বাংলা নিউজ > ময়দান > ICC অ্যাকাউন্ট থেকে উধাও ২০ কোটি টাকা! কীভাবে ঘটল অনলাইন জালিয়াতি?

ICC অ্যাকাউন্ট থেকে উধাও ২০ কোটি টাকা! কীভাবে ঘটল অনলাইন জালিয়াতি?

ICC -র অ্যাকাউন্ট থেকে উধাও ২০ কোটি টাকা

আইসিসি কর্মকর্তারা এখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আইন প্রয়োগকারী কর্মকর্তাদের সঙ্গে পুরো বিষয়টি তদন্ত করছেন। মিডিয়া রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে যে আইসিসির সঙ্গে একসঙ্গে ২.৫ মিলিয়ন ডলার প্রতারণা করা হয়নি, তবে বিভিন্ন ক্ষেত্রে মোট এই পরিমাণ অর্থের প্রতারণা করা হয়েছে।

ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) সঙ্গে অনলাইন-এ জালিয়াতির ঘটনা সামনে এসেছে। মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, আইসিসির সঙ্গে $২.৫ মিলিয়ন (প্রায় ২০ কোটি টাকা) জালিয়াতি করা হয়েছে। আইসিসির দুবাই অফিসের কর্মকর্তারা এই বিষয়ে মন্তব্য করতে রাজি হননি। তবে মিডিয়া রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এই ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। আইসিসি কর্মকর্তারা এখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আইন প্রয়োগকারী কর্মকর্তাদের সঙ্গে পুরো বিষয়টি তদন্ত করছেন। মিডিয়া রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে যে আইসিসির সঙ্গে একসঙ্গে ২.৫ মিলিয়ন ডলার প্রতারণা করা হয়নি, তবে বিভিন্ন ক্ষেত্রে মোট এই পরিমাণ অর্থের প্রতারণা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন… আমি পন্তকে নিয়ে ডাগআউটে বসতে চাই- IPL 2023 শুরু আগেই পন্টিং-এর বড় ঘোষণা

বিসিসিআই-এর মতো একজন পূর্ণ সদস্যের সংস্থার কাছে $২.৫ মিলিয়ন বড় অঙ্ক নয়, তবে সহযোগী দেশগুলির জন্য, এর পরিমাণটা বিশাল। আইসিসির কাছ থেকে প্রতারণার পরিমাণ একজন সহযোগী সদস্য প্রতি বছর আইসিসি থেকে প্রাপ্ত অনুদানের সমান। একজন সহযোগী বোর্ড কর্মকর্তা বলেছেন, ‘এটি সত্য হতে পারে না, একটি ODI সহযোগী দল ১৩-২০ র‍্যাঙ্ক করে ৫০০০০০ থেকে এক মিলিয়নের মধ্যে কিছু অর্থ পেয়ে থাকে।’ বৃহস্পতিবার গভীর রাতে আইসিসির সঙ্গে প্রতারণার ঘটনার তথ্য সামনে এসেছে। এ বিষয়ে আইসিসির তদন্ত চলছে এবং আগামী সময়ে এ বিষয়ে বোর্ডের পক্ষ থেকে কোনও তথ্য দেওয়া হতে পারে।

আরও পড়ুন… থ্যাঙ্কস ফিউচার- শুভমন গিলের দ্বিশতরানের পরে ভাইরাল রোহিত শর্মার পুরানো টুইট

আইসিসির সঙ্গে অনলাইন জালিয়াতির একাধিক ঘটনা সামনে আসার পর প্রশ্ন উঠছে। এই কারণেই আইসিসির সদর দপ্তর দুবাই-এর কোনও কর্মকর্তা এ বিষয়ে কিছু বলতে চাননি এবং সকলে চুপ রয়েছেন। তবে আইসিসির সঙ্গে প্রতারণা করা অভিযুক্তদের স্ট্রিং আমেরিকার সঙ্গে যুক্ত থাকার কথা উঠছে। ক্রিকেট খেলা আমেরিকায় খুব একটা জনপ্রিয় নয় এবং এখানে খুব বেশি ক্রিকেট ম্যাচ হয় না।

অনলাইনে প্রতারণার খবর আসতেই থাকে। প্রায়ই সাধারণ মানুষ সাইবার অপরাধীদের শিকার হয়ে তাদের কষ্টার্জিত অর্থ হারায়। অনলাইনে কখন কে কীভাবে প্রতারিত হবে তা বলা যাচ্ছে না। এখন বড় বড় প্রতিষ্ঠানও সাইবার জালিয়াতির শিকার হচ্ছে। অনলাইন প্রতারকরা এখন আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি অনলাইন জালিয়াতি), ক্রিকেটের বৈশ্বিক সংস্থাকে টার্গেট করেছে। এখন, এত বড় সংস্থার সঙ্গে জালিয়াতির পরে সকলেই অবাক হয়ে গিয়েছেন। প্রতারকরা আইসিসির পুরো ২০ কোটি টাকা প্রতারণা করেছে। তবে প্রতারণার বিষয়ে এখনও কিছু জানায়নি আইসিসি। তবে ক্রিকেট বিশ্বের তথ্য প্রদানকারী ওয়েবসাইট ক্রিকবাজের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আইসিসি পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। ফিশিংয়ের এই ঘটনাটি আইসিসিতে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে এবং সকলেই অবাক।

প্রতারক যুক্তরাষ্ট্রে আইসিসির একজন পরামর্শকের নামে একটি ভুয়া ইমেইল আইডি তৈরি করেছিল। এই ইমেল আইডি থেকে আইসিসির চিফ ফাইন্যান্স অফিসার অর্থাৎ সিএফওকে ২০ কোটি টাকার বেশি বিল পাঠানো হয়েছিল এবং তাঁকে তা দিতে বলা হয়েছিল। সিএফওর অফিস ফাঁকি দিয়ে বিল পরিশোধ করেছে। তবে প্রশ্ন উঠছে সিএফও অফিসে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট নম্বরের দিকে কেন নজর দিল না কেউ। তবে আইসিসি এই মুহূর্তে এ বিষয়ে কিছু বলছে না, তবে তারা নিজস্ব তদন্ত শুরু করেছে এবং আমেরিকার আইনি সংস্থার কাছে অভিযোগও দেওয়া হয়েছে।

বন্ধ করুন