বাংলা নিউজ > ময়দান > ঝুলনের সময় নো বল, অথচ অজিরা কোমরের উঁচুতে বল করতে মাফ! ক্ষিপ্ত ভারতীয় পেসার শিখা
ঝুলনের সময় নো বল, অথচ অজিরা কোমরের উঁচুতে বল করতে মাফ! ক্ষিপ্ত ভারতীয় পেসার শিখা (ছবি সৌজন্যে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া ভিডিয়ো এবং টুইটার)

ঝুলনের সময় নো বল, অথচ অজিরা কোমরের উঁচুতে বল করতে মাফ! ক্ষিপ্ত ভারতীয় পেসার শিখা

  • নেটিজেনদের একাংশ তো অস্ট্রেলিয়ার আম্পায়ারদের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন।

অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ড সিরিজে কোমরের উঁচুতে নো-বল বিতর্কে তোপ দাগলেন ভারতীয় তারকা শিখা পাণ্ডে। রীতিমতো ক্ষোভ উগড়ে দিলেন তিনি। নেটিজেনদের একাংশ তো অস্ট্রেলিয়ার আম্পায়ারদের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন।

বৃহ্স্পতিবার ক্যানবেরায় প্রথম একদিনের ম্যাচে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথমে ব্যাট করে ন'উইকেট ২০৫ রান তোলে মেগ ল্যানিংয়ের অস্ট্রেলিয়া। রান তাড়া করতে নেমে শুরুতেই উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় ইংল্যান্ড। ৩৯ রানে তিন উইকেট পড়ে যাওয়ার পর ইনিংসের হাল ধরেন অ্যামি জোনস এবং ন্যাট স্কিভার। ২০ তম ওভারে শেষ বলে একেবারে ফুলটস করেন তাহলিয়া ম্যাগগ্রাথ। ডিপ স্কোয়ারে ক্যাচ ধরেন এলিসা পেরি। কিন্তু বলটা কোমরের উপরে ছিল না, তা খতিয়ে দেখেন তৃতীয় আম্পায়ার। রীতিমতো কঠিন সিদ্ধান্ত ছিল। একদিক থেকে দেখলে মনে হচ্ছিল যে অ্যামি যখন শট মারেন, তখন বল কোমরের নীচে ছিল। বল নীচের দিকে নামছিল। উলটোদিক থেকে মনে হচ্ছিল যে কোমরের উঁচুতেই আছে বল। দীর্ঘক্ষণ দেখার পর তৃতীয় আম্পায়ার ব্রুস অক্সেনফোর্ড জানান, বল বৈধ। তাই আউট দেন অস্ট্রেলিয়ার আম্পায়ার।

যদিও সেই সিদ্ধান্ত নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়। অনেকই স্থানীয় আম্পায়ারদের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। কটাক্ষ করতে ছাড়েননি ভারতীয় তারকা শিখাও। টুইটারে কটাক্ষ করে বলেন, 'শুধুমাত্র কি ডেথ ওভারে কোমরের সমানে বলে নো বল দেওয়া হয়?' সঙ্গে বলেন, 'আমি দুঃখিত। কিন্তু কয়েকটি উত্তর হাস্যকর ছিল। আগের একাধিক ফর্ম্যাটের সিরিজে দুটি এরকম ঘটনা ঘটেছিল। যা ব্যাটিং দলের পক্ষে গিয়েছিল। দুটিই ডেথ ওভারে হয়েছিল।'

ঠিক কী হয়েছিল?

গত বছর সেপ্টেম্বরে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে এরকম বিতর্ক হয়েছিল। ২৭৫ রানের লক্ষ্যমাত্রা তাড়া করতে গিয়ে শেষ বলে তিন রান বাকি ছিল। ঝুলন গোস্বামী ফুলটস বলে আউট হয়ে গিয়েছিলেন নিকোলা কেরি। মিড-উইকেটে ধরা পড়েছিলেন। কিন্তু সেটা নো বল হিসেবে ঘোষণা করেছিলেন তৃতীয় আম্পায়ার ফিলিপ গিলেসপি। যিনিও অস্ট্রেলিয়ার লোক। সেই নো-বলের সৌজন্যে অস্ট্রেলিয়া জিতে গিয়েছিল। কিন্তু সেই সিদ্ধান্ত নিয়ে তুমুল বিতর্ক হয়েছিল। ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন ভারতীয়রা।

বন্ধ করুন