বাংলা নিউজ > ময়দান > Asia Cup: আফগানদের হারিয়ে আনন্দের এমনই বহিঃপ্রকাশ, পেশোয়ারে গুলিতে নিহত ২, আহত ৩
পাকিস্তানের জয়ের পর পেশোয়ারে ঘটে গেল অপ্রীতিকর ঘটনা।

Asia Cup: আফগানদের হারিয়ে আনন্দের এমনই বহিঃপ্রকাশ, পেশোয়ারে গুলিতে নিহত ২, আহত ৩

  • জানা গিয়েছে, সেলিব্রেশন করতে গিয়ে কয়েক রাউন্ড গুলি চালানো হয়। আর সেই গুলিতেই নিহত হয়েছে ২। আহতের সংখ্যা ৩। স্বাভাবিক ভাবেই পাকিস্তানের জয়ের আনন্দ পেশোয়ারে চোখের জল হয়ে নেমে আসে। এই খবরে গোটা পাকিস্তান জুড়েই শোকের ছায়া।

শেষ রক্ষা হল না। শেষ ওভারে সব হিসেব ওলটপালট করে দিলেন পাকিস্তানের তরুণ পেসার নাসিম শাহ। ১৯তম ওভারের প্রথম ২ বলে পরপর ২টি ছক্কা মেরে পাকিস্তানকে জিতিয়ে দেন নাসিম। সেই সঙ্গে ভারতকে টুর্নামেন্ট থেকেই ছিটকে দিল পাক ব্রিগেড।

টানটান উত্তেজনার ম্যাচটি নাটকীয়তায় ভরপুর ছিল। শেষ ওভারের থ্রিলারে যদিও শেষ হাসি হাসে পাকিস্তানই। আর বাবর আজমরা এশিয়া কাপের ফাইনালে পৌঁছানোর পর পেশোয়ার জুড়ে শুরু হয় সেলিব্রেশন। আর সেই সেলিব্রেশনের মাশুল গুনতে হয় পাকিস্তানের সাধারণ নাগরিকদের।

জানা গিয়েছে, সেলিব্রেশন করতে গিয়ে কয়েক রাউন্ড গুলি চালানো হয়। আর সেই গুলিতেই নিহত হয়েছে ২। আহতের সংখ্যা ৩। স্বাভাবিক ভাবেই পাকিস্তানের জয়ের আনন্দ পেশোয়ারে চোখের জল হয়ে নেমে আসে। এই খবরে গোটা পাকিস্তান জুড়েই শোকের ছায়া।

আরও পড়ুন: হুডাকে বল না দেওয়া, আর্শদীপকে ১৯তম ওভারে না আনা, রোহিতের কৌশল নিয়ে বিরক্ত ইরফান

বুধবারের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে টসে জিতে আফগানিস্তানকে ব্যাট করতে পাঠিয়েছিল পাকিস্তান। পাক বোলারদের দাপটে মাত্র ১২৯ রানেই শেষ হয়ে যায় আফগানদের ইনিংস।

নির্দিষ্টি ২০ ওভারে আফগানিস্তান ৬ উইকেট হারিয়ে মাত্র ১২৯ রান করতে পারে। তাদের হয়ে সর্বোচ্চ রান ইব্রাহিম জাদরানের। তিনি ৩৭ বলে ৩৫ রান করেন। ওপেন করতে নেমে ১৭ বলে ২১ করেছেন হাজরাতুল্লাহ জাজাই। এর বাইরে কেউ ২০ রানের গণ্ডি টপকাতে পারেননি। ১১ বলে ১৭ করেছেন রাহমানুল্লাহ গুরবাজ। ১৯ বলে ১৫ করেছেন করিম জানাত। রশিদ খান ১৫ বলে ১৮ করে অপরাজিত ছিলেন।

আরও পড়ুন: আসিফ আলিকে ব্যান করার দাবিতে সরব আফগান ক্রিকেটাররা

এ দিকে পাকিস্তানের নাসিম শাহের ১ উইকেট ছাড়াও ১টি করে উইকেট নিয়েছেন মহম্মদ হাসনাইন, মহম্মদ নওয়াজ এবং শাদাব খান। একমাত্র হরিশ রউফ ২ উইকেট তুলে নিয়েছেন।

রান তাড়া করতে নেমে পাকিস্তানও যে সহজে ম্যাচ জিতেছে, এমনটা নয়। শুরু থেকেই আফগান বোলারদের পাল্টা দাপটে পাক ব্যাটিং অর্ডারও কেঁপে ওঠে। দলের ১ রানের মাথায় বাবর আজম গোল্ডেন ডাক করে সাজঘরে ফেরেন। ফজলহক ফারুকির বলে এলবিডব্লিউ হন তিনি। বাকি ব্যাটারদের অবস্থাও তথৈবচ। ৪৫ রানের মধ্যেই পাকিস্তানের ৩ উইকেট পড়ে যায়। তার পরেও অবশ্য উইকেট পড়ার রেশ থামেনি পাক ব্রিগেডের। তারা পরপর উইকেট হারাতে থাকে। ১৮.৫ ওভারে ১১৮ রানে পাকিস্তানের ৯ উইকেট পড়ে গিয়েছিল। সেখান থেকে ম্যাচের রং বদলে দেন তরুণ নাসিম শাহ।

১৯তম ওভারের প্রথম ২ বলে ২টি ছক্কা হাঁকিয়ে ম্যাচ জিতিয়ে দেন নাসিম শাহ। পাকিস্তানের হয়ে সর্বোচ্চ রান করেছেন শাদাব খান। ২৬ বলে ৩৬ করেন তিনি। ৩৩ বলে ৩০ করেন ইফতিকার আহমেদ। এ ছাড়া ২৬ বলে ২০ করেছেন মহম্মদ রিজওয়ান।৮ বলে ১৬ করেছেন আসিফ আলি। শেষে ৪ বলে ১৪ রান করে বাজিমাত করেন নাসিম শাহ।

আফগানিস্তানের ফারুকি এবং ফরেদ আহমদ ৩টি করে উইকেট নিয়েছেন। রশিদ খান ২টি উইকেট নিয়েছেন। তবু শেষরক্ষা করতে পারল না আফগানরা। ৪ বলে বাকি থাকতে ১ উইকেটে জিতে ফাইনালে পৌঁছে গেল পাকিস্তান। ছিটকে গেল আফগানিস্তান এবং ভারত। ফাইনালে মুখোমুখি হবে পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কা।

বন্ধ করুন