বাংলা নিউজ > ময়দান > Ashes 2021: 'গাব্বায় অজিদের দর্পচূর্ণের ক্ষমতা সকলের নেই', রুটদের দুর্দশায় খোঁচা ভারতীয়দের
জানুয়ারিতে গাব্বায় পন্ত এবং আজ স্টার্কের বলে বোল্ড বার্নস। (ছবি সৌজন্য পিটিআই এবং টুইটার @cricketcomau)
জানুয়ারিতে গাব্বায় পন্ত এবং আজ স্টার্কের বলে বোল্ড বার্নস। (ছবি সৌজন্য পিটিআই এবং টুইটার @cricketcomau)

Ashes 2021: 'গাব্বায় অজিদের দর্পচূর্ণের ক্ষমতা সকলের নেই', রুটদের দুর্দশায় খোঁচা ভারতীয়দের

  • সাড়ে দশ মাস আগে এই গাব্বায় অস্ট্রেলিয়ার দুর্গ চুরমার করেছিল ভারত।

সাড়ে ১০ মাস আগে এই গাব্বায় অস্ট্রেলিয়ার দুর্গ চুরমার করেছিল ভারত। ৩২ বছর পর টেস্টে কোনও দল অজিদের গাব্বায় হারিয়েছিল। সেই মাঠেই বুধবার ভেঙে পড়ল ইংল্যান্ড। অজিদের সামনে স্রেফ টিকতেই পারলেন না জো রুটরা। তা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় খোঁচা দিতে ছাড়লেন না ভারতীয়রা। 

বুধবার অ্যাসেজের প্রথম টেস্টের প্রথম বলেই ররি বার্নসকে আউট করেন মিচেল স্টার্ক। সেটাই ছিল শুরু। তারপর একের পর এক উইকেট হারাতে থাকে ইংল্যান্ড। ১১ রান উঠতে না উঠতেই তিন উইকেট খুইযে ফেলে ইংল্যান্ড। ২৯ রানের মাথায় আউট হন ইংল্যান্ডের সেরা খেলোয়াড় বেন স্টোকস। তারপরেই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল যে ইংল্যান্ডের কী দুর্দশা হতে চলেছে। তবে ইংল্যান্ডকে লজ্জার মুখ থেকে বাঁচান হাসিব হামিদ (২৫ রান), ওলি পোপ (৩৫ রান), জোস বাটলার (৩৯ রান) এবং ক্রিস ওকস (২১ রান)। শেষপর্যন্ত ১৪৭ রানেই অলআউট হয়ে যায় ইংল্যান্ড। 

গাব্বায় ব্রিটিশদের সেই দুর্দশা দেখে অবশ্য খোঁচা দিতে ছাড়েননি ভারতীয়রা। এক নেটিজেন বলেন, 'গাব্বায় অজিদের দর্পচূর্ণের ক্ষমতা সকলের নেই'। সঙ্গে ভারতের সেই ঐতিহাসিক জয়ের একাধিক মুহূর্তের ছবি পোস্ট করেন। অপর এক নেটিজেন একটি পোস্ট শেয়ার করে লেখেন, ‘যতক্ষণ না ভারত আসছে।’ ওই পোস্টে স্টার্ক, জস হেজেলউড এবং প্যাট কামিন্সের ছবি পোস্ট করে লেখা ছিল, ‘এই তিনজনকে একসঙ্গে টেস্টে খেলানো অবৈধ বলে ঘোষণা করা উচিত।’

উল্লেখ্য, গত জানুয়ারিতে সিরিজের শেষ টেস্টে গাব্বায় ভারতের সামনে ৩২৮ রানের লক্ষ্যমাত্রা রেখেছিল অস্ট্রেলিয়া। যে ভারত চোট-আঘাতে সমস্যায় জর্জরিত ছিল। পরিস্থিতি এমন হয়েছিল যে প্রথম একাদশ করতেই হিমশিম খেতে হয়েছিল। তারইমধ্যে প্রথম ইনিংসে দারুণ লড়াই করেছিলেন ওয়াশিংটন সুন্দর এবং শার্দুল ঠাকুর। তাঁদের জন্যই অজিরা বেশি লিড নিতে পারেননি। তারপর বল হাতে জাদু দেখিয়েছিলেন শার্দুল এবং মহম্মদ সিরাজ। আর শেষদিনটা তো ছিল রুপকথার গল্প। পঞ্চম দিন রান তাড়া করে জিতেছিল ভারত। ৯১ রান করে শুভমন গিল ভারতের শুরুটা শুধু দারুণ করেননি, বরং দলকে জেতার স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন। শরীরে একাধিক আঘাত সত্ত্বেও দাঁতে দাঁত চেপে লড়াই করেছিলেন চেতেশ্বর পূজারা। শেষের দিকে অজিদের ডেরায় গিয়ে তাঁদের উপর ছড়ি ঘোরানোর কাজটা করেছিলেন ঋষভ পন্ত। তাঁর অপরাজিত ৮৯ রানের সৌজন্যেই ৩২ বছর পর গাব্বায় হারের মুখ দেখতে হয়েছিল অস্ট্রেলিয়াকে। জয়সূচক শটও এসেছিল তাঁর ব্যাট থেকেই। যিনি চাপের খোলসে ঢুকে না গিয়ে নিজের ছন্দ ধরে রেখেছিলেন। আক্রমণাত্মক খেলায় অজি বোলারদের মাথার উপর চেপে বসতে দেননি।

বন্ধ করুন