বাংলা নিউজ > ময়দান > Australia A vs India- ব্যাটে কামাল বুমরাহর, বোলিংয়ে অজি তরুণদের গুঁড়িয়ে দিল ভারত

যদি সিডনিতে অনুষ্ঠিত হওয়া গা ঘামানোর ম্যাচটি ট্রেলার হয়, তাহলে গোলাপি বলের টেস্টে ফলাফল হবে, তা কার্যত হলফ করেই বলা যায়। অস্ট্রেলিয়া এ বনাম ভারতীয়দের তিনদিনের ম্যাচের বৃষ্টি বিঘ্নিত প্রথম দিনে মুড়ি মুড়কির মতো উইকেট পড়ল। ভারতীয়রা আউট হন মাত্র ১৯৪ রানে, যার মধ্যে জসপ্রীত বুমরাহ করেন অপরাজিত ৫৫।কিন্তু অজি তরুণরা তার থেকেও খারাপ ব্যাটিং করলেন। খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে একশো পেরালো অস্ট্রেলিয়া এ। ১০৮ রানে তারা অল আউট হলেন। ফলে প্রথম দিনের শেষে ৮৬ রানের লিড পেল ভারত। বল হাতে শামি ও সাইনি তিনটি করে উইকেট নেন। ব্যাট হাতে নায়ক বুমরাহ পেয়েছেন দুটি উইকেট ও সিরাজ একটি। 

এদিন মাত্র ৩২.২ ওভারে অল আউট হয়ে গিয়েছে অস্ট্রেলিয়া এ। শূন্য রানে বার্নসকে ফেরান বুমরাহ। এরপর কিন্তু খেলাটা ধরেন মার্কাস হ্যারিস ও নিক ম্যাডিনসন। কিন্তু ভারতীয়রা হাল ছাড়েননি। ধারাবাহিক ভাবে গুড লেংথের ধারে কাছে বল ফেলছিলেন তারা। মার্কাস হ্যারিসকে ২৬ রানের মাথায় শামি ফেরানোর পরেই ধস নামে অজি ব্যাটিংয়ে। জলদি ফেরেন ম্যাকডারমট, ম্যাডিনসন ও অ্যাবট। এর মধ্যে দারুন গ্রাউন্ড ফিল্ডিংয়ে ক্যাচ নিয়ে সিরাজের বলে ম্যাডিনসনকে ফেরান ঋদ্ধিমান সাহা। অজিদের মধ্যে কিছুটা হলেও প্রতিরোধ গড়ে তোলেন অ্যালেক্স ক্যারি। ব্যাক্তিগত ৩২ রানের মাথায় পন্তকে ক্যাচ দিয়ে সাইনির বলে আউট হলেন তিনি। এদিন ভারতের হয়ে ১৯ রানে তিনটি উইকেট নিয়েছেন নভদীপ সাইনি। ২৯ রানে তিনটি উইকেট নেন শামি। আগের ম্যাচে ভালো বল করেছেন উমেশ। নিশ্চিত ভাবেই তাঁর ও সাইনির মধ্যে কড়া লড়াই হবে তৃতীয় পেসারের স্পটের জন্য। 

বল হাতে তাঁর থেকে সবসময় প্রত্যাশা থাকে ফ্যানদের। কিন্তু এবার ব্যাট হাতে চমকে দিলেন জসপ্রীত বুমরাহ। গোলাপি বলে অস্ট্রেলিয়া এ-র বিরুদ্ধে দশ নম্বরে ব্যাটিং করতে এসে করলেন অপরাজিত ৫৫। শেষ উইকেটে সিরাজের সঙ্গে ৭১ রানের পার্টনারশিপ করলেন বুমরাহ। ফলে কিছুটা সম্মানজনক ১৯৪ রানে শেষ হল ভারতের প্রথম ইনিংস। 

