বাংলা নিউজ > ময়দান > Aus vs Ind: বাবার মৃত্যুর সময় স্কুলে ক্রিকেট খেলায় মগ্ন, চারদিন খোঁজ মেলেনি বিহারীর
হনুমা বিহারী। (ছবি সৌজন্য, টুইটার @BCCI)
হনুমা বিহারী। (ছবি সৌজন্য, টুইটার @BCCI)

Aus vs Ind: বাবার মৃত্যুর সময় স্কুলে ক্রিকেট খেলায় মগ্ন, চারদিন খোঁজ মেলেনি বিহারীর

  • সিডনিতে 'আহত' হনুমা বিহারীর বুক চিতিয়ে লড়াই।

শুভব্রত মুখার্জি

যে কোন মানুষের জীবনেই তাঁর বাবা-মা'র অবদান সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ। সন্তানের বড় হওয়ার প্রতিটি মুহূর্তে অবদান রাখেন তাঁদের বাবা-মা। সেই কাজের মানুষকে হারানো সত্যি সত্যিই বড় বেদনার। বিভিন্ন খেলার মতো ক্রিকেটের ২২ গজও নানারকম দায়বদ্ধতার নিদর্শন সাক্ষী থেকেছে।

যখন প্রিয়জনকে হারিয়েও ক্রিকেটাররা তাঁদের লক্ষ্যে ছিলেন অবিচল। ১৯৯৯ সালে কিংবদন্তন সচিন তেন্ডুলকর বিশ্বকাপের মাঝে তাঁর বাবার মৃত্যুসংবাদ পেয়ে দেশে ফিরে এসেছিলেন। বাবার শেষকৃত্যের পরেই তিনি ইংল্যান্ডে ফিরে গিয়ে পরের ম্যাচে কেনিয়ার বিপক্ষে খেলেছিলেন ১৪০ রানের এক অসাধারণ ইনিংস।

সম্প্রতি বাবাকে হারিয়েছেন সদ্য ভারতীয় টেস্ট দলে জায়গা করে নেওয়া মহম্মদ সিরাজ। অটো চালিয়ে দিন রাত খেটে তার বাবার লক্ষ্য ছিল ছেলেকে দেশের জার্সিতে দেখার। তাই করোনাভাইরাস কালে বাবার স্বপ্নপূরণ করতে অস্ট্রেলিয়াতেই থেকে যান সিরাজ। 

সিডনিতে 'আহত' হনুমা বিহারীর বুক চিতিয়ে লড়াই করে ভারতের হয়ে টেস্টে ম্যাচ বাঁচানোর দিনেই উঠে এল জীবনে তাঁর লড়াইয়ের গাঁথা। মাত্র ১২ বছরে পিতৃহারা হয়েছিলেন হনুমা বিহারী। বাবা মারা যাওয়ার পরে চাঁর-পাঁচ দিন তাঁর মা বিহারীকে খুঁজেই পাননি। পরে জানা যায়, স্কুলের হয়ে ক্রিকেট খেলায় ছোট্ট বিহারী এতটাই মগ্ন ছিলেন যে তিনি বাবার মৃত্যুকে সংবাদকে সম্পূর্ণ বিস্মৃত করে ফেলেন। স্কুলের হয়ে ওই ম্যাচে ৮২ রানের এক অনবদ্য ইনিংস খেলেছিলেন তিনি। সেইসময় তেই মা উপলব্ধি করেছিলেন যে ভারতের হয়ে খেলার খেলতে পারেন বিহারী। বাকিটা ইতিহাস।

বন্ধ করুন