বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবল > AFC Cup ট্রফি না পাওয়ার আক্ষেপ মিটিয়ে স্বপ্নপূরণ করতে চান, আত্মবিশ্বাসী অমরিন্দর
অমরিন্দর সিং।
অমরিন্দর সিং।

AFC Cup ট্রফি না পাওয়ার আক্ষেপ মিটিয়ে স্বপ্নপূরণ করতে চান, আত্মবিশ্বাসী অমরিন্দর

  • অমরিন্দর সিং এর আগে বেঙ্গালুরু এফসি-র হয়ে এএফসি কাপে খেলেছে। তবে ট্রফি জেতা হয়নি তাঁর। যে কারণে এ বার তিন কাঠির তলায় দাঁড়িয়ে নিজের সবটা দিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়তে যান এটিকে মোহনবাগানের এক নম্বর গোলকিপার।

উজবেকিস্তানের এফসি নাসাফ ধারেভারে, শক্তিতে এটিকে মোহনবাগানের চেয়ে অনেকটাই এগিয়ে। তাই তাদের বিরুদ্ধে খেলতে নামার আগে অনেক বেশি সতর্ক কোচ আন্তোনিও লোপেজ হাবাস। এফসি নাসাফের বিরুদ্ধে জয় ছিনিয়ে আনতে, সব ভাবে নিজের দলকে তৈরি রাখছেন স্প্যানিশ কোচ। পেনাল্টি, সেট পিস, উইং দিয়ে দৌড়ের বৈচিত্র্য, এ সব তো রয়েছেই। তা ছাড়া দুবাইয়ে ফিজক্যাল ট্রেনিংয়ের উপর বিশেষ জোর দিয়েছেন ফিজিক্যাল ট্রেনাররাও। আসলে শক্তিশালী দলের বিরুদ্ধে নামার আগে রয় কৃষ্ণদের শারীরিক সক্ষমতা আরও বাড়ানোরই চেষ্টা করা হয়েছে। যাতে নক আউট পর্বে ১২০ মিনিট পর্যন্ত ম্যাচ গড়ালে ফুটবলারদের কোনও সমস্যা না হয়। ক্লান্তি না আসে।

প্রতিপক্ষের শক্তি দূর্বলতাগুলি দলের ফুটবলারদের মাথায় ঢুকিয়ে দিয়েছেন হাবাস। সেই সঙ্গে নিজের দলের রক্ষণকে সংগঠিত করার চেষ্টা করেছেন। যাতে কোনও ভাবে দলকে গোল খেতে না হয়, সেই বিষয়ে বাড়তি সতর্ক রয় কৃষ্ণদের কোচ। জানা গিয়েছে, হাবাস নাকি প্রচুর পেনাল্টি মারাও প্র্যাকটিস করিয়েছেন। সম্ভবত শক্তিশালী এফসি নাসাফকে নির্দিষ্ট সময়ে আটকে দিয়ে টাইব্রেকারের দিকে ম্যাচকে টেনে নিয়ে যাওয়ার ভাবনা রয়েছে স্প্যানিশ কোচের। আর সেই কারণেই এটিকে মোহনবাগান প্লেয়ারদের শারীরিক সক্ষমতার বাড়ানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। আসলে উজবেকিস্তানের এই ক্লাবের বিরুদ্ধে জিততে হলে নিজেদের ক্ষমতার বাইরে গিয়েই লড়াই করতে হবে সবুজ-মেরুন ব্রিগেডকে। তাই প্রস্তুতিতে কোনও ঘাটতি রাখা হচ্ছে না।

অমরিন্দর সিং এর আগে এএফসি কাপ খেললেও, ট্রফি জেতা হয়নি তাঁর। যে কারণে এ বার তিন কাঠির তলায় দাঁড়িয়ে নিজের সবটা দিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়তে যান  এটিকে মোহনবাগানের এক নম্বর গোলকিপার। তবে অমরিন্দরের দাবি, ‘কোন দলের বিরুদ্ধে খেলছি, সেটা আমি দেখি না। আমি সব সময়ে পরিশ্রম করি এবং নিজের সেরাটা দেওয়া চেষ্টা করে থাকি। নাসাফের বিরুদ্ধেও একই কাজ করব।’ এর সঙ্গেই তিনি অবশ্য বলেছেন, ‘উজবেকিস্তানের ম্যাচটা কঠিন হতে চলেছে। তবে দুবাইয়ের উন্নত পরিকাঠামোতে শিবির করেছি আমরা। যেটা কাজ লাগবে।’

বেঙ্গালুরুতে থাককালীন এএফসি কাপের ম্যাচ খেললেও ট্রফি জয়ের স্বাদ পাননি অমরিন্দর। সেই আক্ষেপটা রয়ে গিয়েছে। তাই বলছিলেন, ‘বেঙ্গালুরুতে থাকাকালীন এএফসি কাপে খেললেও ট্রফি পাইনি। এ বার মনে হচ্ছে স্বপ্নপূরণ হবে। নিজের সবটাই দিয়ে এই স্বপ্নপূরণ করতে চাই। এই ট্রফি জেতাটা এই মরশুমে আমার অন্যতন প্রধান লক্ষ্য।’

বন্ধ করুন