বাংলা নিউজ > ময়দান > মেলেনি ব্রেকফাস্ট, বিশ্বকাপ সেমিতে বাধ্য হয়ে সিঙ্গারা খেয়ে মাঠে নেমেছিলেন হরমনরা!

মেলেনি ব্রেকফাস্ট, বিশ্বকাপ সেমিতে বাধ্য হয়ে সিঙ্গারা খেয়ে মাঠে নেমেছিলেন হরমনরা!

২০১৭ সালে বিশ্বকাপ সেমিতে ব্যাটিংরত হরমনপ্রীত কউর। ছবি- গেটি ইমেজেস।

২০১৭ সালের বিশ্বকাপ সেমিতে হরমনপ্রীত অজিদের বিপক্ষে অপরাজিত ১৭১ রানের একটি ইনিংস খেলেছিলেন। 

এই বছরের ৫০ ওভারের বিশ্বকাপে ভারতীয় মহিলা দল চূড়ান্ত ব্যর্থ হয়েছে। তবে সাম্প্রতিক সময়ে হরমনপ্রীত কউর, স্মৃতি মন্ধনারা বেশ ভালই পারফর্ম করেছেন। গত বারের বিশ্বকাপের ফাইনালে পৌঁছনোর পাশাপাশি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেরও ফাইনালে উঠেছিল ভারত। কিন্তু ভারতীয় মহিলা ক্রিকেটারদের পরিস্থিতি জানলে বিস্মিত হতে হয়।

বিশ্বের সবচেয়ে ধনী বোর্ড বিসিসিআইয়ের উপর মহিলাদের ক্রিকেটকে অবেহলা করার অপবাদ বহুদিনের। সেই অপবাদ যে একেবারেই অযৌক্তিক নয়, তা বিসিসিআইয়ের প্রাক্তন ক্রীড়া প্রশাসকের কথাতেই স্পষ্ট।২০১৭ সালে সুপ্রিম কোর্ট রাইকে কমিটি অফ অ্যাডমিনিস্ট্রেটরদের (সিওএ) প্রধান করে।  তিনি প্রায় তিন বছর ধরে ভারতীয় ক্রিকেট চালান। সম্প্রতি নিজের প্রকাশিত বইয়ে তিনি সেই সময়ের নানা কথাও তুলে ধরেছেন। তিনিই এক সাক্ষাৎকারে বোর্ডের মহিলা ক্রিকেটকে অবহেলা করার বিষয়টি জানিয়েছেন।

The Week-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, ‘আমার মনে হয় মহিলা ক্রিকেটকে যথেষ্ট গুরুত্ব দেওয়া হয়নি। ২০০৬ সালে শরদ পাওয়ার মহিলা ও পুরুষ ক্রিকেটের কমিটিকে একত্রিত করার আগে তো মহিলাদের ক্রিকেটকে কেউ ধর্তব্যের মধ্যেই ধরত না। আমি তো এটা শুনে অবাক হয়ে যাই যে পুরুষ ক্রিকেটারদের জার্সি কেটে আবার সেলাই করে মহিলাদের জার্সি বানানো হত। আমি স্পষ্টভাবে নাইকেকে বলি এমনটা একেবারেই চলতে পারে না। বেতন থেকে শুরু ক্রিকেটের নানা জিনিসপত্র, সব কিছুর ক্ষেত্রেইআমি মনে করি মহিলা ক্রিকেটারদের আরও বেশি প্রাপ্য ছিল। আমরা সেই প্রাপ্যটাই দেওয়ার চেষ্টা করি।’

বিসিসিআইয়ের অবহেলার আরেক ছবি তুলে ধরতে ২০১৭ সালের বিশ্বকাপ সেমিফাইনালের উদাহরণ দেন বিনোদ রাই। সেই ম্যাচে হরমনপ্রীতের ঐতিহাসিক ১৭১ এখনও সবার মনে তাজা। তবে জানেন কি, ম্যাচের আগে সঠিক ব্রেকফাস্টটাই পাননি হরমনপ্রীতরা। ‘আমি হতাশ এই কারণেই যে হরমনপ্রীতের ওই ১৭১ রানের ইনিংসের আগে আমি নিজেও মহিলা ক্রিকেটকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিইনি। ম্যাচের পর হরমন আমায় বলেন যে, স্যর আমার পায়ে টান ধরছিল। তাই দৌড়তে পারছিলাম না বলেই ছক্কা মারতে হচ্ছিল বেশি করে। ওদের হোটেলে বলা হয় যে ওরা যে খাবার চেয়েছিল, তা ওদের দেওয়া সম্ভব নয়। সেই কারণেই ওইদিন সকালে ওরা সিঙ্গারা খেয়ে মাঠে নেমেছিল।’ জানান রাই।

বন্ধ করুন