বাংলা নিউজ > ময়দান > সাবধান না হলেই, দুর্ঘটনা ঘটবে- দীপ্তির মানকাডিং নিয়ে দিল্লি পুলিশের বিশেষ বার্তা- ভিডিয়ো

সাবধান না হলেই, দুর্ঘটনা ঘটবে- দীপ্তির মানকাডিং নিয়ে দিল্লি পুলিশের বিশেষ বার্তা- ভিডিয়ো

দীপ্তি শর্মার মানকাডিং আউট নিয়ে এ বার দিল্লি পুলিশের বিশেষ বার্তা।

এ দিকে দিল্লি ট্র্যাফিক পুলিশ টুইটারে দীপ্তির মানকডিংয়ের একটি ভিডিয়ো পোস্ট করেছে। তাঁর এই ঘটনাকে রাস্তার নিরাপত্তার সঙ্গে যুক্ত করেছে। এর সঙ্গে দিল্লি পুলিশ ক্যাপশনে লিখেছে, ‘গাড়ি চালানোর সময় কেন সতর্কতা গুরুত্বপূর্ণ..’। দিল্লি পুলিশের এই ভিডিয়োটি সোশ্যাল মিডিয়ায় খুব ভাইরাল হয়েছে।

ঐতিহাসিক লর্ডসে অলরাউন্ডার দীপ্তি শর্মার মানকাডিং আউট করা নিয়ে সারা বিশ্বে জোর চর্চা চলছে। সম্প্রতি ইংল্যান্ড সফরে ওয়ানডে সিরিজের শেষ ম্যাচে নন-স্ট্রাইকার এন্ডে ব্যাটসম্যান চার্লি ডিনকে রান আউট করেছিলেন দীপ্তি। তার মানকাডিং আউট নিয়ে যেমন তীব্র সমালোচনা হচ্ছে। তেমনই অনেকেই আবার তাঁকে প্রশংসায় ভরিয়ে দিচ্ছেন।

এ দিকে দিল্লি ট্র্যাফিক পুলিশ টুইটারে দীপ্তির মানকডিংয়ের একটি ভিডিয়ো পোস্ট করেছে। তাঁর এই ঘটনাকে রাস্তার নিরাপত্তার সঙ্গে যুক্ত করেছে। এর সঙ্গে দিল্লি পুলিশ ক্যাপশনে লিখেছে, ‘গাড়ি চালানোর সময় কেন সতর্কতা গুরুত্বপূর্ণ..’। দিল্লি পুলিশের এই ভিডিয়োটি সোশ্যাল মিডিয়ায় খুব ভাইরাল হয়েছে এবং নেটিজেনরা এতে মজাও পেয়েছেন।

আরও পড়ুন: দীপ্তিকে পুরস্কৃত করা উচিত-অ্যান্ডারসন, বিলিংদের সমালোচনার তীব্র কটাক্ষ অশ্বিনের

টুইটার হ্যান্ডেলে দীপ্তির মানকডিংয়ের ভিডিয়ো শেয়ার করে পথ নিরাপত্তা নিয়ে দিল্লি ট্র্যাফিক পুলিশের এই সতর্কবাণী কিন্তু বাণী কিন্তু বেশ আকর্ষণীয়। এর সঙ্গেই সড়ক নিরাপত্তার পাশাপাশি মানকডিং, ভারত বনাম ইংল্যান্ড হ্যাশট্যাগও ব্যবহার করা হয়েছে।

ভারত অবশ্য তৃতীয় ওডিআই ১৬ রানে জিতে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ৩-০ হোয়াইটওয়াশ করে ইংল্যান্ডকে। দীপ্তি যখন ম্যাচের ৪৪তম ওভারে বোলিং করছিলেন, ক্যাপ্টেন হরমনপ্রীত কাউর চার্লি ডিনকে মানকডিং করার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন এবং দীপ্তি মানকডিং করেন ডিনকে। ডিন ৮০ বলে ৫টি চারের সাহায্যে ৪৭ রান করেছিলেন। এ ভাবে আউট হওয়ার পর ডিন খুবই হতাশ হয়ে মাঠের মধ্যেই কেঁদে ফেলেন।

আরও পড়ুন: নিজেরাই নিয়ম তৈরি করে, তাই দীপ্তির মানকাডিং নিয়ে তিতো ওষুধ গিলতে বাধ্য হল MCC

সোমবার সকালে কলকাতা বিমানবন্দরে অবতরণের পর যথারীতি মানকাডিং নিয়ে দীপ্তিকে একাধিক প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়। চূড়ান্ত আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে বাংলার মেয়ে বলেন, ‘কিছু না। আমাদের ওটা পরিকল্পনা ছিল। ও বারবার ক্রিজের বাইরে বেরিয়ে যাচ্ছিল। আমরা ওকে সতর্কও করেছিলাম। যা নিয়ম এবং আইন আছে, সে ভাবেই আমরা আউট করেছি।’ সঙ্গে তিনি বলেন, ‘আম্পায়ারকেও বলেছিলাম আমরা। কিন্তু তার পরেও ক্রিজ থেকে বেরিয়ে এসেছিল ও। তাই আমাদের কিছু করার ছিল না।’

কিন্তু সব কিছু ছাপিয়ে প্রাক্তন এবং বর্তমান ইংরেজ ক্রিকেটারদের একাংশ আচমকা ক্রিকেটের স্পিরিটের ভক্ত হয়ে পড়েন। দাঁত-নখ বের করে ভারতীয়দের দিকে তেড়ে আসেন। মানকাডিং যে আইনসিদ্ধ বিষয়, সেটা মেনে নিয়েও স্পিরিটের বুলি আওড়াতে থাকেন। যদিও পাল্টা পাটকেলও হজম করতে হয় তাঁদের। ভারতীয় নেটিজেনরা ইংরেজ ক্রিকেটারদের ‘সততার’ একাধিক নজির তুলে ধরেন। সেটা পরিষ্কার ব্যাট লাগার পর ব্রডের মাঠ ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়া হোক বা বল মাটিতে পরে গিয়েও অ্যামি জোনসের ‘জোচ্চুরি’ হোক - ভারতীয়রা একেবারে প্রমাণ নিয়ে স্পিরিটের অস্ত্র ভোঁতা করে দেন।

বন্ধ করুন