পুলিশকর্মীদের হাতে তুলে দেওয়া হয় হোমিওপ্যাথি ওষুধ। প্রতীকী ছবি।
পুলিশকর্মীদের হাতে তুলে দেওয়া হয় হোমিওপ্যাথি ওষুধ। প্রতীকী ছবি।

করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পুলিশকর্মীদের হাতে ওষুধ তুলে দিলেন তারকা ফুটবলাররা

  • কলকাতা, বিধাননগর ও হাওড়া পুলিশ কমিশনারেটেও এই ওষুধ বিতরণের পরিকল্পনা রয়েছে ফুটবলারদের।

স্বাস্থ্যকর্মীদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে করোনা মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন পুলিশকর্মীরা। তাই কঠিন সময়ে তাঁদের পাশে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিল প্রাক্তন ও বর্তমান জাতীয় ফুটবলারদের নিয়ে গঠিত ফুটবলার্স ফোরাম। বারাকপুর কমিশনারেটের পুলিশকর্মীদের হাতে শুক্রবারই ২ হাজার বোতল অনাক্রমতা বর্ধক হোমিওপ্যাথি ওষুধ তুলে দেন ফুটবলাররা।

৩৮ সদস্যের এই ফোরামে রয়েছেন ভারতীয় দলের বর্তমান ফুল ব্যাক প্রীতম কোটাল, প্রাক্তন ভারত অধিনায়র অর্ণব মণ্ডল, সুব্রত পাল, মেহতাব হোসেন, রহিম নবি প্রমুখ। উদ্যোগ নেন মোহনবাগানের প্রাক্তন মিডফিল্ডার ডেনসন দেবদাস। আগামী দিনেও তাঁরা এই কাজ করে যেতে চান বলে জানানো হয়েছে ফুটবলারদের তরফে।

ফোরামের নাম দেওয়া হয়েছে প্লেয়ার্স ফর হিউম্যানিটি। গত বছরই তৈরি হয়েছে ফুটবলারদের এই ফোরাম। ফুটবল মরশুম শেষ হওয়ার পর মূলত ছোট মাঠে টুর্নামেন্ট খেলার জন্যই এই ফোরাম তৈরি হয়েছিল। পরে তারা সমাজসেবামূলক কাজে নিয়োজিত করে নিজেদের। এই ফোরামই প্রয়াত ফুটবলার আর ধনরাজনের পরিবারকে সাহায্য করার জন্য একটি চ্যারিটি ম্যাচের আয়োজন করেছিল।

দেবদাস বলেন, 'আমার স্ত্রী একজন হোমিওপ্যাথি চিকিৎসক। সেকারণেই মাথায় আসে এই পরিকল্পনা। যাঁরা মহামারির বিরুদ্ধে সামনে থেকে লড়ছেন, তাঁদের কাজে লাগতে পারে এই ওষুধ। কেরল ও দিল্লিতেও এই ওষুধ ব্যবহার করা হচ্ছে। স্ত্রী'র পরামর্শ মতোই ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ হোমিওপ্যাথির সঙ্গে যোগাযোগ করি। ওরা সানন্দে রাজি হয়ে যায় আমাদের ওযুধ সরবরাহ করতে।'

ফুটবলাররা বারাকপুর পুলিশ কমিশনারের কাছে প্রস্তাব রাখার পর তিনি সম্মতি দেন। দেবদাস জানান, কলকাতা, বিধাননগর ও হাওড়া পুলিশ কমিশনারেটেও এই ওষুধ বিতরণের পরিকল্পনা রয়েছে তাঁদের।

বন্ধ করুন