বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবল > টুর্নামেন্ট শুরুর আগেই ফ্রান্স দলে অন্তর্দ্বন্দ্ব, জিরুর মন্তব্যে ক্ষুব্ধ এমবাপে
বুলগেরিয়ার বিরুদ্ধে গোলের পর জিরুকে এমবাপেসহ ফরাসি ফুটবলারদের অভিনন্দন। ছবি- রয়টার্স। (REUTERS)
বুলগেরিয়ার বিরুদ্ধে গোলের পর জিরুকে এমবাপেসহ ফরাসি ফুটবলারদের অভিনন্দন। ছবি- রয়টার্স। (REUTERS)

টুর্নামেন্ট শুরুর আগেই ফ্রান্স দলে অন্তর্দ্বন্দ্ব, জিরুর মন্তব্যে ক্ষুব্ধ এমবাপে

  • বুলগেরিয়ার বিরুদ্ধে ম্যাচে দু'গোল করেন অলিভিয়ের জিরু।

ইউরোর আগে নিজেদের শেষ প্রস্তুতি ম্যাচে বুলগেরিয়াকে ৩-০ গোলে পরাস্ত করে ফ্রান্স। ম্যাচে করিম বেঞ্জিমার পরিবর্তে মাঠে নেমে দু'গোল করেন অলিভিয়ের জিরু। ফলে ফ্রান্সের সর্বকালের সর্বোচ্চ গোলস্কোরার হতে আর মাত্র পাঁচ গোল চাই এই ফরোয়ার্ডের।

তবে ম্যাচের পর সতীর্থদের বিরুদ্ধে তাঁকে পাস না বাড়ানোর অভিযোগ আনেন চেলসি তারকা। তিনি বলেন, ‘আমি গোলের জন্য দৌড় নেওয়া সত্ত্বেও আমার পায়ে বল আসছে না। আমার মনে হয় আমরা হয়তো আরও বেশি একে অপরের মধ্যে পাসিং ফুটবল খেলতে পারতাম।’

তাঁর অভিযোগের তীর যে এমবাপের দিকে, তা বুঝতে কারুরই বেশি কষ্ট হবে না। সতীর্থের এই মন্তব্যেই বেজায় চটে যান এমবাপে। প্যারিস সাঁ-জাঁ তারকা এতটাই ক্ষুব্ধ হন যে ফরাসি সংবাদমাধ্যম L'Equipe-এর মতে এই মন্তব্যের বিরুদ্ধে তিনি সংবাদমাধ্যমে এক সাক্ষাৎকার দিতেও উদ্যত হন।

তবে সম্পূর্ণ ঘটনাকে স্বাভাবিক বলেই পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন ফরাসি কোচ দিদিয়ের দেশঁ। ম্যাচের পর তিনি বলেন, ‘সবসময় যদি বল চাইলেই পাওয়া যেত তাহলে তো হয়েই যেত। অ্যাটাকার সবসময় মিডফিল্ডারদের দোষ দেবে, আবার মিডফিল্ডারাও অ্যাটাকের দৌড় না নেওয়ার দিকে আঙুল তোলে, এটা হয়েই থাকে। অনেক সময় ঠিকঠিক দৌড় না নেওয়ায় বল দেওয়া যায় না, অনেক সময় আবার নির্দিষ্ট জায়গা থেকে পাস বাড়ানো সম্ভব হয় না। তবে এতে এমবাপে বা নির্দিষ্ট কারুর কোন দোষ নেই।’

বিশ্বজয়ী ফ্রান্স দল রেকর্ড ইউরো জয়ী (যুগ্মভাবে) জার্মান দলের বিরুদ্ধে ম্যাচ দিয়ে নিজেদের ইউরো যাত্রা শুরু করবে। এমনিতেই অতীতে বেঞ্জিমা এবং জিরু একে অপরের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কাদা ছোড়াছুড়িতে মত্ত হয়েছিলেন। এবারে এমবাপের সঙ্গে টুর্নামেন্ট শুরুর আগে মতবিরোধ দলের পরিবেশ ওপর বাজে প্রভাব ফেলতেই পারে।  

বন্ধ করুন