বাড়ি > ময়দান > ৯ বছর বয়সী রিকি পন্টিংয়ের জ্বালায় স্কুল ক্রিকেটের নিয়ম বদলাতে হয়েছিল তাসমানিয়াকে
রিকি পন্টিং। ছবি- রয়টার্স।
রিকি পন্টিং। ছবি- রয়টার্স।

৯ বছর বয়সী রিকি পন্টিংয়ের জ্বালায় স্কুল ক্রিকেটের নিয়ম বদলাতে হয়েছিল তাসমানিয়াকে

  • প্রাক্তন অজি দলনায়ক জানালেন, কীভাবে নিয়মের ফাঁক গলে তিনি অতিষ্ঠ করে তুলতেন কর্তৃপক্ষকে।

ক্রিকেটের ইতিহাসে সর্বকালের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান হিসেবে বিবেচিত হন রিকি পন্টিং। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে যাঁর ২৭ হাজারের বেশি রান এবং ৭১টি সেঞ্চুরি রয়েছে, তাঁকে গ্রেট বলা ছাড়া উপায় নেই। এহেন পন্টিংয়ের মধ্যে ছেলেবেলা থেকেই কিংবদন্তি হয়ে ওঠার লক্ষণ ছিল। অবাক করার বিষয় হল, মাত্র ৯ বছর বয়সেই রিকি পন্টিং তাসমানিয়াকে বাধ্য করেছিলেন স্কুল ক্রিকেটের নিয়ম বদল করতে।

স্কুল ক্রিকেটে ব্যাট হাতে নিলে আর ছাড়তে চাইতেন না পন্টিং। তাঁকে আউট করাও যেত না। বাধ্য হলেই কর্তৃপক্ষ স্থির করে যে, একটা সময়ের পর বাধ্যতামূলকভাবে ব্যাট ছাড়তে হবে স্কুল ক্রিকেটারদের, যাতে বাকিরাও ব্যাট করার সুযোগ পান।

হেরাল্ড সানকে পন্টিং নিজেই জানালেন মজাদার ঘটনার কথা। তিনি বলেন, '৯ বছর বয়সে আমি স্কুল ক্রিকেটে গোটা সেশন জুড়ে ব্যাট করতে অভ্যস্ত ছিলাম। প্রথম সেশনে আউটই হতাম না। ফলে পরের বছর থেকে নিয়ম বদলে দেওয়া হয়। ঠিক করা হয় যে, ৩০ রান করলেই ব্যাটসম্যানকে বাধ্যতামূলকভাবে ব্যাট ছাড়তে হবে।'

পান্টার আরও জানান, কীভাবে নিয়মের ফাঁক গলে তিনি বেশিক্ষণ ব্যাট চালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করতেন। তাঁর কথায়, ‘তার পর থেকে আমি ওপেন করতে নামতাম এবং চেষ্টা করতাম রান না করে যত বেশি সম্ভব বল খেলা যায়। প্রতি ওভারের শেষ বলে সিঙ্গল নিয়ে নিজের কাছেই স্ট্রাইক রেখে দেওয়ার চেষ্টা করতাম। আম্পায়ারকে বার বার জিজ্ঞাসা করতাম, আমার কত রান হল। ২৯ রানে পৌঁছনোর পর শেষ বলে চার বা ছক্কা মারার চেষ্টা করতাম।’

বন্ধ করুন