বাড়ি > ময়দান > 'ফেয়ার অ্যান্ড লাভলির বিজ্ঞাপনেই বোঝা যায়, ভারতের সংস্কৃতিতে রয়েছে বর্ণবাদ'
ড্যারেন স্যামি। ছবি- টুইটার।
ড্যারেন স্যামি। ছবি- টুইটার।

'ফেয়ার অ্যান্ড লাভলির বিজ্ঞাপনেই বোঝা যায়, ভারতের সংস্কৃতিতে রয়েছে বর্ণবাদ'

  • গায়ের রং অনুযায়ী ভারতে সৌন্দর্য্য বিচার করা হয়, অভিযোগ ক্যারিবিয়ান তারকার।

প্রাক্তন ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি প্রথমে অভিযোগ তোলেন, আইপিএলে খেলতে এসে তাঁকে বর্ণবিদ্বেষের শিকার হতে হয়েছিল। সানরাইজার্সের সতীর্থরা তাঁকে কালু বলে ডাকতেন। পরে তিনিই সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘোষণা করেন যে, আইপিএলের সতীর্থরা ভালোবেসেই তাঁকে এই নাম দিয়েছিলেন। এবার নতুন করে ক্যারিবিয়ান তারকা আঙুল তুললেন ভারতীয় সংস্কৃতির দিকে।

এক্ষেত্রে ফেয়ার অ্যান্ড লাভলির বিজ্ঞাপনকে সামনে রেখে স্যামি অভিযোগ তোলেন, ভারতের সংস্কৃতিতেই রয়েছে বর্ণবাদ। তিনি প্রশ্ন তোলেন, ভারতের সংস্কৃতি যদি বৈটিত্র্যময় হয়, তবে কোনও ক্রিম তাদের প্রচারে এমন নাম কীভাবে ব্যবহার করতে পারে? ফেয়ার অ্যান্ড লাভলি নামেই স্পষ্ট যে, ভারতে বর্ণবাদ রয়েছে। গায়ের রং অনুযায়ী এখানে সৌন্দর্য্য বিচার করা হয়।

আউটলুককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে স্যামি বলেন, 'তোমাদের বিজ্ঞাপন ফেয়ার অ্যান্ড লাভলি বুঝিয়ে দেয় সুন্দর মানুষরা ফর্সা হয়। এ থেকে কী বার্তা যায়? এতে বর্ণবাদের স্পষ্ট ইঙ্গিত রয়েছে।'

যদিও স্যামি জানিয়েছেন ইশান্ত শর্মা তাঁকে কালু বলে ডাকলেও ভারতীয় পেসার তাঁর ভাইয়ের মতো। তাই যখনই তাঁর সঙ্গে দেখা হোক না কেন, তাঁকে আলিঙ্গন করতে চান। 

স্যামির কথায়, 'ভারতে আমার দারুণ সব স্মৃতি রয়েছে। যখনই হোক, যেভাবেই হোক, তা সে ক্রিকেটার, মেন্টর বা কোচ হিসেবেই হোক, ভারতে ফিরতে চাই। ইশান্তের সঙ্গে দেখা হলে অবশ্যই ওকে বুকে টেনে নেব।'

বন্ধ করুন