বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবল > অস্বাভাবিক কিছু দাবি করছি না, নতুন লিভারপুল চুক্তি প্রসঙ্গে অকপট মহম্মদ সালাহ
মহম্মদ সালাহ। ছবি- রয়টার্স। (REUTERS)

অস্বাভাবিক কিছু দাবি করছি না, নতুন লিভারপুল চুক্তি প্রসঙ্গে অকপট মহম্মদ সালাহ

  • লিভারপুলের সঙ্গে আর মাত্র ১৮ মাসের চুক্তি বাকি রয়েছে সালাহর।

বর্তমানে মতান্তরে বিশ্বের সেরা ফুটবলার মহম্মদ সালাহ। গোল হোক বা অ্যাসিস্ট প্রদান, দুর্ধর্ষ পারফর্ম করে লিভারপুলকে একের পর এক ম্যাচ জিতিয়ে চলেছেন তারকা ফরোয়ার্ড। তবে এর পাশাপাশি লিভারপুলের হয়ে তাঁর ভবিষ্যৎ ঘিরেও জল্পনা তুঙ্গে। বর্তমান চুক্তির আর ১৮ মাস মতো বাকি থাকলেও এখনও নতুন চুক্তিতে সই করেননি সালাহ।

বহুদিন ধরেই ২৯ বছরের সালাহের সঙ্গে নতুন চুক্তি নিয়ে কথাবার্তা চালাচ্ছে ইংল্যান্ডের ফুটবল ক্লাবটি। তবে এখনও সেই ক্ষেত্রে কোনো সমাধান পাওয়া যায়নি। তাই স্বাভাবিকভাবেই সালাহের ভবিষ্যৎ ঘিরেও জল্পনা শুরু হয়েছে। অতীতে লিভারপুলেই থাকার ইচ্ছাপ্রকাশ করলেও নতুন চুক্তির বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে তারকা ফরোয়ার্ড বারবার বল ক্লাবের দিকেই ঠেলে দিয়েছেন। সম্প্রতি GQ ম্যাগাজিনকে দেওয়া সাক্ষাৎাকারেও একই ছবি ধরা পড়ল।

সালাহ নতুন চুক্তির বিষয়ে সাফ জানিয়ে দেন যে তাঁর তরফে ‘অস্বাভাবিক’ কোনোকিছু দাবি করা হচ্ছে না। তিনি শুধু দলে নিজের অবদানের বদলে তাঁর যোগ্য প্রতিদান চান। সালাহ বলেন, ‘আমি তো (লিভারপুলে) থাকতেই চাই। তবে আমার থাকা বা না থাকাটা আমার হাতে নেই, গোটাটাই রয়েছে ওদের (ক্লাব কর্তৃপক্ষ) হাতে। ওরা ভালভাবেই আমার দাবি দাওয়া সম্পর্কে অবগত। আমি একেবারেই অস্বাভাবিক কিছু চাইছি না। কারুর দাবি যদি পূর্ণ করা হয়, তাহলে সেটা ওই ব্যক্তিকে কেউ কতটা কদর করছে, সেটাই প্রমাণ করে। এটা এখানে আমার পঞ্চম বছর। আমি ক্লাবের সমর্থকদের ভালবাসি এবং ওরাও আমাকে ভালবাসে। তবে এই (নতুন চুক্তি স্বাক্ষর) গোটটাই ক্লাব কর্তৃপক্ষের হাতে।’

সালাহ বর্তমানে প্রিমিয়র লিগের সর্বোচ্চ গোলস্কোরার ও অ্যাসিস্ট প্রদানকারী। লিভারপুলের হয়ে পাঁচ বছরে প্রিমিয়র লিগে তৃতীয় গোল্টেন বুট জয়ের পথে অগ্রসর সালাহ। লিগে ১৬৫ ম্যাচে তাঁর ১১১ গোল করার রেকর্ড, এক কথায় অভাবনীয়। এমনিতেই লিভারপুল তারকাদের মধ্যে তাঁর বেতন সর্বাধিক। খবর অনুযায়ী, নতুন চুক্তি সই করতে ভারতীয় মুদ্রায় সাপ্তাহিক আড়াই কোটি টাকারও অধিক পারিশ্রমিক দাবি করছেন সালাহ। তবে এই বছরেই ৩০-এ পা দিতে চলা সালাহকে এত অর্থের চুক্তি দিতে নারাজ লিভারপুল কর্তৃপক্ষ। এই কারণেই এত বিলম্ব। খুব দ্রুত এই জট যে কাটার নয়, তা স্পষ্টই বোঝা যাচ্ছে।

বন্ধ করুন