বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবলের মহারণ > সকাল ৮.৩০-এ ম্যাচ, যেন স্কুল ফুটবল, জঘন্য মাঠ- সন্তোষ নিয়ে অসন্তুষ্ট বাংলার কোচ

সকাল ৮.৩০-এ ম্যাচ, যেন স্কুল ফুটবল, জঘন্য মাঠ- সন্তোষ নিয়ে অসন্তুষ্ট বাংলার কোচ

বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য সন্তোষ ট্রফির অব্যবস্থা নিয়ে ক্ষুব্ধ।

সন্তোষ ট্রফিতে বাংলা টানা পাঁচটি ম্যাচ জিতে পৌঁছে গিয়েছে মূল পর্বে। গ্রুপ পর্বে অপরাজিত থেকেই সরাসরি মূল পর্বে চলে গিয়েছে বাংলা। এর পরেও খুশি নন বাংলার কোচ বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য। তিনি সন্তোষ ট্রফির অব্যবস্থা নিয়ে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন।

একেবারে পাঁচে পাঁচ। সন্তোষ ট্রফিতে বাংলা টানা পাঁচটি ম্যাচ জিতে পৌঁছে গিয়েছে মূল পর্বে। গ্রুপ পর্বে অপরাজিত থেকেই সরাসরি মূল পর্বে চলে গিয়েছে বাংলা। রবিবার গ্রুপের অন্যতম শক্তিশালী প্রতিপক্ষ মহারাষ্ট্রকে হারিয়েই বাংলা পৌঁছে গেল সন্তোষ ট্রফি ২০২৩-এর চূড়ান্ত পর্বে। এর পরেও খুশি নন বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য। তিনি সোমবার একরাশ ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন।

এ দিন কলকাতায় ফেরার বিমানে ওঠার আগে বিশ্বজিৎ বলছিলেন, ‘সকাল সাড়ে আটটা, সাড়ে এগারোটায় খেলা দিচ্ছে। কোনও নিয়মই নেই। এটা কি আমরা স্কুলের ম্যাচ খেলছি। এ ভাবে প্রফেশনাল ফুটবল চলে নাকি। ভারতের ফুটবল এ ভাবে এগোবে কী করে। এ ভাবে উন্নতি সম্ভব নাকি!’

আরও পড়ুন: সন্তোষে টানা পাঁচ ম্যাচ জয়ের নজির, মহারাষ্ট্রকে ২-১ হারিয়ে মূলপর্বে বাংলা

তিনি এখানেই থামেননি। আরও বলেছেন, ‘মাঠ খারাপ, রেফারিং-এর মান খারাপ। কোনও মতে এত বড় একটা টুর্নামেন্ট করা যায় নাকি! এর পরেও আমরা আশা করব, ফুটবলের উন্নতি হবে!’ তিনি আরও বলেন, ‘মহারাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ম্যাচে রেফারি আমাদের বেশ কয়েকটি হলুদ কার্ড দেখিয়েছে। আমাদের বিরুদ্ধে জোর করে ফাউল দিয়েছে। সব কিছু প্রতিবন্ধকতার বিরুদ্ধে আমরা জিতেছি। এটুকুই যা প্রাপ্তি।’

রবিবার মহারাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ম্যাচে সাময়িক ঝামেলা হয়েছিল। আচমকা বোতল উড়ে পড়তে শুরু করে মাঠে। বেশ কিছুক্ষণ খেলা বন্ধ থাকে। এই প্রসঙ্গে বিশ্বজিৎ বলেন, ‘এটা কোনও বিষয়ই নয়। বাংলার দ্বিতীয় গোলের পর ওরাও (মহারাষ্ট্র) মাথা ঠিক রাখতে পারেনি। গ্যালারিতেও উত্তেজনা হয়েছিল। এটা হতেই পারে। বড় কোনও বিষয় নয়। ফুটবল মাঠেরই অঙ্গ।’

আরও পড়ুন: Santosh-এ মধ্যপ্রদেশকেও ৫-০ উড়িয়ে দিল বাংলা,শুভেচ্ছা মেয়রের, কিন্তু খুশি নন কোচ

সন্তোষ ট্রফিতে হরিয়ানাকে হারানো দিয়ে অভিযান শুরু করেছিল বাংলা। এর পর দামান এবং দিউ, মধ্যপ্রদেশ, ছত্তিশগড়, মহারাষ্ট্রের বিরুদ্ধে টানা পাঁচ ম্যাচে জয়ের ধারাবাহিকতা বজায় রেখে পরের পর্বে চলে গেল বাংলা।

বাংলা ছাড়াও গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে অন্যান্য গ্রুপগুলি থেকে সন্তোষ ট্রফির চূড়ান্ত পর্বে পৌঁছে গিয়েছে দিল্লি, কেরালা, গোয়া, মেঘালয়। বাংলার পাঁচ ম্যাচ মিলিয়ে কোয়ালিফাইং রাউন্ডে মোট ১৭টি গোল রয়েছে। মাত্র ১টি গোল তারা হজম করেছে। শেষ ম্যাচে মহারাষ্ট্রের বিরুদ্ধেই একমাত্র গোলটি হজম করেছে বাংলা। এ দিকে সোমবার রাতেই শহরে ফিরে গিয়েছে বাংলা দল। আপাতত কয়েক দিনের ছুটি। তার পরেই মূল পর্বের অনুশীলনে নেমে পড়বেন বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্যের ছেলেরা।

বন্ধ করুন