বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবলের মহারণ > ধৈর্য্য হারালে চলবে না- নিজেদের ভুল শোধরাতে চান ইস্টবেঙ্গলের কোচ স্টিফেন কনস্টান্টাইন

ধৈর্য্য হারালে চলবে না- নিজেদের ভুল শোধরাতে চান ইস্টবেঙ্গলের কোচ স্টিফেন কনস্টান্টাইন

ইস্টবেঙ্গলের কোচ কনস্টান্টাইন (ছবি-আইএসএল)

ইস্টবেঙ্গল এফসি-র কোচ স্টিফেন কনস্টান্টাইন বলেন, ‘গত বছর সারা মরশুমে একটা ম্যাচে জিতেছিলাম আমরা। তার আগের বছরে দুটো জয় ছিল। এ বার আমাদের আরও চেষ্টা করতে হবে। ধৈর্য্য হারালে চলবে না। খেলোয়াড়দের ভালো ম্যাচ, খারাপ ম্যাচ আসে যায়।’

আবারও হারের সম্মুখীন হয়েছে ইস্টবেঙ্গল। ঘরের মাঠে এবার চেন্নাইয়িন এফরি বিরুদ্ধে হারতে হল তাদের। পাঁচটি ম্যাচের মধ্যে একটি মাত্র জিতেছে লাল হলুদ ব্রিগেড। অথচ দল কিন্তু প্রতি ম্যাচেই ভালো খেলেছে। ইস্টবেঙ্গল এফসি-র কোচ স্টিফেন কনস্টান্টাইন মনে করেন অনুশীলনে এত পরিশ্রম করা সত্ত্বেও ম্যাচে নেমে ঘাবড়ে যাচ্ছে তার দলের ছেলেরা। এর ফলে সুযোগ নষ্ট করছে তাঁরা ফলে বেশ হতাশ লাল হলুদ কোচ। তবে কনস্টান্টাইন হাল ছাড়তে রাজি নন। তিনি বলছেন, এখনও অনেক সময় আছে। ভুল শুধরে ঘুরে দাঁড়ানো যাবে। শুক্রবার যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনে চেন্নাইন এফসি-র কাছে ০-১ হারের পরে সাংবাদিক সম্মেলনে কী বললেন লাল হলুদ কোচ? চলুন জেনে নেওয়া যাক।

আরও পড়ুন… দক্ষিণ আফ্রিকার ‘মিনি IPL’ –এ খেলবেন পাক ক্রিকেটাররা! সবুজ সংকেত দিল PCB

নিজের দলের ভুলটা তুলে ধরে পরপর হারের ব্যাখ্যা দিলেন ইস্টবেঙ্গল এফসি-র কোচ স্টিফেন কনস্টান্টাইন। তিনি বলেন, ‘আমি এখানে অজুহাত দিতে আসিনি। আমরা দু-তিনটে গোলের সুযোগ পেয়েছি। তার মধ্যে একটাও কাজে লাগাতে পারলে বিরতিতে আমরা ১-০-য় এগিয়ে থাকতে পারতাম। তা হলে ম্যাচটাই অন্য রকম হত। গোলের সামনে আমাদের আরও সতর্ক হতে হবে। সুযোগগুলো কাজে লাগাতে হবে। দ্বিতীয়ার্ধে আমরা যথেষ্ট ভালো খেলেছি। তবে ওরা কর্নার থেকে অনায়াসে একটা গোল পেয়ে যায়। যা খুবই হতাশাজনক। ওই গোলটা খাওয়া উচিত হয়নি।’

আরও পড়ুন… 'ভাগ্যিস কোহলির জন্মদিন কালকে নয়', কেন এমন বললেন জিম্বাবোয়ের অধিনায়ক ক্রেগ আরভিন?

এরপরে তিনি আরও জানান, ‘গোলের পরে ওদের যখন একজন কমে গেল, তার কিছুক্ষণ পরেই আমাদেরও একজনকে মাঠ ছাড়তে হল। এই ধরনের ভুল করলে চলে না। এই ভুলগুলোরই খেসারত দিতে হল আমাদের। পর পর দুটো হার স্বীকার করতে হয়েছে। পরপর তিনটে ম্যাচেও হারতে পারি। কিছু করার নেই। সকলকে ধৈর্য্য রাখতে হবে। ফুটবলারদের আর একটু সময় দিতে হবে। ওটা খুবই বাজে ভুল। ওই সময় আমরা একজন বেশি নিয়ে খেলছিলাম। এক গোলে পিছিয়েও ছিলাম। তা সত্ত্বেও এ রকম ভুল হাস্যকর। এই ধরনের ঘটনার ক্ষেত্রে কোনও পরিকল্পনা করা যায় না। প্রথমার্ধে আমরা সতর্ক ভাবে খেলিনি। সুযোগ কাজে লাগাতে পারিনি। তখন থেকেই হারতে শুরু করে দিয়েছিলাম।’

এখন তাঁর দল কোন পথে যাবে? সেই প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে ইস্টবেঙ্গল এফসি-র কোচ স্টিফেন কনস্টান্টাইন বলেন, ‘আমার মনে হয় না আমরা ভালো অবস্থায় আছি। আমরা অবস্থা পরিবর্তনের জন্য পরিশ্রম করে যাচ্ছি। গত বছর সারা মরশুমে একটা ম্যাচে জিতেছিলাম আমরা। তার আগের বছরে দুটো জয় ছিল। এ বার আমাদের আরও চেষ্টা করতে হবে। ধৈর্য্য হারালে চলবে না। খেলোয়াড়দের ভালো ম্যাচ, খারাপ ম্যাচ আসে যায়। এদিন আমরা দ্বিতীয়ার্ধে ভালো খেলতে পারিনি। প্রথমার্ধে আমরা ভালো খেলেছি। দু-তিনটে সুবর্ণ সুযোগ পেয়েছি। আমাদের ভুলের খেসারত দিতে হয়েছে। তাই বলে আমরা খারাপ দল হয়ে গেলাম না। ভুল শোধরানোর কাজ করতে হবে। উন্নতির জায়গা আছে।’ 

বন্ধ করুন