বাড়ি > ময়দান > ২৩৩ বছরের রীতি ভেঙে MCC-র প্রথম মহিলা প্রেসিডেন্ট কোনর
ক্লেয়ার কোনর। ছবি- গেটি ইমেজেস।
ক্লেয়ার কোনর। ছবি- গেটি ইমেজেস।

২৩৩ বছরের রীতি ভেঙে MCC-র প্রথম মহিলা প্রেসিডেন্ট কোনর

  • ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত ব্রিটেনের রানি ছাড়া আর কোনও মহিলার প্রবেশাধিকার ছিল না লর্ডসের লং রুমে।

২৩৩ বছরের ইতিহাসে মেরিলিবোন ক্রিকেট ক্লাব কখনও ফিকে হতে দেয়নি তাদের ঐতিহ্য আর গৌরব। সনাতনী ধ্যান-ধারণা দীর্ঘ সময় ধরে ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থাকে কিছু নিজস্ব রীতি মেনে চলতে বাধ্য করত। অবশেষে বদলে যেতে চলেছে ছবিটা। এবছর বার্ষিক সাধারণ সভায় এমসিসি প্রথা ভেঙে এমন এক সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যা এর আগে কেউ ভাবতেও সাহস করেনি।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সদর দফতর লর্ডস থেকে দুবাইয়ে সরে গেলেও তাতে ক্রিকেটের মক্কার ঐতিহ্য বিন্দুমাত্র ফিকে হয়নি। এখনও ক্রিকেটের নিয়ম প্রনয়নের ক্ষেত্রে আইসিসিকে দিকনির্দেশ করে এমসিসি।

এহেন মেলিরিবোন ক্রিকেট ক্লাব তাদের ২৩৩ বছরের ইতিহাসে প্রথমবার মহিলা প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করে ইংল্যান্ডের প্রাক্তন ক্যাপ্টেন ক্লেয়ার কোনরকে। ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত লর্ডসের লংরুমে ব্রিটেনের রানি ছাড়া কোনও মহিলার পায়ের চিহ্ন পড়েনি। দু'শো বছরের পুরুষ আধিপত্যে যে ক্লাব মহিলাদের প্রবেশাধিকার দেয়নি তাদের অন্দরমহলে, তার প্রেসিডেন্ট হচ্ছেন একজন মহিলা, এর থেকে বড় রীতি ভাঙার উহাদরণ সাম্প্রতিককালে খুঁজে পাওয়া মুশকিল।

১৭৮৭ সালে স্থাপিত এমসিসি ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত কোনও মহিলাকে সদস্যপদ দেয়নি। ১৯৯৯ সালে প্রথমবার ক্লাবের অন্দরমহলে পা পড়ে মহিলা সভ্যদের। ২০১২ সালে শার্লট এডওয়ার্ডস প্রথম মহিলা হিসেবে এমসিসির ক্রিকেট কমিটিতে জায়গা পান। সেই প্রথম কোনও মহিলা সরাসরি এমসিসির প্রশাসনিক কমিটিতে ঢুকে পড়েন। এবার ক্লেয়ার হলেন প্রথম মহিলা প্রেসিডেন্ট।

২০২১-এর ১ অক্টোবর এমসিসি প্রেসিডেন্ট হিসেবে সাঙ্গাকারার কাছ থেকে দায়িত্ব বুঝে নেবেন ক্লেয়ার। তিনি দায়িত্বে বহাল থাকবেন ২০২২-এর ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

১৯৯৫ সালে ১৯ বছর বয়সে ইংল্যান্ডের মহিলা ক্রিকেট দলে অভিষেক হয় ক্লেয়ারের। ২০০০ সালে ইংল্যান্ডের ক্যাপ্টেন নিযুক্ত হন তিনি।

বন্ধ করুন