বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবল > কোয়েস-শ্রী সিমেন্ট ঠকিয়েছে ইস্টবেঙ্গলকে! লাল-হলুদ কর্তার দাবি ঘিরে বিতর্ক
টিম ইস্টবেঙ্গল

কোয়েস-শ্রী সিমেন্ট ঠকিয়েছে ইস্টবেঙ্গলকে! লাল-হলুদ কর্তার দাবি ঘিরে বিতর্ক

  • গত দু'বার ইস্টবেঙ্গল ক্লাবকে ঠকতে হয়েছে। এবার তাই আর লাল-হলুদ ব্রিগেড সেই একই ভুল করতে চায় না। সে কারণেই নাকি বিনিয়োগকারী নিয়ে‘ধীরে চলো’ নীতি মানতে চাইছে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব। এমনই কথা জানিয়েছেন ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের সহ সচিব শান্তিরঞ্জন দাশগুপ্ত।

গত দু'বার ইস্টবেঙ্গল ক্লাবকে ঠকতে হয়েছে। এবার তাই আর লাল-হলুদ ব্রিগেড সেই একই ভুল করতে চায় না। সে কারণেই নাকি বিনিয়োগকারী নিয়ে ‘ধীরে চলো’ নীতি মানতে চাইছে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব। এমনই কথা জানিয়েছেন ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের সহ সচিব শান্তিরঞ্জন দাশগুপ্ত। আসলে ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের বিনিয়োগ জট অব্যাহত রয়েছে। এর আগে শোনা গিয়েছিল শতাব্দী প্রাচীন বাংলার ক্লাবে বিনিয়োগ করতে আগ্রহ দেখিয়েছে বাংলাদেশের বসুন্ধরা গোষ্ঠী। কিন্তু তারপর সে বিষয়ে কোনও চূড়ান্ত কথা বলা হয়নি। শোনা গিয়েছিল গত ১৫ এপ্রিলের মধ্যে নাকি নয়া ইনভেস্টরের নাম ঘোষণা করা হবে। কিন্তু তারিখ চলে গেলেও চুক্তি নিয়ে এখনও কোনও চূড়ান্ত বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের কর্তা বললেন,‘গত ৬ মাস ধরেই আমাদের আলোচনা চলছে। শ্রী সিমেন্ট যখন ছিলতখন থেকেই কথাবার্তা শুরু হয়েছে। আমরা আলাদা করে আর কোনও ঝুঁকি নেব না। দু'বার ঠকেছি। এবার সবদিক দেখেশুনেই সিদ্ধান্ত নেব।’শান্তিরঞ্জন দাশগুপ্ত আরও বলেন,‘একবার তো আমাদের কোয়েস ঠকাল, তারপর শ্রী সিমেন্ট। ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের সঙ্গে এখনও কোনও চূড়ান্ত কথাবার্তা হয়নি। এর মধ্যে অনেক প্রক্রিয়া রয়েছে, অনেক সই-সাবুদের ব্যাপার রয়েছে। বসুন্ধরার সঙ্গে আমাদের কথাবার্তা চলছে।’

ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের সহ সচিব শান্তিরঞ্জন দাশগুপ্ত বললেন,‘ভেবেছিলাম তো শ্রী সিমেন্ট অনেক কিছুই করবে। কিন্তু, কিছুই তো হল না। সেকারণেই কর্পোরেট মানসিকতা নিয়ে আগে থেকে এত কথা বলা উচিত নয়। আগে আসুক, তারপর দেখা যাবে।’ শোনা যাচ্ছে, সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের হস্তক্ষেপেই নাকি ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড ইস্টবেঙ্গলে বিনিয়োগের ব্যাপারে কথাবার্তা শুরু করেছে। যদিও এই ব্যাপারে আনুষ্ঠানিকভাবে ক্লাবের পক্ষ থেকে কিছু জানানো হয়নি।

বন্ধ করুন