বাংলা নিউজ > ময়দান > এ বারের ‘ফাদার্স ডে’ তাঁর কাছে সবচেয়ে যন্ত্রণার, বাবার স্মৃতিচারণ জীব মিলখার
বাবাকে হারিয়ে একেবারে ভেঙে পড়েছেন জীব মিলখা সিং।
বাবাকে হারিয়ে একেবারে ভেঙে পড়েছেন জীব মিলখা সিং।

এ বারের ‘ফাদার্স ডে’ তাঁর কাছে সবচেয়ে যন্ত্রণার, বাবার স্মৃতিচারণ জীব মিলখার

  • যখন মিলখা সিং প্রথম করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন, তখন জীব মিলখা দুবাইয়ে ছিলেন। বাবা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, এই খবর পাওয়ার দু'দিনের মধ্যেই ভারতে চলে এসেছিলেন। কিন্তু তখন তিনি ভাবেননি, এ ভাবে মা-বাবা দু'জনকেই একসঙ্গে হারাতে হবে।

মাত্র পাঁচ দিনের ব্যবধানে পরপর মা-বাবাকে হারিয়েছেন তিনি। এই ঘটনায় একেবারে ভেঙে পড়েছেন গল্ফার জীব মিলখা সিং। কিছুতেই এই ঘটনাটা তিনি মানতে পারছেন না। করোনা তাঁর জীবনটা হঠাৎ করেই শূন্য করে দিয়েছে। শুক্রবার গভীর রাতে প্রয়াত হন ভারতের ফ্লাইং শিখ কিংদন্তি স্প্রিন্টার মিলখা সিং। তার পাঁচ দিন আগেই মারা গিয়েছিলেন মিলখা সিং-এর স্ত্রী নির্মল কাউর।

রবিবার ‘ফাদার্স ডে’তে বাবার স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে জীব মিলখা বলছিলেন, ‘এটা এমন একটা দিন, যে দিনটা আমাকে মনে করিয়ে দিচ্ছে, আমি কী হারালাম!’ এর সঙ্গেই ৪৯ বছরের গল্ফার বলেন, ‘আমার কাছে বাবা-ছেলের সম্পর্কের চেয়েও অনেক বেশি কিছু ছিল ড্যাড- আমার সবচেয়ে ভাল বন্ধু, আমার গাইড, আমার মেন্টর।’

যখন মিলখা সিং প্রথম করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন, তখন জীব মিলখা দুবাইয়ে ছিলেন। বাবা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, এই খবর পাওয়ার দু'দিনের মধ্যেই ভারতে চলে এসেছিলেন। কিন্তু তখন তিনি ভাবেননি, এ ভাবে মা-বাবা দু'জনকেই একসঙ্গে হারাতে হবে। জীব মিলখা সিং বলছিলেন, ‘এই প্রতিকূল পরিস্থিতি কাটিয়ে ওঠার জন্য এই মুহূর্তে আমার মানসিক শক্তি খুব প্রয়োজন। এটা অবশ্য আমার বাকি জীবনের জন্যই প্রয়োজন।’

মে মাসের তৃতীয় সপ্তাহ নাগাদ করোনা আক্রন্ত হয়েছিলেন মিলখা সিং। তাঁকে মোহালির এক বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়েছিল। তবে কিছুটা ভাল হওয়ার পরেই পরিবারের অনুরোধে তাঁকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়। তবে কোভিড পরবর্তী সমস্যা নিয়ে ফের চণ্ডীগড়ের একটি হাসপাতালে তাঁকে ভর্তি করতে হয়। সেখানেই তিনি প্রয়াত হন।

মিলখা সিং করোনায় আক্রান্ত হওয়ার কয়েক দিনের মধ্যেই তাঁর স্ত্রী নির্মল কাউরও করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। সঙ্গে তাঁর নিউমোনিয়াও ধরা পড়েছিল। তিনি প্রায় তিন সপ্তাহ করোনার সঙ্গে লড়াই করার পর  ১৩ জুন বিকেলে প্রয়াত হন। সপ্তাহ ঘোরার আগেই না ফেরার দেশে চলে গিয়েছেন কিংবদন্তি স্প্রিন্টারও।

বন্ধ করুন