বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবল > পেনাল্টি মিস করলেন সুনীল, ব্যর্থ রক্ষণ, ওড়িশার কাছে ৩-১ হারল বেঙ্গালুরু
বেঙ্গালুুরুকে ৩-১ হারাল ওড়িশা।
বেঙ্গালুুরুকে ৩-১ হারাল ওড়িশা।

পেনাল্টি মিস করলেন সুনীল, ব্যর্থ রক্ষণ, ওড়িশার কাছে ৩-১ হারল বেঙ্গালুরু

  • আইএসএলের শুরুটা খারাপ করেনি বেঙ্গালুরু। গত বারের সেমিফাইনালিস্ট দল নর্থইস্ট ইউনাইটেডের বিরুদ্ধে ৪-২ ব্যবধানে জয় দিয়েই শুরু করেছিল বেঙ্গালুরু। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচেই বড় বিপর্যয় ঘটল।

আইএসএলের দ্বিতীয় ম্যাচেই বড় ধাক্কা খেল বেঙ্গালুরু এফসি। ধারে, ভারে, শক্তিতে পিছিয়ে থাকা ওড়িশা এফসি-র কাছে বিশ্রি ভাবে হারল সুনীল ছেত্রীর টিম। সুনীলের পেনাল্টি মিস থেকে দুর্বল রক্ষণ, আক্রমণ ভাগেরও কোনও ধার নেই- সব মিলিয়ে গত বারের লাস্টবয়দের কাছে ৩-১ গোলে হারতে হল বেঙ্গালুরুকে।

অথচ আইএসএলের শুরুটা খারাপ করেনি বেঙ্গালুরু। গত বারের সেমিফাইনালিস্ট দল নর্থইস্ট ইউনাইটেডের বিরুদ্ধে ৪-২ ব্যবধানে জয় দিয়েই শুরু করেছিল তারা। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচেই বড় বিপর্যয় ঘটল।

বুধবার তিলক ময়দানে ম্যাচের তিন মিনিটেই বেঙ্গালুরু গোলকিপার গুরপ্রীত সিং সান্ধুর ভুলের বড় খেসারত দিতে হয় পুরো টিমকে। আপাত নিরীহ একটি বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে বক্সের বাইরে থাকা জাভিয়ার হার্নান্ডেজের কাছে সেটা পাঠিয়ে দেন গুরপ্রীত। ও রকম একটা সুযোগ কোনও ভাবে নষ্ট হতে দেননি চতুর হার্নান্ডেজ। গুরপ্রীতের মাথার উপর দিয়ে বলটি জালে জড়ান তিনি। ১-০ এগিয়ে যায় ওড়িশা। এই ঘটনাতেই বড় ধাক্কা খেয়ে যায় বেঙ্গালুরু। কিন্তু ২১ মিনিটের মাথায় রোশন নাওরেমের সহয়তায় ওড়িশা গোলকিপার কমলজিৎ সিংকে কোনও সুযোগ না দিয়ে সমতা ফেরান অ্যালান কোস্টা। প্রথমার্ধে এই দু'টি গোল ছাড়া কোনও দলই বড় সুযোগ তৈরি করতে পারেনি। পুরো খেলাটাই আটকে ছিল মাঝমাঠে।

তবে দ্বিতীয়ার্ধে কিছুটা নড়েচড়ে ওঠে ওড়িশা। ম্যাচের ৫১ মিনিটে একটি ফ্রি কিক থেকে ওড়িশাকে এগিয়ে দেন সেই জাভিয়ার হার্নান্ডেজই। ওড়িশা ২-১ এগিয়ে যাওয়ার পরে কিন্তু হাল ছাড়েনি বেঙ্গালুরু। ৬১ মিনিটের সমতা ফেরানোর বড় সুযোগ পেয়েছিল বেঙ্গালুরু এফসি। কিন্তু পেনাল্টি থেকে গোল করতে ব্যর্থ হন দলের অধিনায়ক সুনীল ছেত্রী। তবে সুনীলের শট বাঁচিয়ে দেন ওড়িশার কিপার কমলজিৎ। সেই সময়ে যদি সমতা ফেরাত বেঙ্গালুরু, তা হলে হয়তো খেলার ফল অন্য রকম হতে পারত। সেই সঙ্গে সুনীলও আইএসএলে কোরোর সর্বাধিক ৪৮টি গোলের রেকর্ড স্পর্শ করতে পারতেন।

এ দিকে গোলশোাধের মরিয়া চেষ্টা চালাতে গিয়ে আক্রমণে জোর দেওয়ায়, ম্যাচের ইনজুরি টাইমের ৯৫ মিনিটে আরিদাই সুয়ারেজ গোল করে ওড়িশাকে ৩-১ এগিয়ে দেন। ওড়িশার বিরুদ্ধে হেরে স্বাভাবিক ভাবেই ভেঙে পড়েছে বেঙ্গালুরু। এ দিকে জয় দিয়ে মরশুম শুরু করতে পেরে খুশি ওড়িশা এফসি। এ দিনের ম্যাচের নায়ক নিঃসন্দেহে কমলজিৎ। তিনি বেশ কিছু ভালো গোল বাঁচিয়েছেন। তাঁর জন্যই কিন্তু পিছিয়ে পড়ে বেঙ্গালুরু। তিনিই দুই দলের মধ্যে পার্থক্য গড়ে দেন

বন্ধ করুন