বাড়ি > ময়দান > ওদের কেন টাকা দেব? টেনিসের বিগ-থ্রি'র উদ্যোগ নিয়ে প্রশ্ন থিয়েমের
নোভাক জকোভিচ ও ডমিনিক থিয়েম। ছবি- টুইটার।
নোভাক জকোভিচ ও ডমিনিক থিয়েম। ছবি- টুইটার।

ওদের কেন টাকা দেব? টেনিসের বিগ-থ্রি'র উদ্যোগ নিয়ে প্রশ্ন থিয়েমের

করোনার জেরে পিছনের সারির টেনিস খেলোয়াড়দের কেউই সমস্যায় নেই, দাবি অস্ট্রিয়ান তারকার।

ব়্যাঙ্কিংয়ের পিছনের দিকে থাকা খেলোয়াড়দের আর্থিকভাবে সাহায্য করার উদ্যোগ নিয়েছিলেন টেনিসের বিগ-থ্রি রজার ফেডেরার, রাফায়েল নাদাল ও নোভাক জকোভিচ। তবে এমন পরিকল্পনাকে মোটেও সমর্থন করছেন না ডমিনিক থিয়েম।

অস্ট্রিয়ান তারকা এই মুহূর্তে বিশ্বব়্যাঙ্কিংয়ের তিন নম্বরে রয়েছেন। বেশ কিছুদিন ধরেই তিনি নিজের ব়্যাঙ্কিং ধরে রেখেছেন বিগ-থ্রি'র আশেপাশে। এহেন থিয়েমের স্পষ্ট মত, টাকা যদি দিতেই হয়, তবে সাধারণ মানুষ বা কোনও সংস্থাকে দেব, যাঁদের সত্যিই প্রয়োজন রয়েছে অর্থের। করোনা মহামারির জন্য পিছনের সারির টেনিস তারকাদের কারও ব্যক্তিগত জীবন সমস্যায় নেই।

পরিকল্পনাটা জকোভিচের মস্তিষ্কপ্রসূত। নাদাল ও ফেডেরারে সঙ্গে আলোচনা করে নোভাক ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ২৩ থেকে ৩৫ কোটি টাকার একটা তহবিল গঠনের পরিকল্পনা করেন। এই অর্থ এটিপি ও ডব্লুটিএ ব়্যাঙ্কিংয়ের ২০০ থেকে ৭০০ নম্বরে থাকা খেলোয়াড়দের মধ্যে বণ্টন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এমন পরিকল্পনার কারণটাও বাস্তবসম্মত। আগামী ৭ জুন পর্যন্ত পেশাদার টেনিসের সমস্ত টুর্নামেন্ট স্থগিত হয়ে গিয়েছে। এটিপি চ্যালেঞ্জার ট্যুর ও আইটিএফ ওয়ার্ল্ড টেনিস ট্যুরও বন্ধ। উইম্বলডন, অলিম্পিকের মতো ইভেন্টগুলিও বাতিল হয়েছে এবছরের মতো। স্বাভাবিকভাবেই ব়্যাঙ্কিয়ের পিছনের দিকে থাকা খেলোয়াড়দের টেনিস খেলে আয় করার রাস্তা বন্ধ। সমস্যাটা তাই তাদের সামনেই বড় হয়ে দেখা দিয়েছে।

সেই মতো এটিপি, ডব্লুটিএ ও আইটিএফ চারটি গ্র্যান্ড স্ল্যাম টুর্নামেন্টের আয়োজকদের সঙ্গে নিয়ে একটি তহবিল গড়ে। থিয়েম এই তহবিলে অর্থ দিতে কার্যত অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, 'ব়্যাঙ্কিংয়ের পিছনের দিকে থাকা তারকাদের কারও জীবনেই কোনও সমস্যা নেই। তাছাড়া আইটিএফ ট্যুরে দেখেছি, পিছনের দিকের খেলোয়াড়দের টেনিসের প্রতি দায়বদ্ধতার অভাব রয়েছে। ওদের অনেকেই নিতান্ত অপেশাদার। আমি বুঝতে পারছি না, ওদেরকে কেন টাকা দিতে যাব।'

থিয়েম আরও বলেন, 'তার থেকে আমি সাধারণ মানুষ বা কোনও সংস্থাকে দান করব, এই অবস্থায় যাঁদের টাকার সত্যিই প্রয়োজন রয়েছে। কোনও পেশাতেই সফল হওয়া ও পর্যাপ্ত অর্থ উপার্জনের নিশ্চয়তা নেই। যারা আজ প্রথম সারিতে রয়েছে, তারাও সাফল্যের বিষয়ে নিশ্চিত ছিল না। আমাদের ব়্যাঙ্কিং ধরে রাখার জন্য লড়াই করতে হয়।'

বন্ধ করুন