বাংলা নিউজ > ময়দান > ঝড়ো শতরান করে CPL-এ নতুন রেকর্ড গড়ে ফেললেন ফ্যাফ ডু'প্লেসি
ফ্যাফ ডু'প্লেসির নয়া নজির।
ফ্যাফ ডু'প্লেসির নয়া নজির।

ঝড়ো শতরান করে CPL-এ নতুন রেকর্ড গড়ে ফেললেন ফ্যাফ ডু'প্লেসি

  • সিপিএলের ইতিহাসে ডু'প্লেসির করা ১২০ রানটাই এই মুহূর্তে বিদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে সর্বোচ্চ। এর আগে ২০১৮ সালে সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস প্যাট্রিয়টসের বিরুদ্ধেই জামাইকা তালাওয়াজের গ্লেন ফিলিপস ১০৩ রান করেছিলেন। তারও আগে ২০১৬ সালে ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্সের কলিন মুনরো অপরাজিত ১০০ রান করেছিলেন।

আইপিএলের ঠিক আগেই ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়র লিগে দুরন্ত ছন্দে সেন্ট লুসিয়া কিংসের অধিনায়ক ফ্যাফ ডু'প্লেসি। শনিবার সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস প্যাট্রিয়টসের বিরুদ্ধে ৬০ বলে অপরাজিত ১২০ রানের বিধ্বংসী এক ইনিংস খেলেন ডু'প্লেসি। আর সেই সঙ্গেই গড়ে ফেলেন নতুন নজির।

সিপিএলের ইতিহাসে ডু'প্লেসির করা ১২০ রানটাই এই মুহূর্তে কোনও বিদেশি ক্রিকেটারের করা সর্বোচ্চ। ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়র লিগে এর থেকে বেশি রান কোনও প্লেয়ারের নেই। এর আগে ২০১৮ সালে সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস প্যাট্রিয়টসের বিরুদ্ধেই জামাইকা তালাওয়াজের গ্লেন ফিলিপস ১০৩ রান করেছিলেন। এটাই ছিল সিপিএল-এর সর্বোচ্চ রান। তারও আগে ২০১৬ সালে ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্সের কলিন মুনরো অপরাজিত ১০০ রান করেছিলেন।

সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস প্যাট্রিয়টসের বিরুদ্ধে আটটি চার এবং একটি ছক্কার সাহায্যে মাত্র ২৫ বলে ব্যক্তিগত হাফ-সেঞ্চুরি পূরণ করেন ডু'প্লেসি। তিনি শতরানের গণ্ডি টপকে যান ৫১ বলে ১১টি চার ও ৪টি ছক্কার সাহায্যে। শেষ পর্যন্ত ১৩টি চার এবং ৫টি ছক্কার হাঁকিয়ে ৬০ বলে ১২০ রান করে অপরাজিত থাকেন ডু'প্লেসি।

সেন্ট লুসিয়া নির্ধারিত ২০ ওভারে ২ উইকেটে ২২৪ রান করে। রোস্টন চেস সাতটি চার এবং তিনটি ছয় মেরে ৩১ বলে ৬৪ রান করে নট-আউট থাকেন। আন্দ্রে ফ্লেচার ২৩ ও কেরন কটয় ১০ রান করে আউট হন। ১টি করে উইকেট নেন ফ্যাবিয়ান অ্যালেন ও ফাওয়াদ আহমেদ। ডোয়েন ব্র্যাভো ৩.২ ওভারে ৫০ রান দিয়ে কোনও উইকেট পাননি। খেলার মাঝেই তিনি চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন। ব্র্যাভোর চোট কিন্তু চিন্তায় ফেলে দিল মহেন্দ্র সিং ধোনিদের।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে সেন্ট কিটস ১৬.৫ ওভারে ১২৪ রানে অল-আউট হয়ে যায়। ১০০ রানের বড় ব্যবধানে ম্যাচ জিতে যায় ডু'প্লেসির টিম সেন্ট লুসিয়া।

ক্রিস গেইল দু'টি ছক্কা হাঁকালেও ১০ বলে ১৪ রান করে আউট হয়ে যান। কিছুটা লড়াই করেন এভিন লুইস। তিনি পাঁচটি চার এবং ছ'টি ছয় মেরে ৪২ বলে ৭৩ রানের অসাধারণ একটি ইনিংস খেলেন। এর বাইরে ১৫ রানের গণ্ডিই কেউ টপকাতে পারেনি।

বন্ধ করুন