বাংলা নিউজ > ময়দান > 100 Hours 100 Stars: ভারতের মেয়েরা লড়তে পারে না, মিথ ভেঙেছেন সাইনা, সিন্ধুর অবদান অসামান্য, মত গোপীর
100 Hours 100 Stars-এ পুল্লেলা গোপীচাঁদ।
100 Hours 100 Stars-এ পুল্লেলা গোপীচাঁদ।

100 Hours 100 Stars: ভারতের মেয়েরা লড়তে পারে না, মিথ ভেঙেছেন সাইনা, সিন্ধুর অবদান অসামান্য, মত গোপীর

  • এতদিন আমরা বলতাম বেটি বাঁচাও। এখন বলতে হয় বেটিরাই বাঁচিয়ে দিল। দুই ছাত্রীকে নিয়ে গর্বিত মন্তব্য কোচের।

পুল্লেলা গোপীচাঁদের নাম নিলে অবধারিতভাবে অল ইংল্যান্ড চ্যাম্পিয়ন হওয়ার প্রসঙ্গ যেমন উত্থাপিত হবে, ঠিক তেমনই তাঁর কোচিং কেরিয়ারের প্রসঙ্গ সামনে চলে আসবে। বাস্তবিকই সাইনা নেহওয়াল, পিভি সিন্ধুর মতো অলিম্পিক পদকজয়ী উপহার দিয়েছেন যিনি, তাঁকে নেপথ্যের নায়ক বলা ছাড়া উপায় নেই। 

ফিভার নেটওয়ার্কের #100Hours100Stars-এর শোয়ে গোপীচাঁদকে স্বাভাবিকভাবেই তৃপ্ত দেখাল দুই ছাত্রীকে নিয়ে। সাইনা ও সিন্ধুকে নিয়ে তাঁদের গর্বিত কোচ জানালেন নিজের উপলব্ধির কথা।

সাইনা সম্পর্কে গোপীচাঁদ বলেন, 'ভারতীয় ব্যাডমিন্টনে ছেলেদের সাফল্য ছিল আগে থেকেই। তবে একজন ভারতীয় মহিলা সারা বিশ্বে ছড়ি ঘোরাচ্ছেন, এমনটা আগে কখনও হয়নি। সুতরাং সাইনা যখন আসে, ওর কাছে পরিস্থিতি ছিল চ্যালেঞ্জিং। তখন একটা ধারণা প্রতিষ্ঠিত ছিল যে, ভারতের মেয়েরা অত শক্তিশালী নয়। ওরা বিশ্বের সেরা তারকাদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারে না।'

লন্ডন অলিম্পকের ব্রোঞ্জ পদক জয়ীকে নিয়ে গোপী আরও জানান, ‘এই মিথটা ভাঙার জন্য আমাদের শাক্তিশালী কাউকে দরকার ছিল এবং সাইনা সেটা করে দেখাতে পেরেছে। ও সব দিক দিয়ে অত্যন্ত শক্তিশালী এবং সামনে প্রতিপক্ষ কে রয়েছে, সেটা কখনও ভাবে না। শুধু একারণেই ভারতীয় ব্যাডমিন্টনের সবথেকে বড় সম্পদ হিসেবে বিবেচিত হবে সাইনা যে, প্রাথমিক বাধাটা ওই দূর করেছিল। পরবর্তী সময়ে সেটা অনুসরণ করা অন্য বিষয়। তবে প্রথবার যে মিথটা ভাঙে, তার কৃতিত্ব অনেক বেশি।’

পরক্ষণেই সিন্ধু সম্পর্কে তাঁর কোচ বলেন, 'সিন্ধু প্রসঙ্গে বলি, ও ইতিমধ্যেই যা কিছু অর্জন করেছে, তা অসামান্য। গত চার-পাঁচ বছরে ধারাবাহিকভাবে ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপ, এশিয়ান গেমস, কমনওয়েলথ গেমস ও অলিম্পিকে পদক জেতা নিঃসন্দেহে অসাধারণ কৃতিত্ব। এখন আমাদের দেশে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন রয়েছে। অলিম্পিকের রুপোর পদক এসেছে। আশা করি পরের বার অলিম্পিকে আরও ভালো কিছু করবে ও। উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, ও এখন ২৪-২৫ বছরের। এখনও ৫-৬ বছর ব্যাডমিন্টন খেলবে ও। হয়ত ভবিষ্যতে দেখা যাবে ব্যাডমিন্টনের ইতিহাসে অন্যতম সেরা খেলোয়াড়ে পরিণত হয়েছে সিন্ধু।' 

সব শেষে গুরু গোপী বলেন, ‘সাইনা ও সিন্ধু দুজনেই ভারতীয় ব্যাডমিন্টনের সম্পদ। অলিম্পকের পর থেকে একটা নতুন মস্করা শুরু হয়েছে। এতদিন আমরা বলতাম, কন্যা বাঁচাও। এবার থেকে বলতে হবে, কন্যারাই বাঁচিয়ে দিল এযাত্রায়।’

বন্ধ করুন