বাংলা নিউজ > ময়দান > চাকরির জন্য প্রতারণা, ছত্তিশগড় ক্রিকেট অধিনায়কের বিরুদ্ধে মামলা, চলছে তদন্ত

চাকরির জন্য প্রতারণা, ছত্তিশগড় ক্রিকেট অধিনায়কের বিরুদ্ধে মামলা, চলছে তদন্ত

ছত্তিশগড়ের রঞ্জি দলের অধিনায়ক হরপ্রীত সিং ভাটিয়া।

ছত্তিশগড় অধিনায়ক ঝাঁসির বুন্দেলখন্ড ইউনিভার্সিটি থেকে বি.কম ডিগ্রির সার্টিফিকেট জমা দিয়েছিলেন। ডিগ্রিটির সত্যতা যাচাই করে দেখা যায় যে, এমন কোনও নথিই ওই ক্রিকেটারের নামে জারি করা হয়নি। এর পরেই ঝাড়খণ্ড অধিনায়কের বিরুদ্ধে বিধানসভা থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়।

ছত্তিশগড়ের রঞ্জি দলের অধিনায়কের বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা দায়ের করা হয়েছে। প্রিন্সিপাল অডিটর জেনারেলের কার্যালয়ে জাল কাগজপত্র দাখিল করে চাকরি পাওয়ার অভিযোগে ক্যাপ্টেনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার পুলিশ বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

প্রিন্সিপাল অ্যাকাউন্ট্যান্ট জেনারেল অফিস রায়পুর থানায় একটি অভিযোগ করেছে। যার ভিত্তিতে পুলিশ বালোদ জেলার বাসিন্দা হরপ্রীত সিং ভাটিয়ার (৩১) বিরুদ্ধে বিধানসভা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে। একজন আধিকারিক জানিয়েছেন, চাকরি পাওয়ার জন্য জাল মার্কশিট দিয়েছেন ছত্তিশগড়ের রঞ্জি দলের অধিনায়ক।

রায়পুরের পুলিশ সুপার প্রশান্ত আগরওয়াল বলেছেন, ‘একটি জাল মার্কশিটের সাহায্যে প্রিন্সিপাল অ্যাকাউন্ট্যান্ট জেনারেল অডিটের ভারতীয় অডিট অ্যাকাউন্টস বিভাগের অফিসে অডিটরের চাকরি পাওয়ার অভিযোগ উঠেছে বালোদ জেলার বাসিন্দা হারপ্রীত সিং ভাটিয়ার বিরুদ্ধে। স্বভাবতই অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্তাধীন রয়েছে।’

এফআইআর অনুসারে, ২০১৪ সালে ভারতীয় অডিট অ্যাকাউন্টস ডিপার্টমেন্ট অফিস অডিটর পদে নিয়োগের জন্য ক্রিকেট ক্যাডার থেকে আবেদন করার জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছিল। সেই অনুযায়ী বেশ কিছু ক্রিকেটার চাকরির জন্য আবেদন জানান।

আরও পড়ুন: কিডনি কাজ করছে না, হৃদরোগে আক্রান্ত, ভারতের প্রাক্তনীর চিকিৎসার জন্য টাকার দরকার

আরও পড়ুন: ক্রিকেট থেকে এখনই অবসর নেবেন না রাজ্যের মন্ত্রী মনোজ তিওয়ারি

ছত্তিশগড়ের অধিনায়ক ঝাঁসির বুন্দেলখন্ড ইউনিভার্সিটি থেকে বি.কম ডিগ্রির সার্টিফিকেট জমা দিয়েছিলেন। ডিগ্রিটির সত্যতা যাচাই করার জন্য বিভাগটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করলে দেখা যায় যে, এমন কোনও নথিই ওই ক্রিকেটারের নামে জারি করা হয়নি। এমন কোনও ডিগ্রিই নেই হরপ্রীত সিং ভাটিয়ার নামে। এর পরেই ঝাড়খণ্ড অধিনায়কের বিরুদ্ধে বিধানসভা থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়।

আইপিসি-র ধারা ৪২০ (প্রতারণা), ৪৬৭ (জালিয়াতি) এবং অন্যান্য প্রাসঙ্গিক বিধানের অধীনে একটি মামলা নথিভুক্ত করা হয়েছে এবং বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে।

বন্ধ করুন