বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবলের মহারণ > Durand Cup: গোলের সুযোগ তৈরি হওয়ায় খুশি- গোল মিস নিয়ে চিন্তিতই নন ATK MB কোচ

Durand Cup: গোলের সুযোগ তৈরি হওয়ায় খুশি- গোল মিস নিয়ে চিন্তিতই নন ATK MB কোচ

টানা হাফ ডজন ডার্বিতে জিতল এটিকে মোহনবাগান।

যদিও আত্মঘাতী গোলে জয়। তবে খেলার শেষ বাঁশি বাজতেই উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়েন মোহনবাগান সমর্থকরা। শেষ চারটে ডার্বি জয় গোয়ার মাটিতে হয়েছে। আর যুবভারতীতে আড়াই বছর আগে শেষ ডার্বিতে জিতেছিল সবুজ-মেরুনই। শহরে ডার্বির প্রত্যাবর্তনেও শেষ হাসি বাগানেরই।

টানা ৬টি ডার্বি জয় সবুজ-মেরুনের। ডুরান্ডের আগের দু'টি প্রথমে এগিয়ে গিয়েও গোল হজম করতে হয়েছিল এটিকে মোহনবাগানকে। ইস্টবেঙ্গলের বিরুদ্ধে প্রথমার্ধের শেষ লগ্নে এগিয়ে যাওয়ার পর তাই পোগবা, প্রীতমদের কাছে ম্যাচটা আরও চ্যালেঞ্জিং হয়ে যায়।

যদিও আত্মঘাতী গোলে জয়। তবে খেলার শেষ বাঁশি বাজতেই উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়েন মোহনবাগান সমর্থকরা। শেষ চারটে ডার্বি জয় গোয়ার মাটিতে হয়েছে। আর যুবভারতীতে আড়াই বছর আগে শেষ ডার্বিতে জিতেছিল সবুজ-মেরুনই। শহরে ডার্বির প্রত্যাবর্তনেও শেষ হাসি বাগানেরই। এ বার শহরে বসেই বড় ম্যাচ জয়ের আনন্দ ভাগ করে নিলেন সবুজ- মেরুন সমর্থকরা। একই সঙ্গে ডুরান্ড কাপেও ভেসে রইল এটিকে মোহনবাগান।

আরও পড়ুন: টানা হাফ ডজন ডার্বি হার লাল-হলুদের, আত্মঘাতী গোলে বাজিমাত বাগানের

রবিবার সবুজ মেরুন জার্সিতে খেলা দেখতে এসেছিলেন এটিকে মোহনবাগানের কর্ণধার সঞ্জীব গোয়েঙ্কা। গ্যালারিতে দেখলেন এটিকে বিরোধী সমস্ত পোস্টার, টিফো। যদিও স্টেডিয়াম ছড়ার সময় এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করেননি। এক কথায় গোয়েঙ্কা জানান, 'ইলেক্ট্রিফায়িং পরিবেশ।'

আরও পড়ুন: প্রস্তুতির সুযোগ পাইনি, ৬ দিনে ৩ ম্যাচ- ডার্বি হেরে অজস্র অজুহাত EB কোচের

এ দিকে গোল মিসের রোগ কিছুতেই সারছে না লিস্টন, আশিকদের। প্রতি ম্যাচেই যার খেসারত দিতে হচ্ছে। কিন্তু সেই নিয়ে ভাবিত নন জুয়ান ফেরান্দো। সুযোগ তৈরি হওয়ায় খুশি স্প্যানিশ কোচ। তবে তিনি বললেন, ‘ইস্টবেঙ্গল ভালো খেলেছে। দলটাও যথেষ্ট ভালো। বেশ কয়েক বার কঠিন মুহূর্ত তৈরি হয়েছিল। আমাদের ফুটবলাররা প্ল্যানিং অনুযায়ী খেলার চেষ্টা করেছে। অনেকগুলো সুযোগ তৈরি হয়েছে। গোল মিস নিয়ে ভাবছি না। সুযোগ তৈরি হওয়াই আসল। আমাদের অনেক উন্নতি করতে হবে।’

যুবভারতীর ফুলহাউস দেখে মুগ্ধ এটিকে মোহনবাগান কোচ। ফেরান্দো বলেছেন, ‘দারুণ পরিবেশ। আশা করছি আমরা সমর্থকদের খুশি করতে পেরেছি। এটা কলকাতা ফুটবলের জয়।’

৬০ হাজার সমর্থকদের সামনে ডার্বিতে ম্যাচের সেরা হতে পেরে খুশি কার্ল ম্যাকহিউ। তিনি ম্যাচের সেরা পুরস্কার নিয়ে বলেছেন, ‘এই দিনটার জন্যই অপেক্ষা করছিলাম। এটাই একজন ফুটবলারের জীবনের প্রাপ্তি।’

দীর্ঘদিন পর বড় ম্যাচে অধিনায়কের আর্মব্যান্ড ছিল দুই বঙ্গসন্তানের হাতে। এক দিকে শৌভিক চক্রবর্তী, অন্য দিকে প্রীতম কোটাল। সবুজ মেরুনের ডার্বি জয়ী নেতা বলেন, ‘আশা করছি সমর্থকরা ম্যাচটা উপভোগ করেছে। পরের ম্যাচগুলোতে আরও গোল করতে হবে।’ এ দিনের জয়ের ফলে শেষ আটের পথ আরও প্রসারিত হল এটিকে মোহনবাগানের।

বন্ধ করুন