বাংলা নিউজ > ময়দান > শেষ ওভারে পরপর দুই ছক্কা, খুলনার বিরুদ্ধে শুভাগতর ব্যাটে ভর করে নাটকীয় জয় ঢাকার
শেষ ওভারে জয় ঢাকার। ছবি- টুইটার।

শেষ ওভারে পরপর দুই ছক্কা, খুলনার বিরুদ্ধে শুভাগতর ব্যাটে ভর করে নাটকীয় জয় ঢাকার

  • শেষ ওভারের প্রথম দুই বলে অসাধারণ দুটি ছক্কায় খেলার ভাগ্য নির্ধারণ করে দেন শুভাগত।

শুভব্রত মুখার্জি

আপাত দৃষ্টিতে টার্গেট দেখে মনে হয়েছিল ম্যাচ সহজ হতে চলেছে ঢাকার জন্য। তবে সেই ম্যাচ কার্যত কঠিন করে জিতল ঢাকা মিনিস্টার। খাদের কিনারা থেকে কার্যত ঢাকা দলকে উদ্ধার করলেন শুভাগত হোম চৌধুরি। ম্যাচের শেষ ওভারে থিসারা পেরেরার দুটি স্লোয়ারে দুরন্ত দুটি ছক্কা হাঁকিয়ে খুলনার বিরুদ্ধে ঢাকার জয় নিশ্চিত করলেন তিনি। প্রিমিয়র ব্যাঙ্ক খুলনা টাইগার্সের বিপক্ষে মিনিস্টার ঢাকা জিতল ৫ উইকেটে।

বুধবার রাতের এই ম্যাচ হেরে গেলে ঢাকার প্লে-অফ সম্ভাবনা ক্ষতিগ্রস্ত হত। আপাতত কিছুটা স্বস্তিতে তারা। খুলনাও অবশ্য টিকে রয়েছে শীর্ষ চারে থাকার লড়াইয়ে। মন্থর ও লো-বাউন্সের উইকেটে ১২৯ রানের পুঁজি নিয়ে দারুণ লড়াই করল খুলনা। আগের দিন চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের বিপক্ষে ঢাকার ব্যাটিং খেই হারিয়ে শেষে ম্যাচে হারের সম্মুখীন হতে হয়েছিল। আগের দিনের ম্যাচে ঢাকার 'খলনায়ক' শুভাগত আজ নায়ক হয়ে গেলেন। শেষ ওভারের প্রথম দুই বলেই অসাধারণ দুটি ছক্কায় খেলার ভাগ্য নির্ধারণ করে দেন তিনি ।

ঢাকার হয়ে জহুরুল ইসলাম গুরুত্বপূর্ণ জুটি গড়েন অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহর সঙ্গে। শুভাগতর ৯ বলে ১৮ রানের ইনিংস ঢাকার জয় সুনিশ্চিত করে। এখনও পর্যন্ত টুর্নামেন্টের সফলতম ব্যাটার তামিম করেন মাত্র ৬ রান। অপর ওপেনার ইমরান উজজামান করেন মাত্র ৬ রান। ১৩০ রানের জয়ের লক্ষ্যে দ্বিতীয় উইকেটে ৫৭ রানের জুটি গড়েন মাহমুদুল্লাহ ও জহুরুল।

বিপিএল অভিষিক্ত বাঁহাতি পেসার রুয়েল মিয়ার স্লোয়ারে ক্রস ব্যাটে খেলতে গিয়ে বোল্ড হন জহুরুল (৩৫ বলে ৩০)। অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ (৩৬ বলে ৩৪) আউট হন ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে। এরপর ম্যাচ জয়ের যেন গন্ধ পাচ্ছিল খুলনা। সেই ম্যাচ জেতার আশা শেষ ওভারে শেষ করে দেন শুভাগত। ঢাকা এদিন প্রথম একাদশে চারটি পরিবর্তন করে। মহম্মদ শেহজাদ, মহম্মদ নঈম শেখ ও ইবাদত হোসেনকে বসানো হয়। পিঠের ব্যথায় খেলতে পারেননি মাশরাফি বিন মোর্তজা। একাদশে ফেরেন রুবেল হোসেন।

ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে একটা সময় আন্দ্রে ফ্লেচার ও ইয়াসির আলি চৌধুরিকে পরপর হারিয়ে ১২ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে ধুঁকছিল খুলনা। খুলনার ত্রাতা হন সিকন্দর রাজা। থিসারা সঙ্গ দেন রাজাকে। ২৭ বলে ৩৯ রানের জুটি গড়েন দুজন। থিসারা ১২ রানে আউট হন। রাজা ৫০ বলে ৬৪ করেন। ফলে নির্ধারিত ২০ ওভারে ১২৯ রান তুলতে সমর্থ হয় খুলনা। যদিও শুভাগতর শেষ ওভারের নাটকীয় ব্যাটিং তাদের মুখ থেকে যেন জয়কে কেড়ে নিল।

বন্ধ করুন