বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবল > সন্তোষ ট্রফির জন্য বাংলা দলকে উজ্জীবিত করতে ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের পেপ টকে মুখ্যমন্ত্রীর উদাহরণ
বাংলার অনুশীলনে ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস

সন্তোষ ট্রফির জন্য বাংলা দলকে উজ্জীবিত করতে ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের পেপ টকে মুখ্যমন্ত্রীর উদাহরণ

বিমান বন্দর থেকে বাংলার অনুশীলনে ক্রীড়ামন্ত্রী, সন্তোষ খেলতে যাওয়া বাংলা দলের হাতে তুলে দিলেন প্র্যাকটিস কিট। দিলেন পেপ টক। 

নভেম্বরে সন্তোষ ট্রফির ম্যাচ খেলতে মাঠে নামবে বাংলা। দলের সাফল্যের জন্য অনেক আগেই ময়দানে নেমেছেন স্বয়ং আইএফএ সচিব জয়দীপ মুখোপাধ্যায়। মাঠে নামার আগে অনেক আগে থেকেই অনুশীলন শুরু করে দিয়েছে রঞ্জন ভট্টাচার্যের ছেলেরা। যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনের আবাসনে থেকেই প্র্যাকটিস গ্রাউন্ডে অনুশীলন করছেন প্রিয়ন্ত-আকাশরা। সন্তোষ ট্রফি খেলতে যাওয়া দলকে উদ্বুদ্ধ করে গেলেন রাজ্যের ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। বাংলার ফুটবলারদের হাতে প্র্যাকটিস কিট তুলে দিলেন তিনি।

সন্তোষ ট্রফি খেলতে যাওয়া ৩০ জন ফুটবলার, কোচ ও সাপোর্ট স্টাফের হাতে প্র্যাকটিস কিট তুলে দিলেন ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। তবে এখানেই শেষ নয়। প্রিয়ন্ত, আকাশ, মহিতোষদের পেপ টক দিলেন। বাংলার ফুটবলকে দেশের সেরা করতে মন্ত্রীর পেপ টকে উঠে এলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম। মাঠেই প্রায় মিনিট পনেরো ফুটবলারদের তাতালেন। মুখ্যমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে ছিলেন। সেখান থেকে বিমানবন্দরে পা রেখেই সোজা যুবভারতীতে চলে আসেন অরূপ বিশ্বাস।

অনুশীলন শেষে ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস বলেন, ‘বাংলার ফুটবলে আবার সোনালি সময় ফিরে আসুক। আইএফএ যে ভাবে ঝাঁপিয়ে পড়েছে তাতে ওদের অবদান অনস্বীকার্য। বাংলা যদি সন্তোষ ট্রফির ফাইনালে ওঠে, দেশের যে প্রান্তেই খেলা হোক আমি চলে যাব।’ একই সঙ্গে ক্রীড়ামন্ত্রী বলেন, এ বার থেকে ৭০ শতাংশ দর্শক প্রবেশ করতে পারবে স্টেডিয়ামে। কোভিডবিধি মেনেই দর্শক প্রবেশের সংখ্যা ৫০ থেকে বাড়িয়ে ৭০ শতাংশ করা হয়েছে। ২১ নভেম্বর কল্যাণীতে ছত্তিশগড়ের বিরুদ্ধে বাংলার প্রথম ম্যাচ। ২৫ নভেম্বর বাংলার ম্যাচ সিকিমের বিরুদ্ধে। জোনাল পর্ব শেষের কেরলে হবে সন্তোষ ট্রফির শেষ রাউন্ড।

বন্ধ করুন