেরেছিলেন বিয়ে। 
3/6যদিও অভিনেত্রীর ব্যক্তগিত জীবন সিনেমার মতোই রোমাঞ্চময়। অল্প বয়সেই সাউন্ড ইঞ্জিনিয়ার অতনু হাজরার সঙ্গে বিয়ে হয় তাঁর। ছবির সেটে ১৯ বছর বয়সী অপরাজিতাকে প্রথমবার দেখেই ভালোবেসে ফেলেছিলেন স্বামী অতনু। অপরাজিতার বাড়ি থেকে তাঁদের সম্পর্ক মেনে না নিলেও পেয়েছিলেন শ্বশুরবাড়ির পুরো সাপোর্ট। তাঁদের সম্মুখেই বাড়ির লোকের অমতে সেরেছিলেন বিয়ে। 
মধুচন্দ্রিমার জন্য গিয়েছিলেন গ্যাংটক। দেখতে দেখতে কেটে গিয়েছে ২৩ বছর। অপরাজিতার শ্বশুর বাড়ি একান্নবর্তী পরিবার। রয়েছে ২১ জন সদস্য। ননদ পাপিয়ার সঙ্গে অপা-র বন্ডিং প্রিয় বন্ধুর মতো। কেরিয়ারে সব সময় পাশে থেকেছে এই পরিবারের সবাই। সবার সঙ্গে হেসেখেলে সময় কাটিয়ে দিতেই ভালোবাসেন তিনি। অপরাজিতার শাশুড়ি মাও বিয়ের পর প্রকৃত অর্থেই তার মা হয়ে উঠেছিলেন। পুত্রবধূকে তিনি কার্যত নিজের মেয়ের মতোই আগলে রাখেন।
4/6মধুচন্দ্রিমার জন্য গিয়েছিলেন গ্যাংটক। দেখতে দেখতে কেটে গিয়েছে ২৩ বছর। অপরাজিতার শ্বশুর বাড়ি একান্নবর্তী পরিবার। রয়েছে ২১ জন সদস্য। ননদ পাপিয়ার সঙ্গে অপা-র বন্ডিং প্রিয় বন্ধুর মতো। কেরিয়ারে সব সময় পাশে থেকেছে এই পরিবারের সবাই। সবার সঙ্গে হেসেখেলে সময় কাটিয়ে দিতেই ভালোবাসেন তিনি। অপরাজিতার শাশুড়ি মাও বিয়ের পর প্রকৃত অর্থেই তার মা হয়ে উঠেছিলেন। পুত্রবধূকে তিনি কার্যত নিজের মেয়ের মতোই আগলে রাখেন।
বিয়ের এত বছর পার করে এসেও একটুও যে কমেনি সম্পর্কের উষ্ণতা, তাঁর প্রমাণ অপরাজিতার সোশ্যাল মিডিয়ায় স্বামী অতনুর সঙ্গে শেয়ার করা ছবি। নিসন্তান দম্পতি সবসময়ই মেতে থাকেন পরিবারের বাকি সদস্যদের নিয়ে। আর সঙ্গে ‘মি টাইম’ কাটাতে দেশ-বিদেশের ভ্যাকেশন তো আছেই।
5/6বিয়ের এত বছর পার করে এসেও একটুও যে কমেনি সম্পর্কের উষ্ণতা, তাঁর প্রমাণ অপরাজিতার সোশ্যাল মিডিয়ায় স্বামী অতনুর সঙ্গে শেয়ার করা ছবি। নিসন্তান দম্পতি সবসময়ই মেতে থাকেন পরিবারের বাকি সদস্যদের নিয়ে। আর সঙ্গে ‘মি টাইম’ কাটাতে দেশ-বিদেশের ভ্যাকেশন তো আছেই।
কাজের ফাঁকে সময় মিললেই বেরিয়ে পড়েন এখানে-সেখানে। নতুন নতুন জায়গায় ঘুরতে যাওয়া, শপিং করা, বই পড়া, গান শোনা তাঁর বড় পছন্দ। সঙ্গে বাড়ির সকলের জন্য নিজের হাতে রান্না করতেও খুব ভালোবাসেন। 
6/6কাজের ফাঁকে সময় মিললেই বেরিয়ে পড়েন এখানে-সেখানে। নতুন নতুন জায়গায় ঘুরতে যাওয়া, শপিং করা, বই পড়া, গান শোনা তাঁর বড় পছন্দ। সঙ্গে বাড়ির সকলের জন্য নিজের হাতে রান্না করতেও খুব ভালোবাসেন। 
অন্য গ্যালারিগুলি