প্রয়াত প্রদীপ কুমার বন্দ্যোপাধ্যায়। শোকস্তব্ধ ক্রীড়াজগৎ, ময়দান হারাল পিকে-এর বিখ্যাত ভোকাল টনিক।
প্রয়াত প্রদীপ কুমার বন্দ্যোপাধ্যায়। শোকস্তব্ধ ক্রীড়াজগৎ, ময়দান হারাল পিকে-এর বিখ্যাত ভোকাল টনিক।

অবসান পিকে যুগের, প্রয়াত খ্যাতিমান কোচ প্রদীপ কুমার বন্দ্যোপাধ্যায়

শুক্রবার দুপুরে কলকাতার এক হাসপাতালে প্রয়াত হলেন প্রখ্যাত প্রাক্তন ফুটবলার ও ফুটবল প্রশিক্ষক প্রদীপ কুমার বন্দ্যোপাধ্যায়।

প্রয়াত হলেন প্রখ্যাত প্রাক্তন ফুটবলার ও প্রশিক্ষক প্রদীপ কুমার বন্দ্যোপাধ্যায়। শুক্রবার শহরের এক বেসরকারি হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর।

গত ৩ মার্চ অত্যন্ত সংকটজনক অবস্থায় বাইপাস সংলগ্ন বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি করা হয় বর্ষীয়ান প্রদীপ কুমার বন্দ্যোপাধ্যায়কে। ফুসফুসে সংক্রমণ-সহ বার্ধক্যজনিত একাধিক সমস্যা দেখা দেয়।

শুরু থেকেই তাঁকে ভেন্টিলেশনে রেখে চিকিৎসা চালু করা হয়। শুরু হয় ডায়ালিসিসও। শেষে তাঁর শরীরে মাল্টি অর্গ্যান ফেইলিওর জনিত জটিল সমস্যা।

কলকাতা ময়দানের কোনও বড় ক্লাবে কখনও খেলেননি। তা স্তত্বেও জাতীয় দলের হয়ে দুরন্ত খেলার সুবাদে ভারতীয় ফুটবলের কিংবদন্তীতে পরিণত হন পি কে। ১৯৫৫ সালে ঢাকায় চারদেশীয় টুর্নামেন্টে ভারতের জার্সিতে প্রথমবার আত্মপ্রকাশ করেন তিনি। দীর্ঘ ১২ বছর জাতীয় দলের হয়ে চুটিয়ে ফুলবল খেলা পি কে ভারতের হয়ে অংশ নিয়েছেন ১৯৫৬ মেলবোর্ন ও ১৯৬০ রোম অলিম্পিকে।

১৯৬১ সালে অর্জুন পুরস্কারে ভূষিত হন প্রবাদপ্রতীম এই ফুটবলার তথা কোচ। ১৯৯০ সালে ভারত সরকার তাঁকে পদ্মশ্রী সম্মানে ভূষিত করে। ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অফ ফুটবল হিস্ট্রি অ্যান্ড স্ট্যাটিসটিক্সের বিচারে বিংশ শতকের সেরা ভারতীয় ফুটবলার নির্বাচিত হন পিকে। ২০০৪ সালে ফিফা তাদের সর্বোচ্চ সম্মান অর্ডার অফ মেরিট প্রদান করে প্রদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে। তিনিই এশিয়ার একমাত্র ফুটবলার, যাঁকে ইন্টারন্যাশনাল ফেয়ার প্লে পুরস্কার প্রদান করে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক সংস্থা।

বন্ধ করুন