বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবল > ওয়েঙ্গারের দুই বছর অন্তর বিশ্বকাপের পরিকল্পনায় ভারতীয় দলেরই লাভ দেখছেন কোচ ইগর স্টিমাচ
ভারতের জাতীয় ফুটবল দলের কোচ ইগর স্টিমাচ। ছবি- এআইএফএফ।
ভারতের জাতীয় ফুটবল দলের কোচ ইগর স্টিমাচ। ছবি- এআইএফএফ।

ওয়েঙ্গারের দুই বছর অন্তর বিশ্বকাপের পরিকল্পনায় ভারতীয় দলেরই লাভ দেখছেন কোচ ইগর স্টিমাচ

  • ফিফার অর্ন্তভুক্ত ২১১টি দেশের মধ্যে আজ অবধি মাত্র ৭৯টি দেশই বিশ্বকাপ খেলার যোগ্যতা অর্জন করতে পেরেছে, যার মধ্যে আবার ২১টি দেশ মাত্র একবারই বিশ্বকাপে খেলার স্বাদ পেয়েছে।

বিশ্ব ফুটবলে বিশেষত আন্তর্জাতিক বহুদিন ধরেই রদবদলের লক্ষ্যে আলাপ আলোচনা চালাচ্ছেন ফিফার কর্তার। একাধিক পরিকল্পনার মধ্যে ফিফার গ্লোবাল ফুটবল প্রধান আর্সেন ওয়েঙ্গার দুই বছর অন্তর বিশ্বকাপ করারও প্রস্তাব দিয়েছেন। পেপ গুয়ার্দিওলার, ব্রাজিলিয়ান রোনাল্ডোর দলে নাম লিখিয়ে এবার সেই প্রস্তাবকে সমর্থন জানালেন ভারতীয় ফুটবল কোচ ইগর স্টিমাচও।

ফিফার অর্ন্তভুক্ত ২১১টি দেশের মধ্যে আজ অবধি মাত্র ৭৯টি দেশই বিশ্বকাপ খেলার যোগ্যতা অর্জন করতে পেরেছে, যার মধ্যে আবার ২১টি দেশ মাত্র একবারই বিশ্বকাপে খেলার স্বাদ পেয়েছে। স্টিমাচের মতে এই প্রস্তাব ভারতের জন্য লাভদায়ক। হিন্দুস্তান টাইমসকে দেওয়া এক একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করা এবং খেতাব জেতা, কোন ফুটবলারের কাছে সবচেয়ে মূল্যবান। সব ফুটবলারই এই স্বপ্ন দেখেন। আমি দুই বছর অন্তর বিশ্বকাপের পরিকল্পনাকে সমর্থনই করব। কারণ এর ফলে ভারতের মতো দেশগুলির বিশ্বকাপ খেলার সম্ভাবনা প্রায় দ্বিগুন হয়ে যায়।’

ওয়েঙ্গারও বাকি দেশগুলিকে আরও সুযোগ দেওয়ার লক্ষ্যেই তাঁর নতুন প্রস্তাব এনেছেন। কিংবদন্তী ম্যানেজারের মতে, ‘বর্তমানের এই চার বছর অন্তর বিশ্বকাপ খেলার পরিকল্পনাটি ১৯৩০ সালে করা হয়েছিল এবং তারপরে এতদিনেও ১৩৩টি দেশ কোনদিন বিশ্বকাপে খেলার সুযোগই পায়নি।’ দুই বছর অন্তর বিশ্বকাপ হলে ফিফার চার বছর অন্তর ৫.৫ বিলিয়ন ডলার রাজস্বের অনেককটা বৃদ্ধি ঘটবে যা পিছিয়ে পড়া দেশগুলির উন্নতিতে কাজে লাগানো হবে বলেই জানান ওয়েঙ্গার। পাশপাশি বছরে ছয়টি আন্তর্জাতিক উইন্ডোর বদলে অক্টোবর এবং মার্চ বা ক্লাব ফুটবল মরশুমের পর, মোট দু'টি আন্তর্জাতিক উইন্ডোর প্রস্তাব দেনও ফরাসি কোচ।

স্টিমাচ এই প্রস্তাবকেও সমর্থন জানিয়ে দাবি করেন, ‘ফিফার বর্তমান সিস্টেমটা দীর্ঘমেয়াদি নয়। শীর্ষস্তরের দেশগুলির জন্য সেরা ফুটবলারদের নিয়ে খেলা সহজ হলেও তুলনামূলক মাঝারি বা পিছিয়ে পড়া দেশগুলির ক্ষেত্রে এই সূচি একেবারেই উপযুক্ত নয়। একজন জাতীয় দলের কোচ ম্যাচের তিনদিন আগে ফুটবলারদের পেয়ে কিই বা আর করতে পারে। তা ছাড়া ফর্ম এবং চোট আঘাতের জেরে বারংবার দল বদল তো এমনিই করতে হয়। এই পদ্ধতিতে দলগুলি একটু সময় নিয়ে নিজেদের পরিকল্পনা সঠিকভাবে সাজাতে সক্ষম হবে।’

ফিফার অনুষ্ঠিত ২১টি বিশ্বকাপের মধ্যে মাত্র ১৪টি দেশই অর্ধেকের থেকে বেশি বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করতে সক্ষম হয়েছে, যার ১০টিই ইউরোপের। এই দেশগুলিই ফুটবলের ক্ষমতা ও আর্থিক দিক থেকে সর্বাধিক সুযোগ ভোগ করে থাকে। তাই ইউরোপের তরফে যে এই প্রস্তাবে সায় মিলবে না সেই বিষয়ে জল্পনা আগেই ছিল। ওয়ার্ল্ড লিগ ফোরাম এবং ইউরোপিয়ান ক্লাব অ্যাসোসিয়ান থেকে ওয়েঙ্গারের প্রস্তাবকে খারিজ করে দেওয়া হয়েছে। তাদের মতে এই প্রস্তাবে সেরাদের থেকে সাধারণদের আর পৃথক করা সম্ভব হবে না। পরের বছর মে মাসে ফিফা কংগ্রেসেই ওয়েঙ্গারের প্রস্তাবগুলি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

বন্ধ করুন