বাংলা নিউজ > ময়দান > 'নিজেকে খুন করতে ইচ্ছা করছিল, কিন্তু.', চেস অলিম্পিয়াডে সোনা জয় ১৬ বছরের গুকেশের

'নিজেকে খুন করতে ইচ্ছা করছিল, কিন্তু.', চেস অলিম্পিয়াডে সোনা জয় ১৬ বছরের গুকেশের

Indian Chess player Gukesh D ( Anantha Krishnan)

দাবা অলিম্পিয়াড শেষ হওয়ার সাথে সাথে স্বর্ণপদকের প্রতিযোগীদের থেকে ব্রোঞ্জ জিতে শেষ করতে ভারতের মহিলারা শেষ দিনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কাছে হেরেছে

MAHABALIPURAM : ‘উন্মাদনার একটি মুহূর্ত।;’

মঙ্গলবার ৪৪ তম দাবা অলিম্পিয়াডের ওপেন বিভাগে সোনা বা রুপোর পরিবর্তে ব্রোঞ্জ পদক নিয়ে শেষপর্যন্ত ভারত 'বি'-তে অবদান রেখেছে বলে মনে করেন ডি গুকেশ। উজবেকিস্তান সোনা এবং আর্মেনিয়া রুপো জিতেছে। 

১১ তম এবং চূড়ান্ত রাউন্ডে জার্মানির বিরুদ্ধে ৩-১ ব্যবধানে জয়ে দুর্দান্ত প্রতিভা তুলে ধরেন চেন্নাইয়ের ১৬ বছরের গুকেশ। তবে সোমবার উজবেকিস্তানের বিরুদ্ধে ২-২ ড্র হয়। নোদিরবেক আবদুসাত্তোরোভের কাছে হেরে যান। ভারত বি এগিয়ে থাকার সুযোগ হাতছাড়া করে।

এগিয়ে থেকেও হেরে যাওয়ায় হতাশ হয়ে পড়েন গুকেশ। তিনি বলেন, ‘খেলার পরই আমি পুরোপুরি বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছিলাম। আমি আমার প্রতিপক্ষকে পরাজিত করেছিলাম এবং তারপরে আমি খেলাটি হেরেছিলাম। আমি দ্রুত বুঝতে পারলাম যে ফাইনালের দিন সকালে আমার একটি খেলা আছে। আমি যদি নিজেকে শেষ করতে চাই, তাহলে শেষ রাউন্ডের পরে করব। আমি যদি গতকালের খেলা জিততাম বা ড্র করতাম তাহলে আমাদের সোনার পদক পাওয়ার বড় সুযোগ থাকত।’

তবে ভারত-বি দলের কৃতিত্বও কম নয়। নবীন প্রতিভাদের নিয়ে তৈরি এই দলের ব্রোঞ্জ জয়ও কম কৃতিত্বের নয়। শক্তিশালী জার্মান দলকে হারিয়ে এই ব্রোঞ্জ জিতেছে ভারতীয় দল। জার্মান দলের বিরুদ্ধে ভারতীয় দল জয়লাভ করেছে ৩-১ ফলে। বলা বাহুল্য মহিলা বিভাগের ওপেন বিভাগেও ভারতীয়-এ দল ব্রোঞ্জ জিতেছে। ভারতীয় -বি দলের সদস্য ছিলেন ১৬ বছর বয়সি ডি গুকেশ, আর প্রজ্ঞানন্দা, রৌনক সাধওয়ানি এবং ১৮ বছর বয়সি নিহাল সারিন। অন্যদিকে মহিলা দলের সদস্যা ছিলেন বৈশালি, কোনেরু হাম্পি, তানিয়া সচদেব এবং ভক্তি কুলকারি। তাঁরা শেষদিনে আমেরিকার কাছে হেরে ব্রোঞ্জ নিয়েই সন্তুষ্ট থাকেন।

অন্যদিকে চেস অলিম্পিয়াডের মহিলা বিভাগে সোনা জিতেছে ইউক্রেন। স্বাভাবিকভাবেই বর্তমান পরিস্থিতিতে ইউক্রেনের এই সোনা জয় নিশ্চিতভাবেই তাৎপর্যপূর্ণ। গত ফেব্রুয়ারি মাস থেকেই শুরু হয়েছে ইউক্রেনের উপর রাশিয়ার আগ্রাসন। সেই আগ্রাসন আজ ৭ মাস পেরিয়েও থামার কোন লক্ষ্মণ নেই। সেই জায়গা থেকে দাঁড়িয়ে ইউক্রেনের মহিলা দাবাড়ুদের এই কৃতিত্ব নিঃসন্দেহে গুরুত্বপূর্ণ।

বন্ধ করুন