শুরুতে মনে হচ্ছিল যেন টি২০ খেলতে নেমেছে ভারতীয় দল। মারকুটে মনোভাব নিয়ে অজি বোলারদের বিরুদ্ধে শুরু করেন পৃথ্বি শ ও শুভমন গিল। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। বরং প্রস্তুতি ম্যাচে ফের মুখ থুবড়ে পড়ল ভারতীয় ব্যাটিং লাইন আপ। প্রথম সেশনের শেষে ভারত ৬ উইকেট হারিয়ে ১১১। 

তারপরেই দ্রুত আউট হন ঋদ্ধি শূন্য রাতে, সাইনি চার ও শামি শূন্য রাতে। ১২৩ রাতে নয় উইকেট পড়ে যায় ভারতের। সেখান থেকেই খেলা ধরেন বুমরাহ। স্লগ নয় বেশ কিছু কেতাবি শট খেলেন তিনি এদিন। ৫৭ বলে ৫৫ রান করেন তিনি ছয়টি চার ও দুটি ছয়ের সহযোগে। তাঁর শটে  নিজের বোলিংয়ে মাথায় লেগে আহত হয়ে সাজঘরে যান ক্যামেরন গ্রিন। অন্যদিকে সিরাজও বুমরাহকে দেখে উদ্বুদ্ধ হয়ে ৩৪ বলে ২২ রান করেন। সুইপসনের বলে হ্যারিসের হাতে তিনি আউট হওয়ার পর ভারতের প্রতিরোধ শেষ হয় ৪৮.৩ ওভারে। 

এদিন ভারতের ইনিংস তিন ভাগে বিভক্ত। শুরুতে ঝোড়ো ইনিংস, তারপর মিডল অর্ডারের ব্যর্থতা ও শেষে টেল এন্ডারদের প্রতিরোধ। প্রথমেই মায়াঙ্ক আগারওয়াল আউট হন দুই রানে। তারপরে পৃথ্বী শ ও শুভমন গিল খেলা ধরেন। দুজনের জুড়িতে ৩৯ বলে ওঠে ৬৩ রান। এরপর ৪০ রানের মাথায় বোল্ড আউট হন সাদারল্যান্ড। ২৯ বলে আটটি চার মারেন তিনি। তারপরেই খেলায় ফেরে অস্ট্রেলিয়া।

 ৫ রানের মাথায় হনুমা বিহারীকে বোল্ড আউট করেন উইল্ডারমুথ। তখন স্কোর ছিল ১০২-৩। গ্রিনের বলে ক্যারির হাতে ক্যাচ আউট হয়ে ৪৩ রান করে আউট হন শুভমন গিল। ৫৮ বলের ইনিংস সাজানো ছিল ছয়টি চার ও একটি ছয় দিয়ে। তারপরেই চা পানের বিরতির ঠিক আগে আউট হন অধিনায়ক রাহানে ও ঋষভ পন্ত। তাড়াহুড়ো করে ব্যাটিং করছিলেন রাহানে। ক্যারির হাতে চার রানে আউট হন তিনি, উইল্ডারমুথের বলে। পাঁচ রান করে এল বি হন ঋষভ। যদিও তাঁর আউট নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে ধারাভাষ্যকারদের মনে।

উইল্ডারমুথ মাত্র তেরো রান দিয়ে তিনটি উইকেট নিয়েছেন। শুরুতে ও শেষের দিকে উইকেট তোলেন অ্যাবট। ৪৬ রান দিয়ে তিন উইকেট নেন। একটি করে উইকেট নেন কনওয়ে, সাদারল্যান্ড, সুইপসন। চোট পাওয়ার আগে গ্রিন ফের সফল, শুভমনের গুরুত্বপূর্ণ উইকেট তুলে নিয়ে। সুইংকে মোকাবিলা করার জন্য আক্রমণাত্মক হওয়ার চেষ্টা করেছিল ভারতীয় দল। কিন্তু সেটি ব্যাকফায়ার করেছে বাজে ভাবে। তবে এদিনটি নিশ্চিত ভাবেই স্মরণীয় হয়ে থাকবে জসপ্রীত বুমরাথর জন্য। এর আগে প্রথম শ্রেণিতে তাঁর সর্বোচ্চ স্কোর ছিল ১৬। এদিন করলেন অপরাজিত ৫৫। 

 

বন্ধ করুন