বাংলা নিউজ > ময়দান > কোটলায় অরুণ জেটলির মূর্তি! ক্ষোভে স্টেডিয়াম থেকে নিজের নাম সরিয়ে নিতে বললেন বেদি
বিষেণ সিং বেদি। ছবি- পিটিআই।
বিষেণ সিং বেদি। ছবি- পিটিআই।

কোটলায় অরুণ জেটলির মূর্তি! ক্ষোভে স্টেডিয়াম থেকে নিজের নাম সরিয়ে নিতে বললেন বেদি

  • দিল্লি ক্রিকেট সংস্থার সদস্যপদ ত্যাগ করার কথাও ঘোষণা করেন কিংবদন্তি ক্রিকেটার।

ফিরোজ শাহ কোটলায় দিল্লি অ্যান্ড ডিস্ট্রিক্ট ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের প্রাক্তন সভাপতি তথা প্রয়াত কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অরুণ জেটলির মূর্তি বসানোর সিদ্ধান্তে বেজায় ক্ষুব্ধ বিষেণ সিং বেদি। টিম ইন্ডিয়ার প্রাক্তন তারকা এতটাই রেগে গিয়েছেন যে, ডিডিসিএকে চিঠি দিয়ে নিজের সদস্যপদ ত্যাগ করার কথা জানিয়ে দিয়েছেন। এমনকি কোটলা স্টেডিয়ামে তাঁর নামাঙ্কিত স্ট্যান্ড থেকে তাঁর নাম অবিলম্বে সরিয়ে নিতে বলেছেন কিংবদন্তি ক্রিকেটার।

দীর্ঘ সময় ডিডিসিএ সভাপতি হিসেবে কাজ করা জেটলির মৃত্যুর পর কোটলা স্টেডিয়ামের নামকরণ করা হয় তাঁর নামে। এবার দিল্লি ক্রিকেট সংস্থা সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে, স্টেডিয়াম চত্ত্বরে প্রয়াত অরুণ জেটলির ৬ ফুটের একটি মূর্তি বসানো হবে।

অতীতে জেটলির সঙ্গে দিল্লি ক্রিকেট সংস্থা পরিচালনার একাধিক বিষয় নিয়ে বেদির মতবিরোধের কথা সবার জানা। তা সত্ত্বেও স্টেডিয়ামের নাম বদলের সময় প্রতিবাদ করেননি বেদি। তবে এবার যখন তাঁর মূর্তি স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, তখন আর চুপ থাকতে পারলেন না প্রাক্তন স্পিনার। কেননা বেদির মতে, জেটলি দিল্লি ক্রিকেট সংস্থাকে দুর্নীতিবাজদের আখড়া বানিয়েছিলেন।

অরুণ জেটলির ছেলে রোহন জেটলি, যিনি এই মুহূর্তে দিল্লি ক্রিকেট সংস্থার সভাপতি, তাঁকে চিঠি লিখে নিজের সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দিয়েছেন বেদি। চিঠিতে তিনি লিখেছেন, ‘ধৈয্যশীল ও সহনশীল ব্যক্তি হিসেবে নিজেকে নিয়ে গর্ববোধ করি। তবে আশঙ্কা হচ্ছে, আমার ধৈর্য্য ক্রমে কমে আসছে। ডিডিসিএ আমার ধৈর্য্যের পরীক্ষা নিচ্ছে এবং বাধ্য করেছে এমন কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে।’

তিনি আরও লেখেন, ‘মিস্টার প্রেসিডেন্ট, আমার নামাঙ্কিত স্ট্যান্ড থেকে আমার নাম অবিলম্বে সরিয়ে নেওয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি। সেই সঙ্গে আমি ডিডিসিএর সদস্যপদ ত্যাগ করার কথা ঘোষণা করছি।’

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে ফিরোজ শাহ কোটলা স্টেডিয়ামের একটি স্ট্যান্ডের নামকরণ করা হয় বিষেণ সিং বেদির নামে।

বন্ধ করুন