বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবল > ইস্টবেঙ্গল,কেরালার পরে এবার ফিফার শাস্তির মুখে ট্রাউ এফসি
ট্রাউ এফসির দায়িত্বে থাকাকালীন ডগলাস সিলভা। ছবি- নিজস্ব।
ট্রাউ এফসির দায়িত্বে থাকাকালীন ডগলাস সিলভা। ছবি- নিজস্ব।

ইস্টবেঙ্গল,কেরালার পরে এবার ফিফার শাস্তির মুখে ট্রাউ এফসি

  • স্বাধীনভাবে কাজ করতে না পারার অভিযোগে ট্রাউ এফসি থেকে ইস্তফা দেন ডগলাস।

শুভব্রত মুখার্জি

ফিফার শাস্তির কবলে কয়েকদিন আগেই পড়তে হয়েছিল ইস্টবেঙ্গল ক্লাব এবং কেরালা এফসিকে। ফুটবলারদের বকেয়া না মেটানোর কারণে এই শাস্তির সম্মুখীন হতে হয়েছিল তাদের। পরবর্তীতে বকেয়া মেটানোর পরে সেই নিষেধাজ্ঞার কোপ থেকে কেরালা মুক্তি পেয়েছে ইতিমধ্যেই। ইস্টবেঙ্গলেরও কাটতে চলেছে নিষেধাজ্ঞা। এবার আরেক ভারতীয় ক্লাব ট্রাউ এফসির কপালে নেমে আসতে পারে শাস্তির খাড়া। 

ক্লাবের একদা কোচ ব্রাজিলিয়ান ডগলাসের বকেয়া না মেটানোতে সমস্যায় পড়তে পারে নর্থ-ইস্টের ক্লাব। ট্রাউয়ের অবস্থাটা অনেকটা ইস্টবেঙ্গলের মতোই। উল্লেখ্য প্রাক্তন ইস্টবেঙ্গল তারকা ডগলাস সিলভার বকেয়া অর্থ মিটিয়ে দিতে নির্দেশ দিয়ে ফিফার চিঠি এসে পৌঁছেছে মণিপুরের ক্লাবে। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে টাকা ফেরত না দিলে ট্রান্সফার ব্যানের আওতাতে পড়বে ট্রাউ। ফলে দলগঠনের জন্য নতুন কোন ফুটবলার সই করাতে পারবে না তারা ।

আই লিগের দল ট্রাউয়ের টেকনিক্যাল পরামর্শদাতার দায়িত্ব নিয়ে বছর দু'য়েক আগে ব্রাজিল থেকে এসেছিলেন ডগলাস। নতুন ক্লাবে স্বাধীনভাবে কাজ করতে না পারার অভিযোগও করেছিলেন তিনি। সেই কারণেই কয়েকটা ম্যাচ পরেই ইস্তফা দেন তিনি। এরপরেও তাঁর বকেয়া অর্থও দিচ্ছিল না ট্রাউ। ফলে ফিফার দ্বারস্থ হন তিনি। ফিফাই সব দিক বিচার করে এআইএফএফকে নিজেদের সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিয়েছে। ফিফার নির্দেশ মতোই চলতি মাসের ৮ তারিখের মধ্যে ডগলাসের টাকা ফেরত দিতে হবে। বকেয়া অর্থের পরিমাণ প্রায় ২৫ হাজার মার্কিন ডলার। ভারতীয় মুদ্রায় যার পরিমাণ প্রায় সাড়ে ১৮ লক্ষ টাকা।

বন্ধ করুন