ব্রেকিং নিউজ

রবিবার দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে হবে ইস্টবেঙ্গল - মোহনবাগান ডার্বি, জানাল AIFF

ফাইল ছবি
ফাইল ছবি

এক বিবৃতিতে ফেডারেশনের তরফে জানানো হয়েছে, ‘টিম ম্যানেজমেন্ট ও খেলোয়াড়রা ছাড়া মাঠে হাজির থাকতে পারবেন রেফারি, চিকিৎসা কর্মী, সম্প্রচার সংস্থার কর্মী, অনুমোদিত সংবাদমাধ্যম ও নিরাপত্তা কর্মীরা।

ধোপে টিকল না মুখ্যমন্ত্রীর আপত্তি। দর্শকশূন্য মাঠে রবিবারই খেলা হবে শেষ ইস্ট বেঙ্গল – মোহনবাগান ডার্বি। শুক্রবার সন্ধ্যায় এমনই জানানো হয়েছে AIFF-এর তরফে। এদিন নবান্নে এক বৈঠকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ রুখতে ম্যাচ ১ মাস পিছিয়ে দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিল ইস্ট বেঙ্গল। সেই প্রস্তাবকে সমর্থন করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু লিগ বন্ধ করতে চায় না ফেডারেশন। তাদের তরফে জানানো হয়েছে, আই লিগের বাকি ২৮টি ম্যাচের প্রত্যেকটি দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে হবে।

শুক্রবার নবান্নের বৈঠকের পর আই লিগ নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য চাপ বাড়ে ফেডারেশনের ওপর। এর পরই ফেডারেশনের কর্তারা ভিডিয়ো কনফারেন্সিংয়ে আইলিগ কর্তাদের সঙ্গে মিলিত হন। সেখানেই দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে ম্যাচ করানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। ফেডারেশনের তরফে জানানো হয়েছে, বৃহস্পতিবার রাতে স্বাস্থ্য মন্ত্রকের নির্দেশিকায় জমায়েত করতে নিষেধ করা হয়েছে। ফলে দর্শক না থাকলে ম্যাচ করতে সমস্যা নেই।

এক বিবৃতিতে ফেডারেশনের তরফে জানানো হয়েছে, ‘টিম ম্যানেজমেন্ট ও খেলোয়াড়রা ছাড়া মাঠে হাজির থাকতে পারবেন রেফারি, চিকিৎসা কর্মী, সম্প্রচার সংস্থার কর্মী, অনুমোদিত সংবাদমাধ্যম ও নিরাপত্তা কর্মীরা। এছাড়া ম্যাচের সময় বাকি সবার প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।’

শুক্রবার ইস্ট বেঙ্গল – মোহনবাগান ডার্বি নিয়ে নবান্নের বৈঠক উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। মোহনবাগানের দাবি ছিল দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে ডার্বি হোক। আর ইস্ট বেঙ্গল সেভাবে খেলতে নারাজ। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ম্যাচ স্থগিত রাখার পক্ষে মত দেন। কিন্তু সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত না হওয়ায় দায়িত্ব বর্তায় ফেডারেশনের ওপর।


বন্ধ করুন