বাংলা নিউজ > ময়দান > সিরাজের পরিবর্তে কে খেলবেন, ইশান্ত না উমেশ? নাম বাতলালেন ভারতের প্রাক্তন প্রধান নির্বাচক
দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে মহম্মদ সিরাজ চোট পেয়ে ছিটকে গিয়েছিলেন।

সিরাজের পরিবর্তে কে খেলবেন, ইশান্ত না উমেশ? নাম বাতলালেন ভারতের প্রাক্তন প্রধান নির্বাচক

  • জোহানেসবার্গ টেস্টের প্রথম ইনিংসেই রানআপের সময় হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট পেয়েছিলেন সিরাজ। তিনি ম্যাচে মাত্র ১৫.৫ ওভার বোলিং করেছিলেন। দ্বিতীয় টেস্ট হারের পর কোচ রাহুল দ্রাবিড় পরে স্বীকার করে নিয়েছিলেন, সিরাজের অনুপস্থিতি ভারতের স্ট্র্যাটেজি এলোমেলো হয়ে গিয়েছিল।

কেপ টাউনে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে তৃতীয় ও শেষ টেস্টে ভারতের বড় চিন্তার কারণ মহম্মদ সিরাজের চোট। তাঁর পরিবর্তে কাকে খেলানো হবে, সেটাও চিন্তার আরও একটি কারণ। সিরাজের জায়গায় প্রথম একাদশে কে সুযোগ পাবেন- উমেশ যাদব না ইশান্ত শর্মা? চলছে জল্পনা।

জোহানেসবার্গ টেস্টের প্রথম ইনিংসেই রানআপের সময় হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট পেয়েছিলেন সিরাজ। তিনি ম্যাচে মাত্র ১৫.৫ ওভার বোলিং করেছিলেন। দ্বিতীয় টেস্ট হারের পর কোচ রাহুল দ্রাবিড় পরে স্বীকার করে নিয়েছিলেন, সিরাজের অনুপস্থিতি ভারতের স্ট্র্যাটেজি এলোমেলো হয়ে গিয়েছিল। দ্রাবিড় আরও যোগ করেছিলেন, সিরাজ কেপ টাউনে সিরাজ অনিশ্চিত। ১১ জানুয়ারি থেকে শুরু হতে চলা কেপ টাউন টেস্টে সিরাজ না খেললে, ভারতের কাছে দু'টি বিকল্প রয়েছে - অত্যন্ত অভিজ্ঞ ইশান্ত বা উমেশের ক্লাসিক্যাল আউটসুইঙ্গার।

বিসিসিআই-এর প্রাক্তন প্রধান নির্বাচক এমএসকে প্রসাদ মনে করেন যে উচ্চতার কারণে ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্টের উচিত, ইশান্তকেই দলে রাখা। তিনি পিটিআই-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ‘আমরা জোহানেসবার্গে একজন লম্বা ফাস্ট বোলারকে মিস করেছি এবং আমাদের একমাত্র ইশান্ত রয়েছে লম্বা। এই ধরনের পিচগুলিতে ও কিন্তু উমেশের থেকে আমার বেশি পছন্দের। এটি যদি এমন কোনও ভারতীয় পিচ হত, যা রুক্ষ এবং ডাস্টবোলের মতো মনে হয়, তবে উমেশকেই এগিয়ে রাখতাম।’

প্রাক্তন ভারতীয় কিপার দীপ দাশগুপ্তও ইশান্তকেই প্রথম একাদশে রাখার বিষয়ে সরব।তাঁর পছন্দের পিছনে দু'টি কারণ ব্যাখ্যা করেছেন। দীপও পিটিআই-কে বলেছেন, ‘আমি বলতে পারব না ইশান্তের উপর কোহলির একই বিশ্বাস আছে কিনা, যা ২০১৯-এ ছিল। তবে এই পিচে উমেশের চেয়ে বেশি কার্যকরী হবে ইশান্ত। প্রথমত, উচ্চতার কারণে কঠিন লেন্থে হিট করবে। দ্বিতীয়ত, ওর ক্ষমতা রয়েছে দীর্ঘ সময় ধরে ব্যাটারদের দাপিয়ে রাখার। যা দুর্ভাগ্যবশত ওয়ান্ডারার্সে ঘটেনি।’

বন্ধ করুন