বাংলা নিউজ > ময়দান > কলকাতায় মারাদোনা: স্মৃতির অ্যালবামে এখনও সতেজ অজস্র ছবি

কলকাতায় মারাদোনা: স্মৃতির অ্যালবামে এখনও সতেজ অজস্র ছবি

  • খেলা-পাগল কলকাতা ২০০৮ সালে ধন্য হয়েছিল ফুটবলের রাজপুত্রের পদার্পণে। মোহনবাগানের সংবর্ধনা সভা থেকে ফিদেল কাস্ত্রোর সুহৃদ পরিচয়ে বর্ষীয়ান জ্যোতি বসুর সঙ্গে সাক্ষাৎ, সেই স্মৃতিতে আজও আবিল মহানগর। চিরপ্রিয় দিয়েগোর প্রয়াণে শোকস্তব্ধ হৃদয়ে ফিরে দেখা সেই সব সোনালি মুহূর্তের জাম্পকাট।
মারাদোনা-জ্বরে আক্রান্ত কলকাতাকে এ ভাবেই অনাবিল অভিবাদন জানিয়েছিলেন ফুটবলের রাজপুত্র।
1/10মারাদোনা-জ্বরে আক্রান্ত কলকাতাকে এ ভাবেই অনাবিল অভিবাদন জানিয়েছিলেন ফুটবলের রাজপুত্র।
তাঁর স্পর্শে ধন্য হয়েছিল কলকাতার ময়দান, আকুল আবেগে ভেসেছিলেন বাংলার আপামর ফুটবলপ্রেমী।
2/10তাঁর স্পর্শে ধন্য হয়েছিল কলকাতার ময়দান, আকুল আবেগে ভেসেছিলেন বাংলার আপামর ফুটবলপ্রেমী।
বয়স সংখ্যামাত্র। আজীবনের সেই বিশ্বাস কলকাতায় এসেও প্রতি মুহূর্তে পালন করেছিলেন মারাদোনা। সবুজ মাঠ, চামড়ার গোলক আর গ্যালারিতে দর্শকের ঢেউ- কিশোর ফুটবলারদের স্বপ্ন বাস্তবায়িত করে অনুষ্ঠানের গোলাপ হাতে নিয়েই সেই আবহে ঘাসের গালিচায় জাদু রচনা করেছিলেন ফুটবল কিংবদন্তী।
3/10বয়স সংখ্যামাত্র। আজীবনের সেই বিশ্বাস কলকাতায় এসেও প্রতি মুহূর্তে পালন করেছিলেন মারাদোনা। সবুজ মাঠ, চামড়ার গোলক আর গ্যালারিতে দর্শকের ঢেউ- কিশোর ফুটবলারদের স্বপ্ন বাস্তবায়িত করে অনুষ্ঠানের গোলাপ হাতে নিয়েই সেই আবহে ঘাসের গালিচায় জাদু রচনা করেছিলেন ফুটবল কিংবদন্তী।
যে হাতজোড়া বিশ্বকাপ তুলে তাতে চুমু এঁকে দিয়েছিল, মোহনবাগানের সংবর্ধনাসভায় উপহার পাওয়া ক্লাবের প্রতীক একই আবেগে তুলে ধরেছিলেন দিয়েগো আরমান্দো মারাদোনা। মুখচ্ছবিতে ফুটে উঠেছিল নির্ভেজাল উচ্ছ্বাস। 
4/10যে হাতজোড়া বিশ্বকাপ তুলে তাতে চুমু এঁকে দিয়েছিল, মোহনবাগানের সংবর্ধনাসভায় উপহার পাওয়া ক্লাবের প্রতীক একই আবেগে তুলে ধরেছিলেন দিয়েগো আরমান্দো মারাদোনা। মুখচ্ছবিতে ফুটে উঠেছিল নির্ভেজাল উচ্ছ্বাস। 
অনুষ্ঠানের ফাঁকে ময়দানি হাতছানিতে সাড়া দিতে দেরি করেননি বিশ্বসেরা ফুটবল নক্ষত্র। মোহনবাগান কর্তা সৃঞ্জয় বসু মন্ত্রমুগ্ধ হয়েছিলেন বল নিয়ে মধ্যবয়েসি মারাদোনার সুঠাম পায়ের অবিস্মণীয় কারুকাজ।
5/10অনুষ্ঠানের ফাঁকে ময়দানি হাতছানিতে সাড়া দিতে দেরি করেননি বিশ্বসেরা ফুটবল নক্ষত্র। মোহনবাগান কর্তা সৃঞ্জয় বসু মন্ত্রমুগ্ধ হয়েছিলেন বল নিয়ে মধ্যবয়েসি মারাদোনার সুঠাম পায়ের অবিস্মণীয় কারুকাজ।
১৯৮৬ ফুটবল বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে হাতের স্পর্শে অবৈধ গোল করলেও ভুল ধরতে পারেননি রেফারি। পরে ফুটবল ইতিহাসে সেই গোল চিহ্নিত হয়ে যায় ‘হ্যান্ড অফ গড’ তকমায়। সেই সব ঐতিহাসিক কীর্তির নিরিখেই মন্ত্রাবিষ্ট দৃষ্টিতে মারাদোনাকে বরণ করেছিল তিলোত্তমা। 
6/10১৯৮৬ ফুটবল বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে হাতের স্পর্শে অবৈধ গোল করলেও ভুল ধরতে পারেননি রেফারি। পরে ফুটবল ইতিহাসে সেই গোল চিহ্নিত হয়ে যায় ‘হ্যান্ড অফ গড’ তকমায়। সেই সব ঐতিহাসিক কীর্তির নিরিখেই মন্ত্রাবিষ্ট দৃষ্টিতে মারাদোনাকে বরণ করেছিল তিলোত্তমা। 
পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসু কিউবার নেতা ফিদেল কাস্ত্রোর ঘনিষ্ঠ বন্ধু। খবর পেয়ে কলকাতা সফরের ফাঁকে জ্যোতিবাবুর সল্ট লেকের বাড়িতে সটান হাজির হয়েছিলেন দিয়েগো। আসলে বয়সের ব্যবধান যা-ই থাকুক, কাস্ত্রো যে তাঁরও পরম সুহৃদ!
