বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবলের মহারণ > বাইচুংয়ের আবিষ্কারক বলা হত তাঁকে, প্রয়াত ইস্টবেঙ্গলের প্রাক্তন অধিনায়ক

বাইচুংয়ের আবিষ্কারক বলা হত তাঁকে, প্রয়াত ইস্টবেঙ্গলের প্রাক্তন অধিনায়ক

প্রয়াত শ্যামল ঘোষ।

ইস্টবেঙ্গলের কোচ থাকাকালীন কিশোর বাইচুংকে আবিষ্কার করেন শ্যামলই। এক কথায় বলা যায়, তিনি না থাকলে ভারতীয় ফুটবল বাইচুয়ের মতো প্রতিভাকে পেত না। তাঁর প্রয়াণে শোকের ছায়া নেমে এসেছে কলকাতার ফুটবল মহলে।

মঙ্গলবার সকাল থেকেই একের পর এক মন খারাপ করা খবর। রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী সুমিত্রা সেন, চিত্র পরিচালক সন্দীপ চৌধুরীর পর এ বার ফুটবল জগতেও নক্ষত্র পতন। সাত এর দশকের বিখ্যাত ফুটবলার শ্যামল ঘোষ মঙ্গলবার রাত ন'টা নাগাদ প্রয়াত হলেন।

জানা গিয়েছে, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মঙ্গলবার রাতে প্রয়াত হন প্রাক্তন ফুটবলার শ্যামল ঘোষ। সম্প্রতি বুকে স্টেইন বসেছিল। তার পর ভালোই ছিলেন। এমন কী মঙ্গলবার সকালে স্থানীয় একটি ক্লাবে আড্ডাও মারতে যান। কিন্তু বিকেলে হঠাৎ করেই অসুস্থ হয়ে পড়েন। অবস্থার অবনতি হয়। পিয়ারলেস হাসপাতালে তিনি প্রয়াত হন। খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে যান ক্রীড়া মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস, ইস্টবেঙ্গলের শীর্ষ কর্তা দেবব্রত সরকার প্রমুখ। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৯।

আরও পড়ুন: পরের ২ ম্যাচে বুঝতে পারব,সেরা ছয়ে থাকতে পারব কিনা- দলের সমস্যা আছে,মানছেন ক্লেটন

ভারতীয় ফুটবলের অন্যতম সেরা স্টপার ছিলেন তিনি। দুই প্রধানে খেললেও ইস্টবেঙ্গল অন্তপ্রাণ ছিলেন শ্যামল। লাল হলুদের অধিনায়কও ছিলেন। খেলোয়াড় জীবনে তিনি ছিলেন দলের রক্ষণের ভরসা। সুরজিৎ সেনগুপ্তর সঙ্গে ইস্টবেঙ্গলে খেলেন। একে অপরকে 'ব্যাঙ্ক' বলে ডাকতেন। দু'জনেই খিদিরপুর ক্লাব থেকে উঠেছেন।

১৯৭৭ সালে সুব্রত ভট্টাচার্য যখন মোহনবাগানের অধিনায়ক, তখন ইস্টবেঙ্গলের নেতা ছিলেন শ্যামল ঘোষ। ঠান্ডা মাথার ফুটবলার ছিলেন। ক্লিন ফুটবল খেলার সুনাম ছিল। কোনও দিন হলুদ কার্ড বা লাল কার্ড দেখেননি। বাংলা এবং দেশের জন্যও খেলেছেন। কলকাতা ময়দানের এক আপাদমস্তক ভদ্রলোক বলে পরিচিত ছিলেন শ্যামল ঘোষ।

ফুটবলার জীবন থেকে অবসর নিয়ে, কোচ হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করেন তিনি। ইস্টবেঙ্গল এবং বাংলায় কোচিং করিয়েছেন। কলকাতা ময়দান এবং ভারতীয় ফুটবল তাঁর কাছে চিরকৃতজ্ঞ থাকবে বাইচুং ভুটিয়াকে আবিষ্কার করার জন্য। ময়দানে বাইচুংয়ের আবিষ্কারক বলা হয়ে থাকে তাঁকে।

আরও পড়ুন: আমাদের নাম্বার নাইনের উপর নির্ভর করতে হয় না- গোয়াকে হারিয়ে বড় দাবি ATKMB কোচের

ইস্টবেঙ্গলের কোচ থাকাকালীন কিশোর বাইচুংকে আবিষ্কার করেন শ্যামলই। এক কথায় বলা যায়, তিনি না থাকলে ভারতীয় ফুটবল বাইচুয়ের মতো প্রতিভাকে পেত না। তাঁর প্রয়াণে শোকের ছায়া নেমে এসেছে কলকাতার ফুটবল মহলে।

প্রাক্তন ফুটবলার কৃষ্ণেন্দু রায় তাঁর মৃত্যুতে শোক প্রকাশে বলেন, ‘শ্যামলদা মোহনবাগানেও খেলেছেন। তবে শ্যামল ঘোষকে সবাই ইস্টবেঙ্গলের ফুটবলার হিসেবেই জানেন। সত্যি বলতে, লাল হলুদ জার্সিতে তাঁকে মাঠে নামতে দেখাটাই সকলের কাছে আকর্ষণীয় ছিল। দৃষ্টিনন্দন ফুটবল খেলতেন। সবচেয়ে বড় কথা, ময়দানে এমন কেউ নেই যিনি শ্যামল ঘোষ সম্পর্কে একটা খারাপ কথা বলতে পারবেন। এতটাই ভদ্র মানুষ ছিলেন।’

বন্ধ করুন