বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবল > AFC Cup: পূর্ণ শক্তির মোহনবাগানকে ৪ গোল দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করল গোকুলাম কেরালা
গোকুলামের তৃতীয় গোলের পর দলের ফুটবলারদের উচ্ছ্বাস। ছবি- টুইটর (@GokulamKeralaFC)।

AFC Cup: পূর্ণ শক্তির মোহনবাগানকে ৪ গোল দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করল গোকুলাম কেরালা

  • প্রথমার্ধেই এটিকে মোহনবাগানের রক্ষণের স্তম্ভ তিরি আহত হয়ে মাঠ ছাড়েন।

সদ্যই নাগাড়ে দ্বিতীয়বার আইলিগ চ্যাম্পিয়ন হওয়া গোকুলাম কেরালার বিরুদ্ধে নিজেদের এএফসি কাপের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল এটিকে মোহনবাগান। আই লিগ চ্যাম্পিয়নদের বিরুদ্ধে পূর্ণ শক্তির সবুজ-মেরুন কার্যত উড়ে গেল। ছয় গোলের থ্রিলারে নিজেদের এএফসি কাপ অভিষেকই দারুণ জয় পেল গোকুলাম।

ম্যাচ শুরুর আগে সবুজ-মেরুনের তারকা স্ট্রাইকার রয় কৃষ্ণর খেলা নিয়ে ধোঁয়াশা থাকলেও, তিনি ম্যাচে এটিকে মোহনবাগানের হয়ে স্টার্ট করেন। মাঠে নেমেই একেবারে দারুণ ছন্দে দেখায় ফিজি স্ট্রাইকার। নিজের প্রথম শটেই গোকুলাম গোলরক্ষক রক্ষিত ডাগরকে একটু হকচকিয়ে দেন কৃষ্ণ। ১৬ মিনিটে লিস্টন কোলাসোর পাস থেকে গোল করার সুবর্ণ সুযোগ মিস করার প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই একক দক্ষতায় নিজের মার্কারকে পরাস্ত করে আরেক দুর্ধর্ষ সুযোগ তৈরি করেন কৃষ্ণ। তবে দুর্ভাগ্যবশত ১৮ মিনিটে তাঁর সেই শট গোলপোস্টের ভিতরের দিকে লেগে ডাগরের দস্তানায় চলে যায়।

গোকুলামের বিরুদ্ধে বল দখলের লড়াইয়ে রয় কৃষ্ণ। 
গোকুলামের বিরুদ্ধে বল দখলের লড়াইয়ে রয় কৃষ্ণ। 

প্রথমার্ধে লিস্টন কোলাসো, মনবীর সিং, কৃষ্ণরা গাদাখানেক সুযোগ তৈরি করলেও ম্যাচ গোলশূন্যই থাকে। গোকুলামের ফুটবলাররা জানপ্রাণ লড়িয়ে ডিফেন্ড করে। তবে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই সম্পূর্ণভাবে ছবিটা বদলে যায়। দলগতভাবে নিখুঁত পাসিংয়ের গোকুলামকে ম্যাচের ৫১ মিনিটে এগিয়ে দেন লুকা মাজকেন। তার দুই মিনিট পরেই কোলাসোর পাস থেকে এটিকে মোহনবাগানের হয়ে সমতা ফেরান তারকা ডিফেন্ডার প্রীতম কোটাল।

এটিকে মোহনবাগানকে সমতায় ফিরিয়ে প্রীতম কোটালের সেলিব্রেশন। ছবি- টুইটার (@atkmohunbaganfc)।
এটিকে মোহনবাগানকে সমতায় ফিরিয়ে প্রীতম কোটালের সেলিব্রেশন। ছবি- টুইটার (@atkmohunbaganfc)।

৫৭ মিনিটে আবার গোল। মহামেডানের বিরুদ্ধে গোকুলামকে লিড এনে দেওয়া রিশাদ এবার আরেক কলকাতা হেভিওয়েট জালে বল জড়ান। গোলশূন্য প্রথমার্ধের পর, দ্বিতীয়ার্ধের ১২ মিনিটে তিন গোলে যে ম্যাচের গতি বদলেছে, তা স্পষ্টতই বোঝা যায়। দ্বিতীয়ার্ধ আক্রমণ ও গোলের ধারা অব্য়াহত রাখতে দুই দলই আক্রমণ চালিয়ে বেশ দৃষ্টিনন্দন ফুটবল খেলে।

গোল করে রিশাদের দৌড়। ছবি- টুইটার (@GokulamKeralaFC)।
গোল করে রিশাদের দৌড়। ছবি- টুইটার (@GokulamKeralaFC)।

৬৫ মিনিটে গোকুলামের হয়ে এই ম্যাচের দ্বিতীয় গোল করে আই লিগ চ্যাম্পিয়নদের ৩-১ এগিয়ে দেন লুকা। তবে সবুজ মেরুন তো সহজে পরাজয় মেনে নেওয়ার পাত্র নয়। আইএসএলে দুর্ধর্ষ খেলা কোলাসো, ম্যাচের ৮০ মিনিটে ফ্রি-কিক থেকে সরাসরি গোল করে ম্যাচে মোহনবাগানকে নতুন অক্সিজেনের জোগান দেন। মোহনবাগান ম্যাচে ফেরার উদ্দেশ্যে মরিয়া হয়ে আক্রমণে ঝাঁপায়। তবে আজ লুকা যেন একাই একাশো। দুই গোল করার পর ম্যাচের ৮৯ মিনিটে তিনি অ্যাসিস্ট প্রদানকারীর ভূমিকা পালন করেন। সাবস্টিটিউট হিসাবে নামা জিতিন মালাবারিয়ানদের হয়ে ম্যাচের চতুর্থ গোলটি করেন।

৪-২ স্কোরলাইনেই শেষ হয় ম্যাচ। এএফসি কাপে গোকুলাম কেরালা নিজেদের এই অভিষেক ম্য়াচ সারাজীবন মনে রাখবে। অপরদিক, পূর্ণ শক্তির দল নিয়ে নামলেও চার গোলে খাওয়া সবুজ-মেরুন কোচ ফেরান্দোর চিন্তা বাড়াবে। অবশ্য সবুজ-মেরুন রক্ষণের স্তম্ভ তিরির প্রথমার্ধেই আহত হয়ে মাঠ ছাড়াটা কিন্তু মোহনবাগান রক্ষণের এই ব্যর্থতার এক বড় কারণ।

 

বন্ধ করুন