বাংলা নিউজ > ময়দান > ‘ধোনির জন্য বন্দুকের গুলি খেতেও দু'বার ভাববে না দলের কেউ’, দাবি রাহুলের
মহেন্দ্র সিং ধোনি এবং কেএল রাহুল।
মহেন্দ্র সিং ধোনি এবং কেএল রাহুল।

‘ধোনির জন্য বন্দুকের গুলি খেতেও দু'বার ভাববে না দলের কেউ’, দাবি রাহুলের

  • ধোনি ভারতের সফলতম অধিনায়ক। বিশ্বের অন্যতম সেরাও বটে। ধোনিই একমাত্র অধিনায়ক, যাঁর ঝুলিতে তিনটি আইসিসি টুর্নামেন্টের ট্রফি রয়েছে। ২০০৭ সালে ভারতকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জিতিয়েছিলেন। ২০১১ সালে ৫০ ওভারে বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন ভারতকে। আর ২০১৩-তে তাঁর নেতৃত্বেই চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জিতেছিল ভারত।

অনেক দিন হয়ে গেল মহেন্দ্র সিং ধোনি অধিনায়কত্ব ছেড়ে দিয়েছেন। তার পর গত বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকেও বিদায় জানিয়েছেন। কিন্তু এখনও ধোনিতেই মজে রয়েছেন তাঁর নেতৃত্বে খেলা ক্রিকেটাররা। লোকেশ রাহুলই যেমন বলে দিয়েছেন, ‘ধোনির জন্য আমাদের মধ্যে থেকে যে কেউ বন্দুকের গুলি খাওয়ার আগেও দু’বার ভাববে না।’

ধোনি ভারতের সফলতম অধিনায়ক। বিশ্বের অন্যতম সেরাও বটে। ধোনিই একমাত্র অধিনায়ক, যাঁর ঝুলিতে তিনটি আইসিসি টুর্নামেন্টের ট্রফি রয়েছে। ২০০৭ সালে ভারতকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জিতিয়েছিলেন। ২০১১ সালে ৫০ ওভারে বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন ভারতকে। আর ২০১৩-তে তাঁর নেতৃত্বেই চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জিতেছিল ভারত। একটি সাক্ষাৎকারে সেই অধিনায়কের প্রসঙ্গ উঠতেই, লোকেশ রাহুলের কথায় ভালবাসা, সম্মানের সঙ্গে আবেগও ঝড়ে পড়েছে।

কেএল রাহুল অবশ্য খুব বেশি দিন ধোনির নেতৃত্বে খেলার সুযোগ পাননি। তবে ড্রেসিংরুমে এবং অন্যান্য সময়ে খুব কাছ থেকে ধোনিকে দেখার সুযোগ পেয়েছেন। ধোনির অসাধারণ ব্যক্তিত্বেই মুগ্ধ রাহুল। সাক্ষাৎকারে ভারতের তারকা ওপেনার বলেছেন, ‘যখন কেউ আমাকে জিজ্ঞেস করে, আমাদের সময়কার কোন অধিনায়কের কথা প্রথমে মনে আসে, সেটা অবশ্যই এমএস ধোনি। আমরা ওর নেতৃত্বে সকলেই কম বেশি খেলেছি। হ্যাঁ, ও বহু টুর্নামেন্ট জিতেছে। দেশকে অসাধারণ সব সাফল্য এনে দিয়েছে। তবে ওর সবচেয়ে বড় পাওনা হল, অধিনায়ক হিসেবে নিজের সতীর্থদের থেকে নির্ভেজাল সম্মান। ওর জন্য টিমের যে কেউ বন্দুকের গুলি খেতেও দ্বিতীয় বার ভাববে না।’

এর সঙ্গেই রাহুল যোগ করেছেন, ‘উত্থান-পতনের মাঝেও কী ভাবে বিনয়ী থাকা যায়, সেটা আমি ওর থেকে শিখেছি। জীবনের সব কিছুর থেকে নিজের দেশকেই সব সময়ে এগিয়ে রাখত ধোনি।’ লোকেশ রাহুল এখন ইংল্যান্ডে রয়েছেন। বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালে খেলার সুযোগ না পেলেও সম্ভবত ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে প্রথম একাদশে ফিরবেন তিনি। মিডল অর্ডারে তাঁর খেলার সম্ভাবনা বেশি।

বন্ধ করুন