বাংলা নিউজ > ময়দান > বদলাচ্ছে BCCI-এর নির্বাচক কমিটিও, মেয়াদ শেষ মোহান্তির, ভাগ্য ঝুলে চেতন শর্মার

বদলাচ্ছে BCCI-এর নির্বাচক কমিটিও, মেয়াদ শেষ মোহান্তির, ভাগ্য ঝুলে চেতন শর্মার

বদলাচ্ছে বিসিসিআই-এর নির্বাচক কমিটি।

চেতন শর্মা এবং তাঁর প্যানেলের পারফরম্যান্স তেমন কিছু আহামরি নয়। ফলে অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপে ভারত ভালো ফল না করলেই চেতন শর্মার সরে যাওয়া প্রায় নিশ্চিত, এমনটাই জানাচ্ছে বিসিসিআইয়ের সূত্র।

শুভব্রত মুখার্জি

মঙ্গলবারেই মুম্বইয়ে অনুষ্ঠিত হয়ে গিয়েছে বিসিসিআইয়ের ১৮তম বার্ষিক সাধারণ সভা। নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের জায়গায় দায়িত্ব পেয়েছেন ১৯৮৩ সালে বিশ্বকাপজয়ী রজার বিনি। আবার অন্য দিকে অস্ট্রেলিয়াতে চলছে টি-২০ বিশ্বকাপ। এমন আবহেই ভারতীয় সিনিয়র দলের নির্বাচক কমিটিতে রদবদলের একটা সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। মেয়াদ শেষ হতে চলার কারণে সময়েই সরতে হবে পূর্বাঞ্চলের প্রতিনিধি দেবাশিস মোহান্তিকে। আর বোর্ড সূত্রে খবর, ভারত চলতি বিশ্বকাপে ভালো ফল না করলে নির্বাচক প্রধান চেতন শর্মাকেও সরিয়ে দেওয়া হতে পারে। অর্থাৎ তাঁর ভাগ্যও ঝুলে রয়েছে।

আরও পড়ুন: পদ গেলেও অক্ষুণ্ণ গরিমা, রজার বিনির প্রতি শুভেচ্ছাবার্তায় মন জয় সৌরভের

ভারতের প্রথম হ্যাটট্রিক হিরো চেতন শর্মা এবং তাঁর প্যানেলের পারফরম্যান্স তেমন কিছু আহামরি নয়। ফলে অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপে ভারত ভালো ফল না করলেই চেতন শর্মার সরে যাওয়া প্রায় নিশ্চিত, এমনটাই জানাচ্ছে বিসিসিআইয়ের সূত্র। একজন সিনিয়র বিসিসিআই কর্তা টাইমস অফ ইন্ডিয়াকে বলেছেন, ‘চেতন এবং তাঁর প্যানেলের পারফরম্যান্সে বোর্ডের অন্দরে খুব বেশি লোক খুশি নয়। তবে বিসিসিআই নতুন ক্রিকেট উপদেষ্টা কমিটি গঠন না করা পর্যন্ত চেতন শর্মা কাজ চালিয়ে যাবেন।’

মোহান্তি সম্বন্ধে বলতে গিয়ে সেই কর্তা বলেন, ‘যে নিয়ম আবে কুরুভিল্লার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হয়েছিল, সেটা এই ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। জুনিয়র এবং সিনিয়র পর্যায় মিলিয়ে মোট চার বছর নির্বাচক হিসেবে কাটানো হলেই এক জনকে সরে যেতে হয়। দেবু মোহান্তি ২০১৯ থেকে জুনিয়র পর্যায়ে নির্বাচক ছিলেন। ২০২১ সালে তাঁর পদোন্নতি হয়। সিনিয়র প্যানেলে দেবাং গান্ধীর সময় সীমা শেষ হওয়ার পরেই, ওকে সিনিয়র নির্বাচক কমিটিতে আনা হয়।’ তবে চার বছর হওয়ার আগেই মোহান্তিকে তাঁর পদ থেকে সরানো হবে কিনা, সেই বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি।

আরও পড়ুন: বুমরাহর চোট থেকে পিচের হাল, দায়িত্ব নিয়েই কড়া কথা বললেন BCCI সভাপতি রজার বিনি

পূর্বাঞ্চল থেকে যোগ্য টেস্ট ক্রিকেটার হিসেবে নির্বাচক কমিটিতে জায়গা পাওয়ার দৌড়ে রয়েছেন বাংলার দীপ দাশগুপ্ত এবং ওড়িশার শিবসুন্দর দাস। অনেকের মতে, জুনিয়র পর্যায়ের নির্বাচক রণদেব বসুকেও সুযোগ দেওয়া হতে পারে। তবে তিনি ভারতের হয়ে কোনও আন্তর্জাতিক ম্যাচে খেলেননি। যা তাঁর বিপক্ষে যেতে পারে।

এ ছাড়াও দৌড়ে রয়েছেন বাংলার লক্ষ্মীরতন শুক্লা, ওড়িশার সঞ্জয় রাউল এবং বর্তমান ভারতীয় পেসার উমেশ যাদবের কোচ সুব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রসঙ্গত আবে কুরুভিল্লার সময়সীমা শেষ হওয়ার পরে তিনি সরে যাওয়ায় পশ্চিমাঞ্চলের প্রতিনিধির জায়গাটিও ফাঁকা রয়েছে। যা এ বার পূরণ করা হবে। শেষ বার অজিত আগরকর দৌড়ে এগিয়ে থাকলেও, মুম্বই ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের বিরোধিতার কারণে তিনি যোগ দিতে পারেননি। গত নির্বাচক কমিটি থেকে এক মাত্র দক্ষিণাঞ্চলের নির্বাচক কর্ণাটকের সুনীল জোশিকে রেখে দেওয়া হতে পারে।

বন্ধ করুন