বাংলা নিউজ > ময়দান > আগে ড্রেসিংরুমে দৈত্য ছিল ধোনি এখন হয়েছে কোহলি- জঘন্য ভাবে আক্রমণ করলেন গম্ভীর
বিরাট কোহলি ও মহেন্দ্র সিং ধোনি এবং গৌতম গম্ভীর।

আগে ড্রেসিংরুমে দৈত্য ছিল ধোনি এখন হয়েছে কোহলি- জঘন্য ভাবে আক্রমণ করলেন গম্ভীর

  • গম্ভীর দাবি করেছেন যে, একজন খেলোয়াড়কে হিরো বানানোর সংস্কৃতি ১৯৮৩ সালে শুরু হয়েছিল, যখন ভারত তাদের ক্রিকেট বিশ্বকাপ জিতে ইতিহাস রচনা করেছিল। তবে ভক্তরা বিরাট কোহলি, এমএস ধোনি এবং কপিল দেবের মতো তারকাদের প্রশংসা করে। কিন্তু তাঁরা ভুলে যায় যে, এই সাফল্যে দলের অন্যান্য সদস্যদের অবদানও রয়েছে।

ভারতীয় ক্রিকেট দলে একজন খেলোয়াড়কে হিরো বানানোর সংস্কৃতির কড়া সমালোচনা করেছেন ভারতের প্রাক্তন ক্রিকেটার গৌতম গম্ভীর। গম্ভীর বিশ্বাস করেন যে, ভক্তরা বিরাট কোহলি, এমএস ধোনির প্রতি যে ভাবে অনুরাগী, বাকি খেলোয়াড়দের জন্যও সেটা হওয়া উচিত।

গম্ভীর আরও বলেছেন যে, ভারতীয় ক্রিকেট দলের ড্রেসিংরুমে একটি দৈত্য তৈরি করা ঠিক নয়। প্রথমে এমএস ধোনি দৈত্য ছিলেন। আর এখন বিরাট কোহলি আছেন। সাজঘরে একটাই দৈত্য থাকা উচিত, সেটা হল ভারতীয় ক্রিকেট, কোনও খেলোয়াড় নয়।

আরও পড়ুন: হোটেলের রুমের দরজায় ভয়ঙ্কর সাপ, ভয় না পেয়ে প্রজাতি খুঁজতে বেড়াচ্ছেন অজি তারকা

গম্ভীর দাবি করেছেন যে, এই সংস্কৃতি, যেটি ১৯৮৩ সালে শুরু হয়েছিল, যখন ভারত তাদের ক্রিকেট বিশ্বকাপ জিতে ইতিহাস রচনা করেছিল। তবে ভক্তরা বিরাট কোহলি, এমএস ধোনি এবং কপিল দেবের মতো তারকাদের প্রশংসা করে। কিন্তু তাঁরা ভুলে যায় যে, এই সাফল্যে দলের অন্যান্য সদস্যদের অবদানও রয়েছে।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের আইডিয়া এক্সচেঞ্জে, গম্ভীর টিম ইন্ডিয়াতে একজন নায়কের প্রতি মানুষের আবেগকে ভারতীয় ক্রিকেটের জন্য সঠিক নয় বলে অভিহিত করেছেন। শুধু তাই নয়, সোশ্যাল মিডিয়ার ফলোয়ারদের সবচেয়ে ভুয়ো বলে দাবি করেছেন গম্ভীর। গম্ভীর বলেছেন, ‘দয়া করে সাজঘরে ধোনি, কোহলির মতো দৈত্য তৈরি করবেন না। কোনও ব্যক্তি নয়, ভারতীয় ক্রিকেটই একমাত্র দৈত্য। এটা সবার মনে রাখা উচিত। এক জন বা দু’জন ক্রিকেটারের ছায়ায় বাকিরা উঠে আসতে পারছে না। আগে ধোনি ছিল। এখন কোহলি। বাকিরা কোথায়?’

আরও পড়ুন: অজিদের হারানোর প্রস্তুতি শুরু, নেটে দীর্ঘ কসরত রোহিত, কোহলিদের

গম্ভীর নিজের বক্তব্যের স্বপক্ষে একটি উদাহরণও দিয়েছেন। তিনি মনে করিয়ে দিয়েছেন, ‘বিরাট কোহলি যখন আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে সেঞ্চুরি করেছিলেন, তখন অন্য একজন খেলোয়াড় ছিল, মিরাটের মতো একটি ছোট শহরের বোলার (ভুবনেশ্বর কুমার), যো পাঁচ উইকেট নিয়েছিল। কিন্তু কেউ ওর কথা বলেনি। এটা বেশ দুর্ভাগ্যজনক। আমিই একমাত্র ব্যক্তি যে, ধারাভাষ্যের সময় এই কথা বলেছিলাম। ও চার ওভার বল করে পাঁচ উইকেট নিয়েছিল। আমার মনে হয় না, এটা অনেকেই জানেন বলে। কিন্তু বিরাট সেঞ্চুরি করার পর, তা সারা দেশে উদযাপন হল। শুধুমাত্র একজন ক্রিকেটারকে পূজা করার সংস্কৃতি থেকে ভারতের বেরিয়ে আসা উচিত। সেটা ভারতীয় ক্রিকেট হোক, রাজনীতি হোক বা দিল্লি ক্রিকেট। এক জনকে পূজা করার সংস্কৃতির অবসান হওয়া উচিত।’

বন্ধ করুন