বাংলা নিউজ > ময়দান > কেন মেন্টর ধোনি? স্টিভ ওয়ার উদাহরণ টেনে ব্যাখ্যা দিলেন BCCI প্রেসিডেন্ট সৌরভ
সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় এবং মহেন্দ্র সিং ধোনি।
সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় এবং মহেন্দ্র সিং ধোনি।

কেন মেন্টর ধোনি? স্টিভ ওয়ার উদাহরণ টেনে ব্যাখ্যা দিলেন BCCI প্রেসিডেন্ট সৌরভ

  • ২০১৯ সালে অ্যাসেজ সিরিজে প্রাক্তন অজি অধিনায়ক স্টিভ ওয়াকে মেন্টর হিসেবে নিযুক্ত করা হয়েছিল। ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত অ্যাসেজ সিরিজ সে বার ২-২ ড্র হয়েছিল।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য় মহেন্দ্র সিং ধোনিকে মেন্টর হিসেবে নিযুক্ত করেছে বিসিসিআই। বোর্ডের এই সিদ্ধান্তকে অনেকেই যেমন বাহবা জানিয়েছেন। অনেকেই এই সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশ্নও তুলেছেন। অজয় জাদেজাই যেমন ধোনিকে মেন্টর হিসেবে নিযুক্ত করা নিয়ে সরব হয়েছেন। সকলের সব প্রশ্নের উত্তর এবং এই সিদ্ধান্তের পিছনের কারণটি ব্যাখ্যা করতে গিয়ে গিয়ে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়, ২০১৯ সালে অ্যাসেজ সিরিজে প্রাক্তন অজি অধিনায়ক স্টিভ ওয়াকে মেন্টর হিসেবে নিযুক্ত করার উদাহরণ তুলে ধরেছেন। ২০১৯ সালে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত অ্যাসেজ সিরিজ ২-২ ড্র হয়েছিল। সেই সিরিজে অস্ট্রেলিয়ার মেন্টর ছিলেন কিংবদন্তি এই ক্রিকেটার।

একটি সংবাদমাধ্যমে বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় বলেছেন, ‘বিশ্বকাপে ভারতকে সাহায্য করার জন্যই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ওর (ধোনির) ভারতীয় দল এবং চেন্নাই সুপার কিংসের হয়ে টি-টোয়েন্টিতে ভাল রেকর্ড রয়েছে। এই সিদ্ধান্তের পিছনে অনেকগুলি ভাবনা কাজ করেছে। আমরা অনেক আলোচনার পরেই ওকে নিযুক্ত করেছি। ২০১৩ সাল থেকে আমরা কোনও আইসিসি-র ট্রফি জিতিনি। মনে করে দেখুন, শেষ বার ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত অ্যাসেজে ২-২ অস্ট্রেলিয়া ড্র করেছিল। সেই অ্যাসেজ সিরিজে অস্ট্রেলিয়ার মেন্টর হিসেবে ছিলেন স্টিভ ওয়া। এ রকম বড় মাপের কেউ টিমে উপস্থিত থাকলে, এতে দলের উপকারই হয়।’

এ দিকে বিরাট কোহলিদের হেড কোচ রবি শাস্ত্রীর বই প্রকাশ অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়া নিয়ে সৌরভকে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল। জানতে হয়েছিল, এর জন্য দলেরহেড কোচের কোনও শাস্তি হবে কিনা? এই বিষয়টি নিয়ে খুব বেশি গুরুত্বই দেননি সৌরভ। বরং তিনি রবি শাস্ত্রীকে সমর্থন করেই বলেছেন, ‘কোন শাস্তিই হবে না। আপনি কতক্ষণ আপনার হোটেলের রুমে বন্দি থাকতে পারেন? আপনি কি আপনার বাড়িতে দিনরাত বন্দি হয়ে থাকতে পারবেন? শুধুমাত্র হোটেল থেকে মাঠ, আবার মাঠ থেকে হোটেলে ফিরে যাওয়া, এই সীমাবদ্ধতা নিয়ে থাকা যায় না। এটা কোনও মানুষের পক্ষেই সম্ভব নয়।’

এর সঙ্গেই তিনি যোগ করেছেন, ‘আমি যখন দাদাগিরির শুটিং-এ যাই, তখন সেখানে ১০০ জন মতো লোক থাকে। প্রত্যেকেই দু'টো ভ্যাকসিন নিয়ে ফেলেছে। তার পরেও আমরা জানি না, কী হতে পারে! ভ্যাকসিনের দু'টো ডোজ নেওয়ার পরেও করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন অনেকেই। এটাই এখন জীবনের সত্যি হয়ে গিয়েছে।’

বন্ধ করুন