7/10পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসু কিউবার নেতা ফিদেল কাস্ত্রোর ঘনিষ্ঠ বন্ধু। খবর পেয়ে কলকাতা সফরের ফাঁকে জ্যোতিবাবুর সল্ট লেকের বাড়িতে সটান হাজির হয়েছিলেন দিয়েগো। আসলে বয়সের ব্যবধান যা-ই থাকুক, কাস্ত্রো যে তাঁরও পরম সুহৃদ!
পুরনো অ্যালবাম ঘেঁটে অতীতে ক্ষণিক ডুব দিয়েছিলেন সে দিন জ্যোতি বসুও। সেই স্মৃতিচর্চা ছুঁয়ে গিয়েছিল মারাদোনার মনও। প্রবীণ বাম নেতার সঙ্গে তাঁর ঘনিষ্ঠ মুহূর্ত আজও শহরবাসীর স্মৃতিপটে উজ্জ্বল।
8/10পুরনো অ্যালবাম ঘেঁটে অতীতে ক্ষণিক ডুব দিয়েছিলেন সে দিন জ্যোতি বসুও। সেই স্মৃতিচর্চা ছুঁয়ে গিয়েছিল মারাদোনার মনও। প্রবীণ বাম নেতার সঙ্গে তাঁর ঘনিষ্ঠ মুহূর্ত আজও শহরবাসীর স্মৃতিপটে উজ্জ্বল।
বল নিয়ে মাঠময় দাপিয়ে বেড়ানো ছেলেটার মধ্যে যে লাগামছাড়া উদ্দাম আবেগ টগবগিয়ে ফুটতো, তার সঙ্গে নিজের যাবতীয় অ্যাডভেঞ্চারের স্বপ্ন মিলিয়ে নিতে পেরেছিল বাঙালি। আর তাই তার আগমনে অকুণ্ঠ ভালোবাসার ফোয়ারা ছোটাতে কার্পণ্য করেনি কলকাতা।
9/10বল নিয়ে মাঠময় দাপিয়ে বেড়ানো ছেলেটার মধ্যে যে লাগামছাড়া উদ্দাম আবেগ টগবগিয়ে ফুটতো, তার সঙ্গে নিজের যাবতীয় অ্যাডভেঞ্চারের স্বপ্ন মিলিয়ে নিতে পেরেছিল বাঙালি। আর তাই তার আগমনে অকুণ্ঠ ভালোবাসার ফোয়ারা ছোটাতে কার্পণ্য করেনি কলকাতা।
পয়লা সফরেই কলকাতাকে আপন করে নিয়েছিলেন দিয়েগোও। অক্লেশে সাড়া দিয়েছিলেন তাঁকে ঘিরে বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাসে। মোহনবাগানের সংবর্ধনা সভায় প্রাক্তন ভারতীয় ফুটবলার বিজয়নের সঙ্গে মঞ্চ ভাগ করে নিয়েছিলেন ফুটবলের রাজপুত্র দিয়েগো আরমান্দো মারাদোনা। কলকাতার হৃদমাঝারে চিরনবীন থাকবেন তিনি, চিরকাল। 
10/10পয়লা সফরেই কলকাতাকে আপন করে নিয়েছিলেন দিয়েগোও। অক্লেশে সাড়া দিয়েছিলেন তাঁকে ঘিরে বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাসে। মোহনবাগানের সংবর্ধনা সভায় প্রাক্তন ভারতীয় ফুটবলার বিজয়নের সঙ্গে মঞ্চ ভাগ করে নিয়েছিলেন ফুটবলের রাজপুত্র দিয়েগো আরমান্দো মারাদোনা। কলকাতার হৃদমাঝারে চিরনবীন থাকবেন তিনি, চিরকাল। 
অন্য গ্যালারিগুলি