বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবল > দাদু-বাবার জন্যই লাল-হলুদে অরিন্দম! প্রথমবার ইস্টবেঙ্গলে সই করে কী বললেন মোহনবাগানের প্রাক্তনী
তিনকাঠির তলায় এ বারে এসসি ইস্টবেঙ্গলকে ভরসা দেবেন অরিন্দম ভট্টাচার্য (ছবি:টুইটার)
তিনকাঠির তলায় এ বারে এসসি ইস্টবেঙ্গলকে ভরসা দেবেন অরিন্দম ভট্টাচার্য (ছবি:টুইটার)

দাদু-বাবার জন্যই লাল-হলুদে অরিন্দম! প্রথমবার ইস্টবেঙ্গলে সই করে কী বললেন মোহনবাগানের প্রাক্তনী

  • গত মরশুমে এটিকে মোহনবাগানের হয়ে ১০টি ক্লিন শিট ও ৫৯টি সেভ করেছিলেন অরিন্দম ভট্টাচার্য। চলতি মরশুমে এসসি ইস্টবেঙ্গলে সই করে বেশ নিশ্চিন্ত অরিন্দম।

নৌকো থেকে নেমে জীবনে প্রথম হাতে মশাল তুলে নিলেন ভারতের অন্যতম সেরা গোলরক্ষক অরিন্দম ভট্টাচার্য। গত মরশুমে আইএসএলের সেরা গোলকিপারকে ঘরে তুলে চমকে দিল এসসি ইস্টবেঙ্গল। যাবতীয় জল্পনার অবসান ঘটিয়ে এক বছরের চুক্তিতে সবুজ-মেরুন শিবির থেকে লাল-হলুদ শিবিরে সই করলেন অরিন্দম। এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার পিছনে রয়েছে তাঁর পরিবার, সেই ব্যাপারে বলতে ভোলেননি অরিন্দম এটিকে মোহনবাগানের প্রাক্তন অরিন্দম ভট্টাচার্য।

গত মরশুমে এটিকে মোহনবাগানের হয়ে ১০টি ক্লিন শিট ও ৫৯টি সেভ করেছিলেন অরিন্দম ভট্টাচার্য। চলতি মরশুমে এসসি ইস্টবেঙ্গলে সই করে বেশ নিশ্চিন্ত অরিন্দম। এসসি ইস্টবেঙ্গলের মিডিয়াকে দেওয়া সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে অরিন্দম জানান, ‘আমি আপ্লুত এখানে আসতে পেরে। মরশুম শুরু হওয়ার অপেক্ষা করতে পারছি না। এসসি ইস্টবেঙ্গলের হয়ে যত বেশি ম্যাচ সম্ভব জিততে চাই, এবং যত সম্ভব ক্লিন শিট রাখতে চাই।’

জীবনে প্রথম লাল হলুদে সই করলেন অরিন্দম। এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরে নিজের ইস্টবেঙ্গল প্রেমী পরিবার নিয়ে মুখ খুললেন তিন। অরিন্দম বলেন, ‘আমি অনেক মেসেজ পেয়েছি, যেখানে বলেছে কলকাতা ছেড়ে যেতে না। সত্যি বলতে গেলে, ওগুলোই আমায় অনুপ্রেরণা দিয়েছে অনেক এবং এটি অন্যতম কারণ ইস্টবেঙ্গলে যোগ দেওয়ার জন্য। বাড়িতে, আমার দাদু ও বাবা ইস্টবেঙ্গল সমর্থক। আমি নিজের ১৬ বছরের কেরিয়ারে কোনওদিনও ইস্টবেঙ্গলের হয়ে খেলিনি। তাই এখন যখন সুযোগ এসেছে, আমি দুহাত ভরে তা গ্রহণ করেছি। আমরা এই ক্লাবের ঐতিহ্য জানি এবং আমি প্রতিদিন আমার সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করব যাতে এই লাল-হলুদ পতাকা সর্বক্ষণ উড়তে থাকে।’

বন্ধ করুন