বাংলা নিউজ > ময়দান > পাকিস্তান অধ্যুষিত কাশ্মীর লিগে থাকলে ভারতে খেলা বা কাজে অনুমতি নয়, কড়া BCCI
২০০০ সালের ম্যাচ ফিক্সিং কাণ্ডে নাম জড়ানো হার্শেল গিবসের টুইটের পর শনিবার থেকে নতুন করে বিতর্ক শুরু হয়। (ফাইল ছবি, সৌজন্য রয়টার্স)
২০০০ সালের ম্যাচ ফিক্সিং কাণ্ডে নাম জড়ানো হার্শেল গিবসের টুইটের পর শনিবার থেকে নতুন করে বিতর্ক শুরু হয়। (ফাইল ছবি, সৌজন্য রয়টার্স)

পাকিস্তান অধ্যুষিত কাশ্মীর লিগে থাকলে ভারতে খেলা বা কাজে অনুমতি নয়, কড়া BCCI

  • ২০০০ সালের ম্যাচ ফিক্সিং কাণ্ডে নাম জড়ানো হার্শেল গিবসের টুইটের পর শনিবার থেকে নতুন করে বিতর্ক শুরু হয়।

পাকিস্তান অধ্যুষিত কাশ্মীর প্রিমিয়ার লিগ নিয়ে কড়া অবস্থান নিল ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)। ঘরোয়াভাবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ক্রিকেট বোর্ডকে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হল, যাঁরা পাকিস্তান অধ্যুষিত কাশ্মীর প্রিমিয়ার লিগে অংশগ্রহণ করবেন, তাঁদের ভারতে খেলতে দেওয়া হবে না। বিসিসিআইয়ের সঙ্গে রাখতে দেওয়া হবে না কোনও বাণিজ্যিক যোগ। ভারতে কোনও ক্রিকেটীয় কাজকর্মের সঙ্গে যুক্ত থাকতে পারবেন না তাঁরা।

সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে ভারতীয় বোর্ডের এক শীর্ষ কর্তা জানিয়েছেন, পাকিস্তান অধ্যুষিত কাশ্মীর প্রিমিয়ার লিগে যাতে খেলোয়াড়দের ছাড়া না হয়, সেজন্য বিভিন্ন বোর্ডকে বলা হয়েছে। যদি তারা সেই কাজ করে থাকে, তাহলে তারা ভারতের কোনও ক্রিকেটীয় কাজকর্মে অংশগ্রহণ করতে পারবে না। ‘জাতীয় স্বার্থ মাথায় রেখে আমরা এই কাজ করেছি।’ সঙ্গে তিনি স্পষ্ট করে দিয়েছেন, যাঁরা পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) খেলছেন, তাঁদের নিয়ে ভারতীয় বোর্ডের কোনও সমস্যা নেই। কিন্তু সেই লিগ পাকিস্তান অধ্যুষিত কাশ্মীরে হচ্ছে। যে লিগ আগামী ৬ অগস্ট থেকে শুরু হবে। তাতে যুক্ত আছেন ওয়াসিম আক্রম, শাহিদ আফ্রিদির মতো পাকিস্তানের একঝাঁক প্রাক্তন ক্রিকেটার।

পাকিস্তান অধ্যুষিত কাশ্মীর প্রিমিয়ার লিগ নিয়ে শনিবার থেকে নতুন করে বিতর্ক শুরু হয়। দক্ষিণ আফ্রিকার প্রাক্তন খেলোয়াড় হার্শেল গিবস বলেন, 'এটা একেবারেই অপ্রয়োজনীয় যে পাকিস্তানের সঙ্গে নিজেদের রাজনৈতিক দিক টেনে আনছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড এবং আমায় (পাকিস্তান অধ্যুষিত) কাশ্মীর প্রিমিয়ার লিগে খেলা থেকে বিরত করতে চাইছে। সেইসঙ্গে আমায় হুমকি দিচ্ছে যে কোনও ক্রিকেটীয় কাজকর্মের জন্য ভারতে ঢুকতে দেবে না। হাস্যকর।'

২০০০ সালের ম্যাচ ফিক্সিং কাণ্ডে নাম জড়ানো গিবসের সেই মন্তব্যের পরই পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের তরফে বিবৃতি জারি করে দাবি করা হয়, ‘বিসিসিআইয়ের এই ধরনের আচরণ একেবারে অগ্রহণযোগ্য, যা ক্রিকেটের মূল প্রস্তাবনার বিরোধী এবং বিপজ্জনক উদাহরণ তৈরি করে। যা বরদাস্তও করা যাবে না, এড়ানোও যাবে না।’ বিষয়টি নিয়ে বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসির কাছে যাওয়া হবে বলে জানিয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড। তারইমধ্যে আসরে নামেন পাকিস্তানের রাজনীতিবিদরা।

তবে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড বা পাকিস্তানের রাজনীতিবিদদের পাত্তা দিতে নারাজ বিসিসিআই। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে ভারতীয় বোর্ডের ওই শীর্ষ কর্তা জানিয়েছেন, পাকিস্তান বোর্ড কী বলল, তা নিয়ে মোটেও চিন্তিত নয় বিসিসিআই। ‘আমরা ভারতীয় ক্রিকেট এবং ভারতকে নিয়ে ভাবছি।’

বন্ধ করুন