বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবল > ‘সমর্থকেরা দেখেছেন, আমার দল কতটা লড়াই করেছে’, একই ঘ্যানঘ্যান করলেন SC EB কোচ
মারিয়ো রিভেরা কোচ হয়ে আসার পর একটি মাত্র ম্যাচ জিতেছে এসসি ইস্টবেঙ্গল।

‘সমর্থকেরা দেখেছেন, আমার দল কতটা লড়াই করেছে’, একই ঘ্যানঘ্যান করলেন SC EB কোচ

  • শেষ ম্যাচে বেঙ্গালুরু এফসি-র বিরুদ্ধে জিতলেও এ বারের আইএসএল তালিকায় লাস্টবয় হয়েই থাকতে হবে এসসি ইস্টবেঙ্গলকে।

নর্থইস্ট ইউনাইটেডের বিরুদ্ধেও জেতা হল না এসসি ইস্টবেঙ্গলের। কোনও মতে তারা ড্র করল। তাও পেনাল্টি থেকে গোলের সৌজন্যে। ১ পয়েন্ট পাওয়ায় আইএসএল তালিকার লাস্টবয় হয়েই থাকল তারা। বিরতিতে ০-১ পিছিয়ে পড়লেও পেনাল্টি থেকে আন্তোনিও পেরোসেভিচ সমতা ফেরান। নিটফল, অন্তত শূন্য হাতে মাঠ ছাড়তে হল না এসসি ইস্টবেঙ্গলকে।

যদিও এসসি ইস্টবেঙ্গলের শেষ ম্যাচ বাকি রয়েছে। শনিবার বেঙ্গালুরু এফসির মুখোমুখি হবে তারা। এই মুহূর্তে ১৯ ম্যাচে ১১ পয়েন্ট লাল-হলুদের। এ দিকে আইএসএলের সব ম্যাচ খেলা হয়ে গেল নর্থইস্টের। এ বারের মতো আইএসএল অভিযান শেষ খালিদ জামিলের টিমের। ২০ ম্যাচে তাদের পয়েন্ট ১৪। আপাতত রয়েছে আইএসএল তালিকার দশ নম্বরে। তবে শেষ ম্যাচে জিতলেও এ বারের আইএসএলে লাস্টবয় হয়েই থাকতে হবে এসসি ইস্টবেঙ্গলকে। আর সেই কারণে সমর্থকদের জন্যও লাল-হলুদের স্প্যানিশ কোচ মারিয়ো রিভেরা দুঃখিত। 

সোমবার নর্থইস্ট ইউনাইটেডের বিরুদ্ধে ১-১ ড্র করার পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে যা বললেন রিভেরা:

এই ম্যাচটা কি আপনাদের জেতা উচিত ছিল বলে মনে করেন?

অবশ্যই আমাদের জেতা উচিত ছিল আজ। ম্যাচের পরে জানতে পারলাম ১৮টা শট মেরেছি আমরা। গোলের সুযোগ তৈরি করার জন্য যা যা করা দরকার ছিল, সবই করেছি আমরা। কিন্তু আর একটা গোল করতে পারলাম না। ওরা আমাদের বিরুদ্ধে গোলটা খুব সহজেই করেছে। ভাগ্য আমাদের সঙ্গে থাকলে বোধহয় অন্য রকম কিছু হত।

ড্যারেন সিডোলের হঠাৎ কী হল? এখন তিনি কেমন আছেন এবং শেষ ম্যাচে কি খেলতে পারবেন?

ওয়ার্ম আপ করার সময় ওর গোড়ালিতে চোট লাগে। জানি না (শেষ ম্যাচে খেলতে পারবে কি না)। কাল পরীক্ষা হবে। সোতারও চোট লেগেছে। মনে হচ্ছে ওর কব্জিতে গুরুতর আঘাত লেগেছে। কাল বোঝা যাবে, শেষ ম্যাচে ওদের পাওয়া যাবে কি না।

অনন্ত তামাংকে আনার উদ্দেশ্যটা কী ছিল? ওঁকে কি শেষ ম্যাচে দেখা যেতে পারে?

দেখা যাক কী হয়। একটা মাত্র ট্রেনিং সেশনে দেখেছি ওকে। কাল আরও ভাল করে ওকে দেখব। কোয়ারান্টাইনের পরে ও ফিট আছে কি না, দেখতে হবে। ও যদি তৈরি থাকে, তা হলে মাঠে নামাব। ওকে সই করানো হয়েছিল একজন এশিয়ান খেলোয়াড়ের জায়গা পূরণ করতে। ফিট থাকলে অবশ্যই খেলাব।

পরের ম্যাচে জিতলেও আপনারা দশ নম্বরে উঠতে পারবেন না। ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের ইতিহাসে এমন কখনও হয়নি যে তারা কোনও প্রতিযোগিতার সর্বশেষ স্থানে থেকেছে। সমর্থকদের কী বলবেন?

সমর্থকদের এটাই বলব যে, আমরা অনেক চেষ্টা করেছি। আপনারা দেখেছেন, আমরা কী লড়াই করেছি। পরের ম্যাচটা আমরা জেতার চেষ্টা করব এবং জিতলে সেই জয় সমর্থকদের প্রতি উৎসর্গ করব। এই মরশুমের পর ক্লাবকে আবার শূন্য থেকে শুরু করে দল গড়তে হবে। আগামী বছর তাদের আরও শক্তিশালী হয়ে ফিরে আসতে হবে, ক্লাবের ইতিহাসের সন্মান ফিরে পাওয়ার জন্য।

শনিবার আপনাদের শেষ ম্যাচ। এই ম্যাচে কি দলের তরুণদের নামিয়ে জেতার একটা শেষ চেষ্টা করবেন?

অবশ্যই, ওদের নামাতে হবে। বেশ কয়েকজন খেলোয়াড়ের চোট আছে। দলের তরুণরা যথেষ্ট ভাল খেলছে। ওরা মাঠে নামতে চায়। আমিও সকলকে সুযোগ দিতে চাই। গত তিনটি ম্যাচে আমাদের ১৮-১৯ জন খেলোয়াড় মাঠে নেমেছে। প্রতেকেই ভাল খেলেছে এবং প্রমাণ করেছে সবাই খেলার জন্য তৈরি।

বন্ধ করুন