বাংলা নিউজ > ময়দান > রফিকের পাশে দাঁড়ালেন রশিদ, জানালেন এশিয়ান ক্রিকেটারদের প্রতি ভনের কটুক্তির কথা
আদিল রশিদ।
আদিল রশিদ।

রফিকের পাশে দাঁড়ালেন রশিদ, জানালেন এশিয়ান ক্রিকেটারদের প্রতি ভনের কটুক্তির কথা

  • ২০০৯ সালে এক কাউন্টি ম্যাচে নটিংহ্যামশায়ারে বিরুদ্ধে খেলার সময়ে ভনের বিরুদ্ধে বর্ণবিদ্বেষী মন্তব্য করার অভিযোগ এনেছিলেন রফিক। সে কথা আবার জানিয়েছিলেন ভন নিজেই।

শুভব্রত মুখার্জি: ইয়র্কশায়ার ক্লাবকে ঘিরে যে বর্ণবিদ্বেষের ঘটনা সামনে এসেছে, তা যত দিন যাচ্ছে তত বেশি ঘোরালো হচ্ছে। একের পর এক বিস্ময়কর ঘটনা সামনে এসে পড়ছে। তবে এই ঘটনায় যত দিন যাচ্ছে তত বেশি করে যেন বিপদের মধ্যে পড়ছেন অ্যাসেজ জয়ী প্রাক্তন ইংরেজ অধিনায়ক মাইকেল ভন। এশিয়ান ক্রিকেটারদের প্রতি ভনের যে বিদ্বেষ এবং তিনি সাজঘরে সেটি যে ভাষায় প্রকাশ করেছিলেন, তা আগেই জানিয়েছিলেন আজিম রফিক। তার বক্তব্যকে সমর্থন করেছিলেন প্রাক্তন পাকিস্তানি পেসার রানা নাভেদ উল হাসান। পরবর্তীতেরফিকের পাশেই দাঁড়ালেন বর্তমান ইংল্যান্ডের দলের সদস্য আদিল রশিদও।

উল্লেখ্য ২০০৯ সালে এক কাউন্টি ম্যাচে নটিংহ্যামশায়ারে বিরুদ্ধে খেলার সময়ে ভনের বিরুদ্ধে বর্ণবিদ্বেষী মন্তব্য করার অভিযোগ এনেছিলেন রফিক। সে কথা আবার জানিয়েছিলেন ভন নিজেই। ভনের অভিযোগ ছিল, রফিক তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়ে বলেছেন, তিনি নাকি মন্তব্য করেছেন, 'তোমারা একাধিক সংখ্যায় উপস্থিত। এই বিষয়টি নিয়ে কিছু করতে হবে।' ইংল্যান্ডের জাতীয় দল এবং ঘরোয়া ক্রিকেটে বেশি সংখ্যায় এশিয়ান ক্রিকেটারদের উপস্থিতি সম্পর্কে তিনি এই কথা বলেছিলেন বলে রফিকের অভিযোগ ছিল।

পরবর্তীতে ঘটনার উল্লেখ করে জানানো হয়, ওই কথোপকথনের সময় ভন, রফিক ছাড়াও আদিল রশিদ, আজমল শেহজাদ এবং রানা নাভেদ উল হাসান উপস্থিত ছিলেন। এই প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে আদিল রশিদ জানান, 'জীবনের যে কোনও ক্ষেত্রে বর্ণবাদ ক্যান্সারের মতন। দুর্ভাগ্যজনক ভাবে এটি প্রফেশনাল গেমসের ক্ষেত্রেও উপস্থিত। এই রোগকে সমূলে উৎপাটন করতে হবে। আমি আমার ক্রিকেটের রতি যতটা সম্ভব মনোনিবেশ করতে চেয়েছিলাম। যাতে করে এইধরনের ঘটনা আমার মনোযোগে ব্যাঘাত না ঘটিয়ে দলের ক্ষতি না করতে পারে। তবে আমি এটা নিশ্চিত করতে পারি এশিয়ান ক্রিকেটারদের সম্বন্ধে ভন যে কথাটা বলেছে বলে রফিক দাবি করেছে তা একেবারে সত্যি। আমি এই বিষয়ে খুশি যে পার্লামেন্টারি কমিটি বিষয়টিতে নজর দিয়েছে পরিস্থিতির উন্নতি ঘটাতে। দোষীদের শাস্তি দেওয়া হোক বা প্রতিষ্ঠানের মানসিকতায় পরিবর্তন ঘটানো সব বিষয়ে তাদের যে ভূমিকা তা ইতিবাচক।'

বন্ধ করুন