বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবলের মহারণ > Brazilian Journalist Hassled in Qatar: এবার অভব্য আচরণ ব্রাজিলের সাংবাদিকের সঙ্গে, বারংবার মুখ পুড়ছে কাতারের

Brazilian Journalist Hassled in Qatar: এবার অভব্য আচরণ ব্রাজিলের সাংবাদিকের সঙ্গে, বারংবার মুখ পুড়ছে কাতারের

 ব্রাজিলের সাংবাদিকের সঙ্গে অভব্য আচরণ কাতারি পুলিশের (ছবি - টুইটার)

সাংবাদিক ভিক্টর পেরেরা অভিযোগ করেন, নিরাপত্তারক্ষীদের অভব্য আচরণের ঘটনা যখন তিনি ভিডিয়ো করতে শুরু করেন, তখন তাঁর ফোন কেড়ে নেওয়া হয়।

ছয়রঙা পতাকাতে আগেই আপত্তি জানিয়েছিল কাতার। সমকামিতা সেদেশে নিষিদ্ধ বলেই রামধনু দেখলে চোখ দিয়ে আঙুন ঝরছে কাতারিদের। এরই মাঝে এবার ব্রাজিলের এক প্রাদেশিক পতাকা দেখেও আপত্তি তুলল কাতারি নিরাপত্তারক্ষীরা। সেই পতাকা নিয়ে যাওয়ার জন্য ব্রাজিলের এক সাংবাদিককে আটকানোও হয়। নিউইয়র্ক পোস্টের রিপোর্ট অনুযায়ী, ভিক্টর পেরেরা নামক এক সাংবাদিক ব্রাজিলের ‘পার্নামবুকো’ নামক প্রদেশের পতাকা নিয়ে যাচ্ছিলেন। সেই পাতাকাকে সমকামী প্রতীক ভেবে সেই রিপোর্টারকে আটকানো হয়।

সাংবাদিক ভিক্টর পেরেরা অভিযোগ করেন, নিরাপত্তারক্ষীদের অভব্য আচরণের ঘটনা যখন তিনি ভিডিয়ো করতে শুরু করেন, তখন তাঁর ফোন কেড়ে নেওয়া হয়। উল্লেখ্য, কাতারি নিরাপত্তারক্ষীরা যে পতাকা নিয়ে আপত্তি তুলেছিল, তার ওপরের ভাগে গাঢ় নীলের ওপর লাল, হলুদ, সবুজ রঙের রামধনু আঁকা। সঙ্গে একটি তারা এবং একটি সূর্য রয়েছে। পতাকার নীচের অংশে সাদার ওপর লাল রঙা ক্রস রয়েছে।

অভিযোগকারী সাংবাদিক পেরেরা বলেন, ‘সাদা পোশাক পরা এক ব্যক্তি এসে আমার থেকে পতাকা কেড়ে নেয়। এরপর আমি ফোন বের করে ঘটনার ভিডিয়ো করতে গেলে আমার ফোনও কেড়ে নেওয়া হয়। এরপর একজন অফিসার এসে হস্তক্ষেপ করেন এবং আমার ফোন ফিরিয়ে দেন আমাকে। আমার ভিডিয়ো ডিলিট করতে বলেন তিনি।’ সাংবাদিক জানান, তিনি সেই অফিসারের কথা মেনে ভিডিয়ো ডিলিট করতে বাধ্য হন। তবে এই ঘটনার বেশ কিছু ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে।

প্রসঙ্গত, কাতারে সমকামিতা নিষিদ্ধ। এই আবহে সেখানে বিশ্বকাপের মঞ্চে সমকামিকতার বিরুদ্ধে কড়াকড়ি চালাচ্ছে কাতার। এমনকি ফিফাও কাতারের এই ‘বিধিনিষেধে’ ‘মদত’ দিয়ে চলেছে। মুখে সমকামীদের স্বাগত জানালেও ছয়রঙা কোনও পোশাক পরিহিত সমর্থক, দর্শককেই স্টেডিয়ামে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না কাতারে। এই আবহে এর আগে এক মার্কিন সাংবাদিকের সঙ্গে অভব্য আচরণের অভিযোগ উঠেছিল কাতারে। গ্র্যান্ট ওয়াল নামক সেই সাংবাদিক টুইট করে জানান, কালো রঙের টিশার্টের ওপর রামধনু আঁকা থাকায় তাঁকে স্টেডিয়ামে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। তাঁকে বলে দেওয়া হয়, ‘এই টিশার্ট পরে ঢোকা যাবে না। এর অনুমতি নেই।’ শুধু তাই নয়, সেই সাংবাদিককে আধঘণ্টা আটক করে রাখা হয়। ঘটনা প্রসঙ্গে তিনি যখন টুইট করেন, তখন নাকি নিরাপত্তারক্ষীরা তাঁর ফোন কেড়ে নেয়। পরবর্তীতে অবশ্য সেই সাংবাদিকের কাছে ক্ষমা চেয়ে নেন নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা কমান্ডর। ফিফার তরফেও তাঁকে চিঠি পাঠিয়ে ক্ষমা চাওয়া হয়।

বন্ধ করুন