বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবল > প্রাক্তন কোচ আলেজান্দ্রোর কথাতেই এসসি ইস্টবেঙ্গলের কোচিং দায়িত্ব নিলেন মানোলো
আলেজান্দ্রো ও মানোলো
আলেজান্দ্রো ও মানোলো

প্রাক্তন কোচ আলেজান্দ্রোর কথাতেই এসসি ইস্টবেঙ্গলের কোচিং দায়িত্ব নিলেন মানোলো

  • কোয়েস ইস্টবেঙ্গলের প্রাক্তন কোচ আলেজান্দ্রোর কথাতেই এসসি ইস্টবেঙ্গলের কোচিং দায়িত্ব নিয়েছেন মানোলো।

এসসি ইস্টবেঙ্গলের নতুন কোচকে দারুণ সার্টিফিকেট দিলেন লাল হলুদের প্রাক্তন কোচ। তাঁর কথাতেই নাকি চিনের ক্লাবের, কোচিং ওফার ছেড়ে দিযেছেন লাল হলুদের নতুন কোচ।  আসলে লাল হলুদের নতুন কোচ হোসে ম্যানুয়েল ‘মানোলো’ ডিয়াজ হলেন ইস্টবেঙ্গলের প্রাক্তন কোচ আলেজান্দ্রো মেনেন্দেজ গার্সিয়ার বন্ধু। রিয়ালে থাকার সময় থেকেই মানোলোর সঙ্গে পরিচয় রয়েছে আলেজান্দ্রোর। রিয়ালের বিভিন্ন বয়সভিত্তিক দলে কোচিং করিয়েছেন মানোলো। ২০০৯-এ ক্যাস্টিয়ার কোচ ছিলেন আলেজান্দ্রো। মানোলো রিয়াল মাদ্রিদ ‘সি’দলের কোচ থাকাকালীন আলেজান্দ্রোর সঙ্গে তাঁর আলাপ হয়। তারপর থেকেই দুজনে খুব ভালো বন্ধু।

আলেজান্দ্রো মেনেন্দেজ গার্সিয়া এক সময় ইস্টবেঙ্গল জনতার নয়নের মণি ছিলেন। কোয়েস বিনিয়োগকারী থাকার সময় রিয়াল মাদ্রিদ ক্যাস্টিয়ার প্রাক্তন কোচ আলেজান্দ্রোকে লাল-হলুদের প্রশিক্ষক করে নিয়ে এসেছিল। আই লিগে সেবার ইস্টবেঙ্গল দ্বিতীয় স্থানে শেষ করে। মাত্র এক পয়েন্টের জন্য আই লিগ পায়নি সে বার। কিন্তু আলেজান্দ্রোর শান্ত অথচ প্রয়োজনে কঠোর মনোভাব সমর্থকদের মন জয় করে নিযেছিল। সমর্থকদের সঙ্গে বরাবরই তাঁর হৃদ্যতা ছিল। সেই ভালোবাসা আজও ভুলতে পারেননি তিনি। কোয়েসের সঙ্গে ইস্টবেঙ্গলের বিচ্ছেদের পর ভারত ছেড়ে চলে যান আলেজান্দ্রো।  মানোলো নতুন কোচ হয়ে এসসি ইস্টবেঙ্গলের আসার পিছনে অনেকাংশে রযেছেন আলেজান্দ্রোও।

এসসি ইস্টবেঙ্গলে যোগ দেওয়ার আগে মানোলোর কাছে চিনের একটি ক্লাবের প্রস্তাব ছিল। তিনি চিন্তায় পড়ে গিয়েছিলেন কী করবেন। সেই সময় ত্রাতা হন আলেজান্দ্রোই। তিনি মানোলোকে বোঝান কলকাতার ফুটবল সমর্থকরা কতটা আবেগপ্রবণ এবং এই শহর কতটা ফুটবল-পাগল। মানোলো প্রস্তাব গ্রহণ করতে দ্বিতীয় বার ভাবেননি। এক ওয়েবসাইটে আলেজান্দ্রো বলেছেন, ‘মানোলো ভবিষ্যতে অনেক শিরোনাম তৈরি করবে। আমার কথা মিলিয়ে নেবেন{’ তবে একটা সময় অনেক ব্যথা, যন্ত্রণা, হতাশা নিয়ে শহর ছেড়েছিলেন আলেজান্দ্রো। কিন্তু বিদায় বেলায় নিয়ে গিয়েছিলেন সমর্থকদের বুক ভরা ভালোবাসা। সেই আবেগ ভুলতে পারেননি। তাই বন্ধুকে কলকাতায় কোচিংকরানোর প্রস্তাব লুফে নিতে বলেছেন তিনি। এখন দেখার হোসে ম্যানুয়েল ‘মানোলো’ডিয়াজ কতটা ভালোবাসা অর্জন করেন।

বন্ধ করুন