বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবল > Euro 2020 Final: পেনাল্টি মিসের জেরে বর্ণবাদী মন্তব্যের শিকার সাকারা, হতাশা প্রকাশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের
ম্যাচের পর হতাশ সাকাকে সান্ত্বনা কেনের। ছলি- রয়টার্স। (Pool via REUTERS)
ম্যাচের পর হতাশ সাকাকে সান্ত্বনা কেনের। ছলি- রয়টার্স। (Pool via REUTERS)

Euro 2020 Final: পেনাল্টি মিসের জেরে বর্ণবাদী মন্তব্যের শিকার সাকারা, হতাশা প্রকাশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের

  • শুট আউটে পরপর তিনটি পেনাল্টি মিস করেন রাশফোর্ড, স্যাঞ্চো এবং সাকা।

ইতালির বিরুদ্ধে পেনাল্টিতে ৩-২ ব্যবধানে পরাস্ত হয়ে ইউরো জয়ের স্বপ্নভঙ্গ হয়েছে ইংল্যান্ডের। পরপর হতাশাজনকভাবে তিনটি পেনাল্টি মিস করেন রাশফোর্ড, স্যাঞ্চো এবং সাকা। ম্যাচের পরেই এক নক্কারজনক ঘটনার সাক্ষী থাকতে হল তাঁদেরকে। তিন ফুটবলারদের উদ্দেশ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় বর্ণবাদমূলক মন্তব্য করেন একদল ইংরেজ সমর্থক।

বর্তমানে গোট বিশ্বজুড়ে বর্ণবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের প্রতীক হয়ে উঠেছে হাঁটু গেড়ে বসা। তবে গোটা ইউরোতে ম্যাচ শুরুর আগে ইংল্যান্ড ফুটবলাররা হাঁটু গেড়ে বসলে, তার বিরুদ্ধে শব্দ করে নিজেদের মনোভাব আগেই স্পষ্ট করে দিয়েছিল ইংরেজ সমর্থকরা। তাই এই ঘটনা দুর্ভাগ্যজনক হলেও অবাক করার মতো নয়। তবে ঘটনাটির তীব্র নিন্দা করেছে এফএ।

এফএ (ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন) এক বিবৃতিতে জানায়, ‘এফএ কঠোরভাবে যে কোনরকমেরই বর্নবাদমূলক মন্তব্যের বিরুদ্ধাে বিরোধ করে। সংস্থা ইংল্যান্ড তারকাদের দিকে বিরুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়ায় ধেয়ে আসা কুরুচিকর মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছে। কেউ যদি এমন মনোভাব পোষন তাহল সে আমাদের মধ্যে একেবারেই স্বাগত নয়।’

লন্ডন পুলিশও ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে বলেই জানানো হয়েছে। ইংল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীও বরিস জনসনও ঘটনায় হতাশা প্রকাশ করেছেন। নিজের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে তিনি লেখেন, ‘ইংল্যান্ড দলের খেলোয়াড়দের বিরুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়ায় বর্ণবাদমূলক মন্তব্য করা নয়, বরং তাঁদের নায়কের সম্মান জানানো উচিত। যারা এই ঘটনায় জড়িত তাদের নিজেদের ওপর লজ্জা হওয়া উচিত।’

বন্ধ করুন