বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবল > 'Break the Merger', 'Remove Nitu'- ডুরান্ড ফাইনালে মোহন-ইস্ট সমর্থকদের প্রতিবাদী ব্যানার
রবিবার যুবভারতী স্টেডিয়াম (ছবি:ফেসবুক)
রবিবার যুবভারতী স্টেডিয়াম (ছবি:ফেসবুক)

'Break the Merger', 'Remove Nitu'- ডুরান্ড ফাইনালে মোহন-ইস্ট সমর্থকদের প্রতিবাদী ব্যানার

যুবভারতীতে পড়ল মোহনবাগান-ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের ব্যানার! ডুরান্ড ফাইনাল যেন দুই প্রধানের প্রতিবাদের মঞ্চ।

ডুরান্ড ফাইনাল যেন প্রতিবাদের মঞ্চ। একদিকে আইএসএল খেলা কোটি টাকার দলের বিরুদ্ধে নিজেদের সেরাটা উজাড় করে দিচ্ছেন মহমেডান স্পোর্টিং-এর ফুটবলাররা, অন্যদিকে তখন চলছে মোহনবাগান-ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের প্রতিবাদ। দীর্ঘদিন পরে যুবভারতীতে দর্শকরা খেলা দেখার সুযোগ পেয়েছিলেন। আর সেখানেই প্রতিবাদের ব্যানার নিয়ে উপস্থিত হলেন দুই প্রধানের সমর্থকেরা। 

রবিবারের যুবভারতী তিন প্রধানের সমর্থকদের এক করে দিল। ডুরান্ড ফাইনালে নিজেদের প্রিয় ক্লাবকে সমর্থন করতে মাঠে উপস্থিত হয়েছিলেন মহমেডান সমর্থকেরা। অন্যদিকে বাংলার ক্লাবের পাশে থাকতে যুবভারতীতে উপস্থিত হয়েছিলেন ইস্টবেঙ্গল ও মোহনবাগানের সমর্থকেরাও। তবে ডুরান্ড ফাইনালকে মাথায় রেখে নিজেদের প্রতিবাদটাকেও ফুটবলের সামনে তুলে ধরলেন দুই প্রধানের ভক্তরা। লাল হলুদের সমর্থকেরা ব্রতমান কর্তাদের উফর গর্জে উঠলেন। বর্তমান লাল হলু কর্তাদের বিরুদ্ধে যুবভারতীতে ব্যানার ঝোলালেন। অন্যদিকে তখন মোহনবাগান সমর্থকেরা এটিকে রিমুভ করার জন্য গর্জে উঠেছে। তারাও এদিন যুবভারতীতে ব্যানার ঝোলালেন।     

করোনা অতিমারীর মাঝেই দীর্ঘদিন পরে যুবভারতীতে দর্শকদের সামনে ফুটবল ফিরল। রবিবার ডুরান্ড ফাইনালে মহমেডানের মুখোমুখি হয়েছিল এফসি গোয়া। প্রায় আট বছর পরে ডুরান্ড জয়ের কাছে পৌঁছে ছিল সাদা কালো ব্রিগেড। মোহনবাগান, ইস্টবেঙ্গলের অনুপস্থিতিতে মহমেডানের উপর ভরসা করেছিল বাংলার ফুটবল। ফাইনালে ম্যাচ হারলেও ফুটবল প্রেমী বাঙালিকে হতাশ করে মহমেডান স্পোর্টিং। আইএসএল খেলা কোটি টাকার দলকে দারণ চ্যালেঞ্জ দিয়েছিল মার্কাস জোসেফরা। আর সেই কারণেই যুবভারতীতে মহমেডানকে সমর্থন করতে ছুঁটে গিয়েছিল মোহনবাগান-ইস্টবেঙ্গলের সমর্থকেরাও।

করোনার কারণে ১০০ শতাংশ দর্শক প্রবেশ করতে না পারলেও ৫০ শতাংশ দর্শক প্রবেশে সবুজ সংকেত দেওয়া হয়েছিল। তবে মহমেডান কর্তাদের মতে সম্পূর্ণ টিকিট বন্টন করা হয়েছিল। এমন অবস্থায় মহমেডানকে সমর্থন করতে যুবভারতীতে ছুঁটে এসে ছিলেন সবুজ মেরুন, লাল হলুদ সমর্থেকারও। মহমেডানকে সমর্থন করার পাশাপাশি তারা কেউ লিখে নিয়ে আসলেন ‘নিতু আউট’ তো কেউ লিখলেন ‘রিমুভ এটিকে’। তিন ক্লাবের ছটা রঙ যেন এদিন ফুটবলের আবেগে মিশে গেল। তিন প্রধানের এমন মিলন আগে কবে দেখেছিল কলকাতা তথা বাংলার ফুটবল! তবে এদিনের প্রতিবাদ কতটা দুই প্রধানের কর্তাদের প্রভাবিত করবে তা ভবিষ্যতই বলবে।

বন্ধ করুন